প্রেস বিজ্ঞপ্তি

খাগড়াছড়িতে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবস পালিত, সমাবেশে বাধা

প্রেস বিজ্ঞপ্তি

PCP

খাগড়াছড়ি জেলা সদরে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবস উপলক্ষে পার্বত্য চট্টগ্রামের তিন গণতান্ত্রিক সংগঠন (গণতান্ত্রিক যুব ফোরাম, পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ ও হিল উইমেন্স ফেডারেশন)-এর যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত সমাবেশে অনুমতি না থাকার অজুহাত দেখিয়ে ম্যাজিষ্ট্রেটের উপস্থিতিতে পুলিশ বাধা দিয়েছে।

আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবস উপলক্ষে বৃহস্পতিবার (১০ ডিসেম্বর) ‘জাতিসংঘের মানবাধিকার সনদ মেনে চল, মানবাধিকার লংঘন বন্ধ কর এই স্লোগানে অবিলম্বে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের গণবিরোধী ’১১ নির্দেশনা তুলে নেয়া ও পার্বত্য চট্টগ্রামে সংবিধান স্বীকৃত মৌলিক অধিকার প্রতিষ্ঠার দাবিতে’ এ সমাবেশের আয়োজন করা হয়।

অপরদিকে মানিকছড়ি উপজেলার সুদুরখীল এলাকায় আয়োজিত সমাবেশে হামলা চালিয়েছে সেটলার বাঙালিরা। এতে তিনজন পাহাড়ি গুরুতর আহত হয়েছে।

এ ছাড়া জেলার মহালছড়ি, পানছড়ি ও লক্ষ্মীছড়িতে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

খাগড়াছড়ি সদরের নারানখিয়া রেড স্কোয়ারে সকাল ১০টায় সমাবেশ চলাকালে জনৈক ম্যাজিষ্ট্রেট এসে সমাবেশে করার অনুমতি নেই বলে জানান এবং সমাবেশ শেষ করতে চাপ প্রয়োগ করেন। ফলে নেতৃবৃন্দ সমাবেশ শেষ করতে বাধ্য হন।

সমাবেশে সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে হিল উইমেন্স ফেডারেশন-এর সদস্য ডেইজি চাকমা বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামে সেনা-সেটলার কর্তৃক পাহাড়ি নারী ধর্ষণ, ভূমি বেদখল, অন্যায় ধরপাকড়সহ বিভিন্ন মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা ঘটছে। অথচ তারাই আবার আন্তর্জাতিক মিশনে জাতিসংঘের মানবাধিকার রক্ষার কাজ করছে!

তিনি বলেন, দীঘিনালা উপজেলার বাবুছড়ায় বিজিবি কর্তৃক উচ্ছেদ হওয়া ২১ পরিবার এবং নান্যাচর উপজেলার বগাছড়িতে সেটলার বাঙালিদের হামলার শিকার হওয়া পাহাড়ি পরিবারগুলো বর্তমানে মানবেতর জীবন-যাপন করলেও সরকার তাদের যথাযথ ক্ষতিপূরণ ও পুনর্বাসন করছে না।

তিনি মিছিল-মিটিং সমাবেশে বাধা প্রদান ও মত প্রকাশের স্বাধীনতার উপর নগ্ন হস্তক্ষেপের অভিযোগ করে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সনদ মেনে চলার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানান। তিনি হিল উইমেন্স ফেডারেশন সভাপতি নিরূপা চাকমা, সদস্য দ্বিতীয়া চাকমা-সহ আটক পিসিপি-যুব ফোরাম-ইউপিডিএফ’র নেতা-কর্মীদের অবিলম্বে নিঃশর্ত মুক্তির দাবি করেন।

বিভিন্ন উপজেলায় সমাবেশ:

