খাগড়াছড়িতে পিসিপি-র বিক্ষোভ মিছিল

সিএইচটি-অবজারভার.কম: শুক্রবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৫ :

PCP

শিক্ষা দিবস উপলক্ষে খাগড়াছড়িতে পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ (পিসিপি) বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে।

পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের খাগড়াছড়ি জেলা শাখার তথ্য প্রচার সম্পাদক সুভাষ চাকমার স্বাক্ষরিত এক  প্রেস বার্তায় বলা হয়, উপজেলা মাঠে অনুষ্ঠিত সমাবেশে  বক্তব্যে রাখেন পিসিপি-র খাগড়াছড়ি জেলা শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক রতন স্মৃতি চাকমা। এর আগে ‌‌রাঙ্গামাটিতে মেডিকেল কলেজ, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় বাতিল, সকল জাতিসত্তার মাতৃভাষায় প্রাথমিক শিক্ষা ব্যবস্থা চালুসহ শিক্ষা সংক্রান্ত ৫ দফা দাবি আদায়ের লক্ষ্যে গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টায় পিসিপি খাগড়াছড়ি জেলা শাখার উদ্যোগে শহরের নারাঙহিয়া থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের করে।

অপরদিকে একই সময় ‘শিক্ষা বাণিজ্যকরণ বন্ধ কর’ এই স্লোগানে শিক্ষা সংক্রান্ত ৫ দফা দাবি বাস্তবায়ন ও জেলা পরিষদে শিক্ষক নিয়োগে দুর্নীতি বন্ধের দাবিতে পিসিপি খাগড়াছড়ি সরকারি কলেজ ও টেকনিক্যাল কলেজ শাখার উদ্যোগে সরকারি কলেজ মাঠ থেকে মিছিল বের করলে কলেজ গেইটের সামনে সেনা ও পুলিশের বাধার মুখে পড়ে। পরে তারা সেখানেই প্রতিবাদ সমাবেশ করে। এতে পিসিপি সরকারি কলেজ শাখার অর্থ সম্পাদক নিকাশ চাকমা ও সাধরণ ছাত্র-ছাত্রীদের পক্ষ থেকে রনেল চাকমা বক্তব্য রাখেন।

বক্তারা বলেন, পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ ২০০০ সাল থেকে পার্বত্য চট্টগ্রাম ও সমতলের সকল জাতিসত্তার নিজ নিজ মাতৃভাষায় প্রাথমিক শিক্ষার দাবিতে সংগ্রাম করে আসছে। এরই ধারাবাহিকতায় তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া ও শিক্ষামন্ত্রী ড: ওসমান ফারুক বরাবরে শিক্ষা সংক্রান্ত ৫ দফা দাবি জানিয়ে স্মারকলিপি পেশ করা হলে প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর থেকে দাবি বাস্তবায়নে আশ্বাস দেয়া হলেও বাস্তবায়ন করা হয়নি। পিসিপি-র দীর্ঘ ধারাবাহিক আন্দোলনের কারণে আওয়ামী লীগ সরকার ৬টি জাতিসত্তার মাতৃভাষায় প্রাথমিক শিক্ষা চালুর ঘোষণা দিলেও আজও তা বাস্তবায়নে এগিয়ে আসেনি।

বক্তারা আরো বলেন, সরকার পার্বত্য চট্টগ্রামে প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষার গুণগতমান বৃদ্ধিতে পদক্ষেপ গ্রহণ না করে জনগণের আপত্তি সত্ত্বেও রাঙ্গামাটিতে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এবং মেডিকেল কলেজ স্থাপন করছে। যার মাধ্যমে সরকার পাহাড়ি উচ্ছেদের ষড়যন্ত্র করছে। অন্যদিকে সরকার মেধাকে গুরুত্ব না দিয়ে ব্যাপক দুর্নীতি, অনিয়ম ও জালিয়াতি করে পার্বত্য জেলা পরিষদের মাধ্যমে শিক্ষক নিয়োগ দিয়ে প্রাথমিক শিক্ষা ব্যবস্থাকে ধ্বংসের দিকে ঠেলে দিচ্ছে।

বক্তারা অভিযোগ করে বলেন, সরকার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে গণবিরোধী ১১ নির্দেশনা জারির মাধ্যমে পার্বত্য চট্টগ্রামে নিপীড়ন-নির্যাতন বাড়িয়ে দিয়েছে।  আইন-শৃংখলা বাহিনী দিয়ে সংবিধান স্বীকৃত গণতান্ত্রিক মিছিল-মিটিং ও সভা-সমাবেশের ওপর বাধা প্রদান করছে। আজও তারা বাধা দিয়ে মিছিল-সমাবেশ ভণ্ডুল করে দেয়ার চেষ্টা চালিয়েছে।

বক্তারা অবিলম্বে সকল জাতিসত্তার মাতৃভাষায় প্রাথমিক শিক্ষা চালুসহ পিসিপি-র শিক্ষা সংক্রান্ত ৫ দফা দাবি বাস্তবায়ন, পার্বত্য জেলা পরিষদের অধীনে শিক্ষক নিয়োগে দুর্নীতি ও অনিয়ম বন্ধ করা, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের গণবিরোধী ১১ নির্দেশনা বাতিল, অন্যায় ধরপাকড় ও নিপীড়ন-নির্যাতন বন্ধ করা এবং মিছিল-মিটিং ও সভা-সমাবেশের ওপর বিধি-নিষেধ তুলে নিয়ে পূর্ণ গণতান্ত্রিক পরিবেশ ফিরিয়ে আনার দাবি জানান।

খবরটি শেয়ার করুন

Post Comment