রুমায় দুর্বৃত্তদের গুলিতে ইউপি-র এক সদস্য গুলিবিদ্ধ

রুমা রিপোর্ট –

Shot

রুমা বাজারে গভীর রাতে দুবৃর্ত্তদের গুলিতে শৈহ্লাপ্রু মারমা (৪৮) নামে সেখানকার ইউনিয়ন পরিষদের এক সদস্য গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। তিনি রুমা সদর ইউনিয়নের ৮ নং ওয়ার্ডের দ্বিতীয় বার নির্বাচিত সদস্য ও বগামুগ পাড়ার স্থায়ী বাসিন্দা।

পরিবারের সদস্য ও থানা পুলিশ জানায় গত সোমবার (২৯ ফেব্রুয়ারি) গভীর রাতে কে বা কারা রুমা বাজার মারমা লাইনে ভাড়া বাসায় ঘুমন্ত অবস্থায় তাকে গুলি করে। এতে গুলির আঘাতে ইউপি সদস্য শৈহ্লাপ্রু মারমার ডান বাহুর চামড়া ছুঁলে যায়।

গুলিবিদ্ধ ইউপি সদস্য শৈহ্লাপ্রু মারমার ভাষ্য মতে, পূর্ব শত্রুতা ও আসন্ন ইউপি নির্বাচনে তার প্রার্থিতা বন্ধ রাখতে গুলি করা হয়েছে বলে তার ধারণা। এ সময় সন্দেহভাজন হিসেবে তিনি ৮নং ওয়ার্ডের ক্যম্বওয়া পাড়ার বাসিন্দা মৃত মুইবাইঅং মারমার ছেলে মংচিংসা মারমার (৪৫) নাম উল্লেখ করেন। অভিযোগ করে তিনি আরো জানান ইউপি সদস্য পদে প্রার্থী নিয়ে পূর্বেও বিরোধ ছিল এবং এর আগেও এক বার্মাইয়াকে ভাড়া করে তাকে মেরে ফেলতে চেয়েছিল। তবে অভিযুক্ত মংচিংসা মারমাকে খুঁজে না পাওয়ায় তার বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

এদিকে ইউপি সদস্যকে গুলি করে হত্যার চেষ্টার প্রতিবাদে জন সংহতি সমিতি ও তার অঙ্গ সংগঠনের উদ্যোগে গতকাল মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টায় রুমা সদরে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সভার আয়োজন করা হয়। এতে জন সংহতি সমিতি রুমার সভাপতি লুপ্রু মারমা, সহ-সভাপতি থোয়াইসানু মার্মা, সাধারণ সম্পাদক মংমং সিং মার্মা, কেন্দ্রীয় খিয়াং সমিতি সহ-সভাপতি মংশৈপ্রু খিয়াং ও পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের রুমা শাখা সভাপতি মংমিন মারমা বক্তব্য দেন।

অন্যদিকে সদর ইউনিয়ন পরিষদের আয়োজনে ইউপি সদস্যকে গুলি করে হত্যা চেষ্টার প্রতিবাদে ইউপি কার্যালয় প্রাঙ্গনে বিকেল ৫টায় মানব বন্ধন করেছে। এতে বক্তব্য দেন সদর ইউপি চেয়ারম্যান শৈমং মারমা, ২নং ওয়ার্ডের সদস্য পলাশ চৌধুরী ও ৬নং ওয়ার্ডের সদস্য মেমং মারমা প্রমুখ। হত্যা চেষ্টায় প্রকৃত আসামীদের গ্রেপ্তারের দাবি জানান বক্তারা।

রুমা থানা অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ শরিফুল ইসলাম শফিক জানান, গুলি করে হত্যা চেষ্টার ঘটনায় অজ্ঞাত আসামী করে থানায় মামলা রুজু করা হয়েছে। বিষয়টি তদন্তাধীন রয়েছে বলে জানান তিনি।

খবরটি শেয়ার করুন

Post Comment