মানিকছড়িতে সমাবেশে সেটলার বাঙালিদের হামলায় আহত ৩ –

আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবসে বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে মানিকছড়ি উপজেলার সুদুরখীল নামক স্থানে মানিকছড়িতে সেনা সহায়তায় চলমান ভূমি বেদখল বন্ধসহ মানবাধিকার লঙ্ঘন বন্ধের দাবিতে মানিকছড়ি ভূমি রক্ষা ছাত্র-যুব-নারী কমিটির উদ্যোগে সমাবেশ করার সময় সেটলার বাঙ্গালিরা হামলা চালায়। এতে থোইচিং মারমা (২৫) পিতা-মংহ্লাপ্রু মারমা, লক্ষ্মীরাম চাকমা (৩৬) পিতা-মেরাকাজি চাকমা ও মনাবো চাকমা (৩৮), পিতা- গোপাল চাকমা গুরুতর আহত হয়েছেন। সেটলারদের হামলার কারণে সমাবেশ পণ্ড হয়ে যায়।

পানছড়ি –

জেলার পানছড়ি উপজেলা সদর এলাকার নয়াবাজারে সমাবেশ করেছে তিন গণতান্ত্রিক সংগঠন। গণতান্ত্রিক যুব ফোরামের সাধারণ সম্পাদক রূপায়ন চাকমার সঞ্চালিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন ইউপিডিএফ-এর পানছড়ি উপজেলা সংগঠক প্রমোদ চাকমা, পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের সভাপতি রূপন ত্রিপুরা, সাংগঠনিক সম্পাদক জুয়েল চাকমা, গণতান্ত্রিক যুব ফোরামের সাবেক সাধারণ সম্পাদক বিবর্তন চাকমা। সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন গণতান্ত্রিক য্বুব ফোরমের সভাপতি সুসময় চাকমা। সমাবেশের  আগে বাজার এলাকায় মিছিল করা হয়।

সমাবেশ থেকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জারিকৃত অগণতান্ত্রিক ১১ নির্দেশনা তুলে নিয়ে জনগণের মত প্রকাশের স্বাধীনতাসহ মিছিল মিটিং-এর উপর হস্তক্ষেপ বন্ধ ও ষড়যন্ত্রমূলক সকল মিথ্যা মামলা তুলে নেওয়ার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানানো হয়।

মহালছড়ি-

মহালছড়ি উপজেলা সদরে সকাল ১১.৩০টার দিকে তিন সংগঠনের ব্যানারে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলার বাবুপাড়া এলাকা থেকে একটি মিছিল বের করে বাস স্টেশন ঘুরে ২৪ মাইল চৌমুহনীতে সমাবেশে মিলিত হয়। সমাবেশে গণতান্ত্রিক যুব ফোরামের উপজেলার সাধারণ সম্পাদক নিদর্শন খীসার সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন ইউপিডিএফ-এর প্রতিনিধি সর্বানন্দ চাকমা এবং গণতান্ত্রিক যুব ফোরামের মহালছড়ি উপজেলার সভাপতি হৃদয় বিন্দু চাকমা।

সমাবেশ থেকে বক্তারা মানবাধিকার লঙ্ঘন বন্ধসহ গণতান্ত্রিক অধিকার নিশ্চিত করতে সরকারে প্রতি আহ্বান জানান।

এছাড়া সমাবেশ থেকে ১১ নির্দেশনা জারির পর থেকে আটককৃত হিল উইমেন্স ফেডারেশন এর সভাপতি নিরূপা চাকমা, গণতান্ত্রিক যুব ফোরামের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক জিকো ত্রিপুরা, ইউপিডিএফ নেতা প্রতিম চাকমাসহ আটককৃত সকল নেতাকর্মীদের নিঃশর্ত মুক্তি এবং সকল মিথ্যা মামলা তুলে নেয়ার দাবি জানানো হয়।

