রেনিন সোয়ে মিয়ানমারের নাগরিক হিসেবে স্বীকার করেছেন

স্টাফ রিপোট –

Renin আটক মিয়ানমারের বিচ্ছিন্নতাবাদী আরাকান আর্মির শীর্ষ নেতা ডা. রেনিন সোয়ে নিজেকে মিয়ানমারের নাগরিক বলে স্বীকার করেছেন। গত বুধবার আদালতের আদেশে পুলিশ ৫ দিনের রিমান্ডে নিয়ে তার প্রকৃত নাগরিক পরিচয় জানা গেছে বলে রাঙ্গামাটি জেলা পুলিশের একজন উর্ধতন কর্মকর্তার সূত্রে এ কথা জানা যায়।

সূত্র জানায়, আটক আরাকান আর্মি নেতা ডা. রেনিন সোয়ের কাছ থেকে উদ্ধারকৃত ৬টি ক্রেডিট কার্ডের লেনদেনের বিষয়গুলো গভীরভাবে খতিয়ে দেখছে পুলিশ। সূত্র মতে, যে সমস্ত ব্যাংক একাউন্টের মাধ্যমে দেশে এবং বিদেশে তিনি কার কার সাথে লেনদেন করতেন সে বিষয়গুলো গভীরভাবে খতিয়ে দেখা হচ্ছে। আগামী রোববার আটক আরাকান আর্মির নেতার রিমান্ডের মেয়াদ শেষ হচ্ছে।

গত ২৮ আগষ্ট যৌথ বাহিনীর সদস্যরা উপজেলার তাইন্দং পাড়ার কলেজ রোডস্থ এলাকায় ডা.রেনিন সোয়ের তিন তলা বাড়িতে অভিযান চালিয়ে আরাকান আর্মির পোশাক, ২টি ঘোড়া ও অন্যান্য সরঞ্জামাদিসহ আরাকান আর্মির সহযোগী সদস্য অংওয়েন রাখাইনকে আটক করে। পরে ৩০ আগষ্ট বাড়ীর দুই কেয়ারটেকার মংচু অং মারমা ও চুইস অং মারমাকে যৌথ বাহিনী আটক করে। এ ঘটনার পর ডা. রেনিন সোয়ে দীর্ঘ ১ মাস ৬ দিন পলাতক থাকার পর বুধবার যৌথ বাহিনী তাকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়।

উল্লেখ্য, গত ৪ অক্টোবর বুধবার মধ্যরাতে রাঙ্গামাটির রাজস্থলী উপজেলার ইসলামপুরের একটি নির্মাণাধীন মসজিদ থেকে মিয়ানমারের বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন আরাকান আর্মির শীর্ষ নেতা ডা. রেনিন সোয়ে-কে গ্র্রেফতার করে পুলিশ ও বিজিবির সদস্যরা। তখন তার কাছ থেকে একটি ল্যাপটপ, ৪১ হাজার ভারতীয় মুদ্রা, নেদারল্যান্ডের পাসপোর্ট ও ৬টি ক্রেডিট কার্ড, ১টি আইডি কার্ড উদ্ধার করা হয়েছিল। তার বিরুদ্ধে সন্ত্রাস দমন আইন ও বিদেশী নাগরিক আইনের দুটি মামলা ছাড়াও মুদ্রা আইনে আরো একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

খবরটি শেয়ার করুন

Post Comment