রাঙ্গামাটিতে স্বাস্থ্য ও স্যানিটেশন বিষয়ক সেমিনার

রাঙ্গামাটি রিপোর্ট –

Seminar

পার্বত্য এলাকার দুর্গম ও প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়নে স্থানীয় বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা আশিকা মানবিক উন্নয়ন কেন্দ্র ও আরডিএ বাস্তবায়িত ‘প্রাকৃতিক বন রক্ষা, বিশুদ্ধ পানি সরবরাহ ও স্যানিটেশন ব্যবস্থা এবং জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলায় করণীয়’ শীর্ষক প্রকল্পের উপর প্রকাশ করা প্রকাশনার মোড়ক উন্মোচন সেমিনারে রাঙ্গামাটির কাপ্তাই হ্রদকে বাঁচাতে কার্যকর পদক্ষেপ নেয়ার আহবান জানান বক্তারা।

আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থা মুসলিম এইড ইউকে ঢাকার আঞ্চলিক শাখার সহায়তায় বাস্তবায়িত প্রকল্পের ওপর প্রকাশিত বইটির মোড়ক উন্মোচন সেমিনার অনুষ্ঠিত হয় সকাল ১০টায় রাঙ্গামাটি জেলা ক্রীড়া সংস্থার সম্মেলন কক্ষে।

আশিকা মানবিক কেন্দ্রের নির্বাহী পরিচালক ও রাঙ্গামাটি ডেভেলপমেন্ট এসোসিয়েসন (আরডিএ) -এর নির্বাহী পরিচালক বিপ্লব চাকমার সভাপতিত্বে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা প্রশাসক মো. সামসুল আরেফিন। এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন মুসলিম এইড ইউকে বাংলাদেশের রিসোর্স মোবাইলিজেশন অ্যান্ড অ্যাডভোকেসির প্রধান ইকবাল আহমেদ ও রাঙ্গামাটি প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি প্রবীণ সাংবাদিক সুনীল কান্তি দে। শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন আশিকার প্রকল্প পরিচালক অ্যাডভোকেট কক্সী তালুকদার এবং প্রকল্পের প্রতিবেদন তুলে ধরেন মুসলিম এইড ইউকে বাংলাদেশের কর্মসূচি কর্মকর্তা শফিউল আজম ও আশিকার প্রকল্প কর্মকর্তা বিশাখা তঞ্চঙ্গ্যা।

অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন আশিকার কর্মকর্তা ঝুমালিয়া চাকমা। এছাড়া উপস্থিত স্থানীয় সমাজকর্মী, উন্নয়ন সংগঠক ও গণমাধ্যম কর্মীরা আলোচনায় অংশ নেন।

প্রধান অতিথি জেলা প্রশাসক মো. সামসুল আরেফিন বলেন, বর্তমানে কাপ্তাই হ্রদ নিয়ে বড় ধরনের সংকট দেখা দিচ্ছে। শুস্ক মৌসুমে হ্রদের পানির স্তর অস্বাভাবিক হারে নিচে নেমে যায় এবং বর্ষা মৌসুমে পানির স্তর বেড়ে যায় অতিরিক্ত উচ্চতায়। ফলে শুস্ক মৌসুমে নৌ যোগাযোগ, মৎস্য ও বিদ্যুৎ উৎপাদন ব্যাহত হয়ে পড়ে। অন্যদিকে বর্ষা মৌসুমে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়ে ব্যাপক ক্ষতি সাধিত হয়। পাশাপাশি অতিরিক্ত পানি ছেড়ে দিতে হয় বলে কাপ্তাই বাঁধের ভাটি এলাকা চট্টগ্রামের লিচুবাগান ও রাঙ্গুনীয়ার নিম্নাঞ্চলে ব্যাপক ক্ষতি হয়। এছাড়া কাপ্তাই বাঁধ হুমকিতে পড়ে। এ জন্য সবাইকে সম্মিলিতভাবে এগিয়ে আসতে হবে এবং জনগণকে হ্রদ রক্ষায় সচেতন করতে হবে। তা নাহলে কাপ্তাই হ্রদ বাঁচানো সম্ভব নয় বলে তিনি মন্তব্য করেন।

প্রবীণ সাংবাদিক সুনীল কান্তি দে বলেন, কাপ্তাই হ্রদ ঘিরে গড়ে ওঠা সম্ভাবনাগুলো কাজে লাগাতে হ্রদ রক্ষায় অবিলম্বে কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়া দরকার। হ্রদকে ব্যবহার উপযোগী করে পর্যটন, নৌ পরিবহন, মৎস্য ও বিদ্যুৎ উৎপাদন, কৃষি চাষসহ সব সম্ভাবনা কাজে লাগাতে হবে।

সেমিনারে বলা হয়, মুসলিম এইড ইউকে বাংলাদেশ পার্বত্য চট্টগ্রামের দুর্গম এলাকার প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়নে নিরাপদ পানি সরবরাহের ব্যবস্থা, স্বাস্থ্য, শিক্ষা ও স্যানিটেশন নিয়ে কাজ করতে চাই। এ লক্ষ্যে স্থানীয় সহযোগী বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা আশিকা ও আরডিএ’র মধ্যে পাইলট প্রকল্প শুরু করেছে। বর্তমানে রাঙ্গামাটি জেলার সদর উপজেলার মগবান ও নানিয়ারচর উপজেলার সাবেক্ষং ইউনিয়নে প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে মুসলিম এইড ইউকে বাংলাদেশ। আগামী ১৮ মাসের মেয়াদে আরও প্রকল্প নিতে চায় আন্তর্জাতিক এ সংস্থাটি। এ জন্য অর্থ বরাদ্দ রয়েছে।

সংস্থাটির বাংলাদেশের উর্ধতন কর্মকর্তা ইকবাল আহমেদ বলেন, রাঙ্গামাটিতে এর আগে থেকেই আমরা উন্নয়ন ও সেবামূলক কাজ করে আসছি। বিশেষ করে এ এলাকার  প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়নে স্বাস্থ্য, স্যানিটেশন, শিক্ষা নিয়ে আরও কাজ করতে চায় মুসলিম এইড ইউকে বাংলাদেশ। এ জন্য চায় সবার আন্তরিক সহযোগিতা।

খবরটি শেয়ার করুন

Post Comment