সানিয়ার জীবনের জানা-অজানা গল্প

সিএইচটি-অবজারভার.কম: মঙ্গলবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৫ :
Sania


সানিয়া মির্জা সম্বন্ধে বলতে গিয়ে আজ আর কোনো ভূমিকা দেওয়ার প্রয়োজন পড়ে না। ১৯৮৬র ১৫ নভেম্বর মুম্বাইতে জন্মানো এই মেয়ে দেশের গর্ব। ২০০৩-১৩ পর্যন্ত সিঙ্গলস ও ডাবলস দুই ইভেন্টেই দেশের এক নম্বর মহিলা খেলোয়াড়ের জায়গাটা ধরে রেখেছিলেন তিনি। ২০১৩-তে সিঙ্গলস থেকে অবসর নেন সানিয়া। যদিও ডাবলস খেলেই একের পর এক নজির গড়ে চলেছেন টেনিস সুন্দরী। নিঃসন্দেহে দেশের সর্বকালের সেরা মহিলা টেনিস খেলোয়াড় সানিয়া। চলতি বছরে একপ্রকার স্বপ্নের উড়ানে ভর করেই এগিয়ে চলেছেন সানিয়া। মৌসুম শুরু হওয়ার কিছুটা পরই সুইস কিংবদন্তি মার্টিনা হিঙ্গিসের সঙ্গে জুটি বেঁধে মার্কিন মুলুকে ফ্যামিলি সার্কেল কাপ জেতেন। এই জয়ের সুবাদেই দেশের প্রথম মহিলা হিসেবে ডাবলসে বিশ্বের এক নম্বর হয়ে যান।

অন্যদিকে, শনিবারই লন্ডনে হিঙ্গিসকে নিয়ে উইম্বলডন জেতেন। দেশের প্রথম মহিলা টেনিস খেলোয়াড় হিসেবে উইম্বলডন জেতার নজির গড়লেন তিনি। এই টুর্নামেন্ট শুরুর আগেই আরেক নজির গড়েছিলেন সানিয়া। দেশের প্রথম কোনও মহিলা যে শীর্ষ বাছাই হয়ে টেনিসের ঐতিহ্যবাহী টুর্নামেন্ট শুরু করেন। ব্যক্তিগত কৃতিত্বে সানিয়া কোনোদিন গ্র্যান্ড স্ল্যাম না-জিতলেও মিক্সড ডাবলস ইভেন্টে ২০০৯-এ অস্ট্রেলিয়ান ওপেন, ২০১২-এ ফরাসি ওপেন ও ২০১৪-এ যুক্তরাষ্ট্র ওপেন জেতেন তিনি। আর এই প্রথম গ্র্যান্ড স্ল্যাম ডাবলস জিতলেন অর্জুন ও পদ্ম পুরস্কার পাওয়া সানিয়া।

এবার একনজরে দেখে নেওয়া যাক সানিয়ার জীবনের বেশ কিছু ঘটনা :
১. সানিয়ার প্রথম কোচ ছিলেন তাঁর বাবা ইমরান মির্জা। যিনি মেয়ের স্বপ্নপূরণ করার জন্য সাংবাদিকতা ছেড়ে দিয়েছিলেন।
২. সানিয়া হায়দরাবাদে বড় হলেও জন্মেছিলেন কিন্তু মুম্বাইতে।
৩. সানিয়া প্রথম ভারতীয় মহিলা হিসেবে গ্র্যান্ড স্ল্যামে বাছাই খেলোয়াড়ের তকমা পেয়েছিলেন। ২০০৬-এ অস্ট্রেলিয়ান ওপেনে এই নজির গড়েছিলেন তিনি।
৪. সানিয়া ২০০৪-এ অর্জুন ও ২০০৬-এ পদ্মশ্রী পুরস্কার পান। ২০০৫-এ ডাব্লিউটিএ-র নিউকামার অব দ্য ইয়ার হয়েছিলেন তিনি।
৫. রাশিয়ার টেনিস তারকা মারাট সাফিনের প্রতি সানিয়ার মারাত্মক ক্রাশ ছিল।
৬. ২০০৯-এ সানিয়া তাঁর ছোটবেলার বন্ধু ও কোটিপতি ব্যবসায়ী সোহরাব মির্জার সঙ্গে আংটি বদল করেন। যদিও তাঁদের সম্পর্ক বিয়ে পর্যন্ত গড়ায়নি। তাঁর আগেই সানিয়া-সোহরাব আলাদা হয়ে যান।
৭. সানিয়া ঠিক এর পরের বছরই পাকিস্তানের ক্রিকেটার শোয়েব মালিকের সঙ্গে সাতপাকে বাঁধা পড়েন।
৮. ২০১০-এ সানিয়া গুগলে মোস্ট সার্চড টেনিস স্টার হন।
৯. ২০০৫-এ টাইমের বিচারে ফিফটি হিরোস অব এশিয়া-র মধ্যে আসা সানিয়া, ২০১০-এ দেশের একটি প্রথমসারির দৈনিকের বিচারে থার্টিথ্রি ওমেন হু মেড ইন্ডিয়া প্রাউড-এর তালিকায় আসেন।
১০. ২০১৪-এ সানিয়ার ছোট পোষাক পরে কোর্টে নামা নিয়ে ফতোয়া জারি হয়েছিল। সানিয়া এতটাই ব্যথিত হয়েছিলেন যে দেশের হয়ে খেলা ছেড়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত পর্যন্ত নিতে চেয়েছিলেন।
১১. গত বছর সানিয়াকে বিজেপি নেতা কে লক্ষ্ণণ পাকিস্তানের পুত্রবধূ বলায় বিস্তর জলঘোলা হয়েছিল। সানিয়া এক সাক্ষাৎকারে কেঁদেও ফেলেন।
১২. এত বিতর্কের জন্যই সানিয়া ভারত বা পাকিস্তানে থাকেন না। দুবাইতেই শোয়েব মালিকের সঙ্গে ঘর করছেন।

খবরটি শেয়ার করুন

Post Comment