লক্ষ্মীছড়ি –

লক্ষ্মীছড়ি সদরে উপজেলা হেডম্যান কার্যালয়ে সামনে লক্ষ্মীছড়ি সচেতন নাগরিক সমাজের ব্যানারে সমাবেশ করার কথা থাকলেও প্রশাসনের বাধার কারণে কার্যালয়ের ভিতরে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। আলোচনা সভায় বর্মাছড়ি ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান নীলবর্ণ চাকমার সভাপতিত্বে ও পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের কেন্দ্রীয় সদস্য হ্লাচিংমং মারমার সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন হিল উইমেন্স ফেডরেশন এর জেলা সদস্য ললিতা চাকমা, গণতান্ত্রিক যুব ফোরামের সংগঠক দয়া চাকমা, কৈলাশ মহাজন পাড়ার কার্বারী কুসুম তারা চাকমা, দুইল্যাতলী ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান মংক্যচিং চৌধুরী, বর্মাছড়ি ইউপির বর্তমান চেয়ারম্যান প্রতুল কান্তি চাকমা। সমাবেশে লক্ষ্মীছড়ি উপজেলার মুরুব্বীসহ ছাত্র-যুব-নারীরা অংশ গ্রহণ করেন।

আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, মানবাধিকার সনদ অনুযায়ী পাহাড়ি জাতিসত্তার নিজস্ব পরিচয় মুছে দিয়ে পঞ্চদশ সংশোধনীর মাধ্যমে সরকার চরম মানবাধিকার লঙ্ঘন করে চলেছে। শান্তিপূর্ণ মিছিল মিটিং-এর উপর হস্তক্ষেপ বন্ধ করে গণতান্ত্রিক অধিকার নিশ্চিতের জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানান বক্তারা।

বিবৃতি:

পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের জেলা সভাপতি রতন চাকমা, গণতান্ত্রিক যুব ফোরমের ভারপ্রাপ্ত আহ্বায়ক পলাশ চাকমা, হিল উইমেন্স ফেডারেশন খাগড়াছড়ি জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক মিনাকী চাকমা এক যুক্ত বিবৃতিতে খাগড়াছড়িতে শান্তিপূর্ণ সমাবেশে বাধাদান ও মানিকছড়িতে সেটলার হামলার ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন।

বিবৃতিতে তারা বলেন ১৯৪৮ সালে ১০ ডিসেম্বর জাতিসংঘ কর্তৃক সার্বজনীন মানবাধিকার সনদ ঘোষণা করা হয়। এই দিবসকে সামনে রেখে পাহাড়ের তিন গণসংগঠনের পক্ষ থেকে খাগড়াছড়ি জেলার রেডস্কোয়ারসহ বিভিন্ন উপজেলায় সমাবেশ করার জন্য সকল ধরনের সহযোগিতা কামনা করে জেলা প্রশাসনকে অবহিত করা হয়। সার্বজনীন মানবাধিকার সনদে ২০ নং ধারায় প্রত্যেকেরই শান্তিপূর্ণভাবে সম্মিলিত হবার অধিকারের কথা বলা  হলেও প্রশাসন শান্তিপূর্ণ সমাবেশে বাধা প্রদান করে মানবাধিকার লঙ্ঘনের দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে।

বিবৃতিতে তারা অবিলম্বে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় কর্তৃক জারিকৃত গণবিরোধী ‘১১দফা নির্দেশনা’ প্রত্যাহার, ‘ফিলিস্তিন সংহতি দিবসের’ সমাবেশ থেকে অন্যায়ভাবে গ্রেফতারকৃত হিল উইমেন্স ফেডারেশনের সভানেত্রী নিরূপা, সংগঠনের জেলা দপ্তর সম্পাদিকা দ্বিতীয়া চাকমাসহ বিভিন্ন সময়ে গ্রেফতারকৃত পিসিপি, ডিওয়াইএফ ও ইউপিডিএফ নেতা-কর্মীদের নিঃশর্ত মুক্তি,  বেপরোয়া ধরপাকড় ও রাত-বিরাতে হুমকিমূলক টহল বন্ধ করা, পার্বত্য চট্টগ্রামে মৌলিক অধিকার ফিরিয়ে দেয়া, ভূমি বেদখল ও পাহাড়িদের নিজ বাস্তুভিটা থেকে উচ্ছেদ বন্ধ করা এবং মানিকছড়ির সুদুরখীল সমাবেশে হামলাকারী সেটলারদের গ্রেপ্তার পূর্বক দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান।

বার্তা প্রেরক –

লালন চাকমা
সদস্য
গণতান্ত্রিক যুব ফোরাম
খাগড়াছড়ি জেলা শাখা।

খবরটি শেয়ার করুন

Post Comment