রাঙ্গামাটি পৌর ও ১-৯নং ওয়ার্ড শাখা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত

রাঙ্গামাটি জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক প্রতিমন্ত্রী দীপংকর তালুকদার বলেছেন, পার্বত্য শান্তি চুক্তি বাস্তবায়নে প্রধান অন্তরায় হচ্ছে পার্বত্য এলাকার অবৈধ অস্ত্র। সারা পার্বত্য এলাকায় বিরাজ করছে শ্বাসরুদ্ধকর অবস্থা। বর্তমানে অবৈধ অস্ত্রের কাছে পার্বত্যবাসী জিম্মি।

আজ মঙ্গলবার আওয়ামী লীগ রাঙ্গামাটি পৌর শাখা ও ১-৯নং ওয়ার্ড শাখার বর্ধিত সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে দীপংকর তালুকদার এসব কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, ব্যবসা বাণিজ্য, অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড, মানুষের সার্বিক চলাফেরা ও স্বাধীনভাবে কথা বলা, কৃষকের পণ্য উৎপাদন ও বিপণনসহ সকল কর্মকাণ্ড আজ অবৈধ অস্ত্রের মাধ্যমে নিয়ন্ত্রণ করছে চিহ্নিত একটি বিশেষ গোষ্ঠী। এখানে রাজনীতির আড়ালে অবৈধ চাঁদাবাজি, অবৈধ অস্ত্রের বলে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে প্রতিনিয়ত রক্ত ঝরছে। একদল আরেক দলের উপর অবৈধ অস্ত্র নিয়ে আক্রমন করে হত্যা করছে। আমরা এ পার্বত্য এলাকা থেকে অবৈধ অস্ত্র অবিলম্বে উদ্ধার চাই। আমরা আর কোন ভাইয়ের লাশ চায় না।

রাঙ্গামাটি পৌর ও ওয়ার্ড শাখা কর্তৃক কুমার সমিত রায় জিমনেসিয়ামে আয়োজিত বর্ধিত সভায় সভাপতিত্ব করেন পৌর আওয়ামী লীগ সভাপতি হাজী সোলায়মান চৌধুরী। বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদ সদস্য হাজী মুছা মাতব্বর, আঞ্চলিক পরিষদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগ সহ-সভাপতি মাহবুবর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি চিংকিউ রোয়াজা, জেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান নিখিল কুমার চাকমা, অংসু প্রু চৌধুরী, এডভোকেট পরিতোষ দত্ত, জেলা আওয়ামী লীগ যুগ্ম সম্পাদক আব্দুল মতিন, যুগ্ম সম্পাদক জসিম উদ্দিন বাবুল, সাবেক পৌর মেয়র হাবিবুর রহমান হাবিব, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাধন মনি চাকমা, পৌর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি নাসির উদ্দীন তালুকদার, মাহফুজুর রহমান মাহফুজ, মহিলা লীগের নেত্রী জেবুনেচ্ছা জেবু। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন রাঙ্গামাটি পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মনসুর আলী। এসময় জেলা, পৌর এবং ওয়ার্ড কমিটির নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

বর্ধিত সভায় রাঙ্গামাটি পৌর কমিটি ও ৯টি ওয়ার্ডের পক্ষ থেকে পৌর আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে পৌর সভাপতি সোলাইমান চৌধুরীকে আসন্ন পৌর নির্বাচনে প্রার্থী হিসেবে মনোনীত করার জন্য লিখিত আবেদন করা হয় এবং প্রত্যেক ওয়ার্ড থেকে নেতৃবৃন্দের বক্তব্যেও এ বিষয়ে জোর দাবী জানানো হয়।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে দীপংকর তালুকদার আরো বলেন, সারাদেশের মত এ পার্বত্য এলাকায়ও সেনাবাহিনী, বিজিবি, র‌্যাব, পুলিশ আনসার বাহিনীর কৃতিত্বপূর্ণ অনেক অবদান রয়েছে, অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারের অনেক সফলতাও রয়েছে। তবে সারাদেশের মত করে পার্বত্য এলাকার অবৈধ অস্ত্রের বাস্তবতা বিবেচনা করলে চলবে না, পার্বত্য এলাকায় আজকের অস্বস্তিকর অবস্থার অবসান ঘটাতে, পার্বত্য শান্তি চুক্তির পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়ন করতে ও পার্বত্যবাসীর ভাগ্যের পরিবর্তন করতে হলে আগে পাহাড় থেকে বিশেষ বিবেচনায় এ অবৈধ অস্ত্রের অস্তিত্ব বিলীন করতে হবে। তিনি পার্বত্য এলাকা থেকে অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারে জরুরী ভিত্তিতে পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য সরকার ও আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর প্রতি আহ্বান জানান।

বর্ধিত সভায় উপস্থিত নেতা-কর্মীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, আসন্ন পৌর নির্বাচনে সরকার দলীয় প্রতীকে অনুষ্ঠানের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তারই আলোকে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ দলীয় প্রতীক নিয়ে দলীয়ভাবে এ নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করবে।

তিনি জানান, এ পযর্ন্ত ৪ জন দলীয় প্রার্থিতা প্রত্যাশী, সাবেক পৌর মেয়র হাবিবুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক আব্দুল মতিন, জেলা যুবলীগ সভাপতি আকবর হোসেন, পৌর আওয়ামী লীগ সভাপতি হাজী সোলায়মান চৌধুরী দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশা করেছেন। তারা প্রত্যেকে পৌর নির্বাচনকে সামনে রেখে নিজের মত করে কাজ করছেন মাঠে। তাদের প্রত্যেকের যোগ্যতা রয়েছে। তবে শুধুমাত্র তাদের একজনকেই মনোনীত করতে হবে।

তিনি বলেন, তৃণমূল থেকে যে সব মতামত এসেছে তা বিবেচনায় নিয়ে ও জেলা নেতৃবৃন্দসহ কেন্দ্রীয় নির্দেশনার নিরিখে যাকে মনোনয়ন দেয়া হবে তাকে জেতানোর লক্ষ্যে প্রত্যেককে একজোট হয়ে কাজ করতে হবে।

খবরটি শেয়ার করুন

Post Comment