জেলা প্রশাসক গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট উদ্বোধন করলেন সন্তু লারমা

ক্রীড়া রিপোর্ট –

Football

পার্বত্য চট্টগ্রামে বহু সমস্যা বিরাজমান থাকলেও ক্রীড়ার মাধ্যমে তা অনেকটা নিরসন হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদ চেয়ারম্যান জ্যাতিরিন্দ্র বোধিপ্রিয় লারমা (সন্তু লারমা)। তিনি বলেন, ক্রীড়ার মাধ্যমেই পার্বত্য জেলার মানুষ একে অন্যের সান্নিধ্যে আসতে পেরেছে। এর ফলে একে অন্যের প্রতি সম্প্রীতি ও শ্রদ্ধা বেড়েছে। এই টুর্ণামেন্টের মধ্য দিয়ে এ জেলার খেলাধূলার মান আরো বৃদ্ধি পাবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

“খেলাধুলার মাধ্যমে উদ্ভাসিত হোক নির্মল আনন্দ ছড়িয়ে পড়ুক জেলার প্রতিটি জনপদ” এ প্রতিপাদ্য সামনে রেখে রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসনের পৃষ্ঠপোষকতায় এবং জেলা ক্রীড়া সংস্থা ও জেলা ফুটবল এসোসিয়েশনের সার্বিক ব্যবস্থাপনায় আজ ১ ডিসেম্বর মঙ্গলবার রাঙ্গামাটি চিংহ্লা মং চৌধুরী মারী স্টেডিয়ামে জেলা প্রশাসক গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট শুভ উদ্বোধন কালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসক ও জেলা ক্রীড়া সংস্থার সভাপতি মো: সামসুল আরেফিনের সভাপতিত্বে আয়োজিত উদ্বোধনী টুর্নামেন্টে বিশেষ অতিথি ছিলেন রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমা, জেলা পুলিশ সুপার ও ফুটবল উপ-পরিষদের আহ্বায়ক সাঈদ তারিকুল হাসান, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো: মোস্তফা জামান, পৌর মেয়র সাইফুল ইসলাম চৌধুরী ভুট্টো, ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক বরুণ বিকাশ দেওয়ান-সহ ক্রীড়া সংস্থার অন্যান্য কর্মকর্তাবৃন্দ।

আঞ্চলিক পরিষদ চেয়ারম্যান বলেন, ক্রীড়া ক্ষেত্রে এই জেলার অনেক সুনাম রয়েছে। জাতীয় দলের অনেক খেলোয়াড়রই এই জেলার। এ সুনাম ধরে রাখতে তিনি ক্রীড়া সংস্থার বিভিন্ন টুর্নামেন্ট ও প্রশিক্ষনের  ব্যবস্থা গ্রহণের আহ্বান জানান।

Football

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক বলেন, তরুন প্রজন্মকে অপকর্ম থেকে সরিয়ে আনতে ক্রীড়ার কোন বিকল্প নেই। তাই তরুন প্রজন্মকে ক্রীড়ার প্রতি আরো আহগ্রী করতে হবে। তিনি বলেন, ক্রীড়া মানুষের মন ও শরীরকে প্রফুল্ল রাখে। প্রফুল্ল মন হিংসা হানাহানি ও অপকর্ম থেকে সবসময় মানুষকে দূরে রাখে।

৯০ মিনিটের উদ্বোধনী ফুটবল টুর্নামেন্টে রাঙ্গামাটি বনাম বাঘাইছড়ি উপজেলা অংশ গ্রহণ করে। খেলায় রাঙ্গামাটি সদর ৪-০ গোলে বাঘাইছড়ি উপজেলা দলকে হারিয়ে জয়লাভ করে।

খেলার প্রথমার্ধে রাঙ্গামাটির পক্ষে ১ম গোলটি করেন সুমন ত্রিপুরা, ২য় গোলটি করেন ৯নং জার্সি পরিহিত মো: শফিক এবং পরের ২টি গোল করেন ১১নং জার্সি পরিহিত মুন্না আসাম। খেলার দ্বিতীয়ার্ধে কোন গোল না হওয়ায় রেফারির শেষ বাঁশী বাজানোর মধ্য দিয়ে খেলার সমাপ্তি ঘটে।

২ ডিসেম্বর বিলাইছড়ি বনাম বরকল উপজেলা, ৩ ডিসেম্বর নানিয়ারচর বনাম জুরাছড়ি, ৪ ডিসেম্বর কাউখালী বনাম রাজস্থলী উপজেলার খেলা অনুষ্ঠিত হবে।

খবরটি শেয়ার করুন

Post Comment