নারী-শিশুর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধ বিষয়ক কর্মশালা

ডেস্ক রিপোর্ট –

 ছবি – হিলবিডি২৪.কম

আজ রোববার রাঙ্গামাটিতে তিন দিন ব্যাপী আদিবাসী নারী ও শিশুর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধ বিষয়ক কর্মশালা শুরু হয়েছে।

কাপেং ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক পল্লব চাকমার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত কর্মশালায় প্রধান অতিথি ছিলেন পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদ চেয়ারম্যান জ্যোতিরিন্দ্র বোধিপ্রিয় লারমা (সন্তু লারমা)।

কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে সন্তু লারমা বলেছেন, বিগত দুই যুগ ধরে চলা সশস্ত্র সংগ্রামের সময়েও আদিবাসী জুম্ম নারীরা বিভিন্নভাবে ভূমিকা রেখেছেন। বর্তমানেও তারা পার্বত্য চট্টগ্রামের আদিবাসীদের অধিকার আন্দোলনে বড় ভুমিকা রেখে চলেছেন। তিনি আদিবাসীদের মৌলিক অধিকার আদায়ের লক্ষ্যে যে আন্দোলন-সংগ্রাম চলছে তাতে অধিকতর সক্রিয় ভূমিকা রেখে অংশ গ্রহণের জন্য জুম্ম নারীদের প্রতি আহ্বান জানান।

তিনি আরও বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামে সবচেয়ে আাদিবাসী নারী ও কন্যা শিশুরা সহিংসতার শিকার হচ্ছে। তার থেকে প্রতিবিধান পেতে হলে নারী সমাজসহ সবাইকে সোচ্চার হয়ে প্রতিরোধে এগিয়ে আসতে হবে।

শহরের কল্যাণপুরের টংগ্যা সম্মেলন কক্ষে কাপেং ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে আয়োজিত কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন চাকমা সার্কেল চীফ ব্যারিষ্টার রাজা দেবাশীষ রায়, জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের সদস্য নিরূপা দেওয়ান, বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরামের সাংগঠনকি সম্পাদক শক্তিপদ ত্রিপুরা ও বরকল উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মনি চাকমা।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে চাকমা সার্কেল চীফ ব্যারিষ্টার দেবাশীষ রায় বলেন,পার্বত্য চট্টগ্রামে আদিবাসী নারীদের ক্ষমতায়নের স্বার্থে রাঙ্গামাটি, বান্দরবান ও খাগড়াছড়ি সার্কেলের প্রতিটি মৌজায় নারী কার্বারী (গ্রাম প্রধান) নিয়োগ করা হবে। ইতোমধ্যে চাকমা সার্কেলের অধীনে ১২০ জন নারী কার্বারী নিয়োগ করা হয়েছে। পর্যায়ক্রমে বাকীগুলোতে নিয়োগ করা হবে।

তিন দিন ব্যাপী আয়োজিত কর্মশালায় তিন পার্বত্য জেলা থেকে বিভিন্ন সংগঠনের আদিবাসী নারী অংশ গ্রহণ করেন।

খবরটি শেয়ার করুন

Post Comment