আদিবাসীদের মানবাধিকার ও উন্নয়ন বিষয়ক আঞ্চলিক সেমিনার অনুষ্ঠিত

স্টাফ রিপোর্ট –

Seminer

আজ সোমবার সকালে ইউপিআর -এর আয়োজনে রাঙ্গামাটি জেলা পরিষদ সম্মেলন কক্ষে ‘ইউপিআর-এ বাংলাদেশের অঙ্গীকার এবং আদিবাসীদের মানবাধিকার ও উন্নয়ন পার্বত্য চট্টগ্রাম প্রেক্ষিত’ শীর্ষক আঞ্চলিক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে চাকমা রাজা ব্যারিস্টার দেবাশীষ রায় বলেছেন, মানবাধিকার বিষয়ে কেউ কথা বললে মনে হয় যেন কেউ রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে কথা বলছে। রাষ্ট্র সংবিধানে যেসব সুযোগ-সুবিধা দেবে ঘোষণা করেছিলো মানবাধিকার কর্মীগণ সে সকল বিষয়েই কথা বলে। তারা নিপীড়িত নির্যাতিত জনগণের কথা বলে, তাই তাদেরকে দেশের শত্রু ভাবলে ভুল হবে, তারা দেশের স্বার্থের জন্য কথা বলে। এই স্বার্থ রক্ষায় আমাদের সকলকে একসাথে কাজ করতে হবে।

জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের সদস্য এবং রাঙ্গামাটি ইউপিআরের সভাপতি নিরূপা দেওয়ানের সভাপতিত্বে এবং সদস্য সচিব মো: আলীর পরিচালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন আদিবাসী ফোরাম রাঙ্গামাটি জেলা শাখার সভাপতি প্রকৃতি রঞ্জন চাকমা, রাঙ্গামাটি প্রেস ক্লাবের সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন রুবেল, সাবেক প্রেসক্লাব সভাপতি সুনীল কান্তি দে, রাঙ্গামাটি সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান রীতা চাকমা, কাপেং ফাউন্ডেশনের উপদেষ্টা মঙ্গল কুমার চাকমা। সেমিনারে পাওয়ার অব পয়েন্টে ইউপিআর নিয়ে ধারণাপত্র তুলে ধরেন তনয় দেওয়ান।

সেমিনারে চাকমা সার্কেল চিফ ব্যারিস্টার দেবাশীষ রায় আরো বলেন, বিশ্বের অন্য সকল দেশে মানবাধিকার কমিশন অনেক ক্ষমতা রাখে, তারা যে কোনও কিছু প্রমাণ হাতে নিয়ে উচ্চ আদালতে বিচার চাইতে পারে। তা ছাড়া তাদের স্বাধীনভাবে কাজ করার সুব্যবস্থা রয়েছে। কিন্তু বাংলাদেশের প্রেক্ষিতে দেখা যায় এখানের অবস্থা বেশি খারাপ, তেমন কোনও বিষয় নিয়ে কথা বলা যায় না।

পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তি চুক্তির প্রসঙ্গে তিনি বলেন, সরকার বলছে তারা অধিকাংশ চুক্তি পূরণ করেছে। আসলে দেখা যাচ্ছে যা করার কথা ছিলো তা না করে ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র কিছু চুক্তির অংশ পূরণ করে তাকে বার বার বলছে। বাকি অনেকাংশ এখনো পূরণের কোনও কথা তাদের কাছ থেকে পাওয়া যাচ্ছে না।

চুক্তির বিষয়ে তিনি আরো বলেন, চুক্তির বাস্তবায়নের সংখ্যা নিয়ে একেক পক্ষ একেক কথা বলেন। তিনি বলেন, আমি সেই তর্কে যাবো না। তবে চুক্তির মূল বিষয়টা বাস্তবায়ন হয়েছে কিনা সেটাই আমি জানতে চাইবো। যদি তা করা না হয়, তবে চুক্তির আসল উদ্দেশ্য ব্যাহত হবে।

সভাপতির বক্তব্যে নিরূপা দেওয়ান বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামের বর্তমান অবস্থা এমন হয়েছে যে, আমি চুক্তি বাস্তবায়ন নিয়ে কথা বলে মনে হয় তা যেনো সরকারের বিরুদ্ধে কথা বলছি, যেনো বাঙালিদের বিরুদ্ধে কথা বলছি। আসলে বিষয়টি তেমন নয়। সংবিধান স্বীকৃত একটি চুক্তি হয়েছে সেই চুক্তির বাস্তবায়ন নিয়ে সবাই কথা বলতে পারে। তবে একটি মহল তা পরিকল্পিতভাবে সেটাই প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছে।

খবরটি শেয়ার করুন

Post Comment