অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারের দাবিতে রাঙ্গামাটিতে বিশাল মিছিল ও সমাবেশ

রাঙ্গামাটি রিপোর্ট –

DT 3

পার্বত্যাঞ্চল থেকে অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার ও অস্ত্রবাজ সন্ত্রাসীদের চাঁদাবাজি বন্ধের দাবিতে রাঙ্গামাটিতে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে হাজার হাজার নারী-পুরুষ। বৃহস্পতিবার সকাল ৯টা থেকে জেলার প্রায় ১০টি উপজেলা থেকে সাধারণ মানুষের ঢল নামে শহরের পৌরসভা প্রাঙ্গনে। বেলা বাড়ার সাথে সাথে জন সমুদ্রে পরিণত হয় পুরো পৌরসভা এলাকা।

সাড়ে ১০টায় শহরের পৌরসভা প্রাঙ্গন থেকে ‘‘অবৈধ অস্ত্রধারীদের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ সামাজিক প্রতিরোধ গড়ে তুলুন” এই স্লোগানকে সামনে রেখে ‘সচেতন পার্বত্য জনগণ’ -এর ব্যানারে এ বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করা হয়। বিক্ষোভ মিছিলে যোগ দেয় সাধারণ পাহাড়ি বাঙালি, ব্যবসায়ী, ঠিকাদার, শিক্ষার্থী, বিভিন্ন সংগঠনের নেতাকর্মীসহ স্থানীয় এলাকাবাসী। বিশাল এই মিছিলটি পৌরসভা প্রাঙ্গন থেকে শুরু হয়ে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সামনে নিউমার্কেট চত্বরে বিক্ষোভ সমাবেশে মিলিত হয়।

পাহাড়ে অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার ও চাদাঁবাজি বন্ধে সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে চিরুণী অভিযান শুরুর আহবান জানিয়েছে রাঙ্গামাটির সাধারণ মানুষ। পাহাড় থেকে অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার ও সন্ত্রাসীদের গ্রেফতারের দাবীতে রাঙ্গামাটি শহরের সকল দোকান পাট ও যানবাহন বন্ধ রেখে বৃহস্পতিবার (২৪ মার্চ) সকাল থেকে রাঙ্গামাটিতে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ থেকে এ দাবী জানানো হয়।

Demo

রাঙ্গামাটি জেলা হেডম্যান নেটওয়ার্কের সভাপতি চিংকিউ রোয়াজার সভাপতিত্বে আয়োজিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, সাবেক পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি দীপংকর তালুকদার, পার্বত্য জেলার মহিলা সংসদ সদস্য ও জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ফিরোজা বেগম চিনু, রাঙ্গামাটি জেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান নিখিল কুমার চাকমা, কাপ্তাই উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি অংসু সাইন চৌধুরী, বৃহত্তর বনরূপা ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির সাধারণ সম্পাদক তাপস দাস, জেলা অটোরিক্সা সমিতির সাধারণ সম্পাদক শহীদুল জামান রোমান, বাঙালি ঠিকাদার সমিতির সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন প্রমুখ।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, পার্বত্যাঞ্চল সশস্ত্র সন্ত্রাসীদের কাছে জিম্মি থাকতে চায় না। তাই আজ পার্বত্যাঞ্চলে বিভিন্ন স্থানে সাধারণ পাহাড়ি-বাঙালি নারী-পুরুষ রাস্তায় নেমে এসেছে। প্রতিরোধ গড়ে তুলেছে সশস্ত্র সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে। এই সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিতে হবে। বিশেষ অভিযান চালিয়ে তাদের কাছে থাকা অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার করতে হবে।

আওয়ামীলীগ ও সাধারণ সচেতন জনগনের ব্যানারে আয়োজিত এ সমাবেশে দোকান পাট ও যানবাহন বন্ধ করে দলে দলে পাহাড়ি বাঙালি সর্বস্তরের মানুষ অংশ নেয়। রাঙ্গামাটি পৌরসভা প্রাঙ্গন থেকে বিক্ষোভ মিছিল শুরু হয়ে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে গিয়ে এক বিশাল সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

DT 5

রাঙ্গামাটির বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা পাহাড়ি বাঙালির হাজারো সাধারণ মানুষ সমাবেশে যোগ দেয় ।

সমাবেশে সাবেক পার্বত্য মন্ত্রী দীপংকর তালুকদার বলেন, ইউপি নির্বাচনে অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীরা কোন সাধারণ প্রার্থীকে নির্বাচনে অংশ নিতে দিচ্ছে না। অস্ত্রের মুখে পাহাড়ে ভোটারদেরকে জিম্মি করে রেখেছে। অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার-সহ অস্ত্রধারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া না হলে আগামী দিনে পার্বত্য এলাকায় অস্থিরতা আরো প্রকট হবে বলে উল্লেখ করেন তিনি।

Demo 2

মহিলা সংসদ সদস্য ফিরোজা বেগম চিনু বলেন সারাদেশে অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার অভিযান চললেও পাহাড়ে সরকার অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারে ব্যবস্থা নিচ্ছে না । তিনি বলেন, জাতীয় সংসদেও এ বিষয়ে একাধিক বার তোলা হয়েছে । অথচ অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারের কোন লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না।  অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার সহ অস্ত্রধারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া না হলে জন অসন্তোষ আরো বাড়বে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

সমাবেশে অন্যান্য বক্তারা বলেন, এখনই সময় এসব অস্ত্রধারীদের প্রতিহত করার। কারণ পার্বত্যাঞ্চলের মানুষ শান্তি চায়। তাই পাহাড়ের মানুষ এখন আর চাঁদাবাজদের ভয় পায় না। আজ থেকে পাহাড়ের মানুষ চাঁদা নয়, দিবে উপযুক্ত জবাব।

অবিলম্বে পাহাড়ে দীর্ঘসময় ধরে চলমান অপহরণ, খুন, চাঁদাবাজিসহ অস্ত্রধারীদের সন্ত্রাসী তৎপরতা বন্ধ না হলে সাধারণ মানুষের এ আন্দোলন আগামীতে আরো কঠোর হবে বলে হুশিয়ারি দিয়েছেন বক্তারা।

খবরটি শেয়ার করুন

Post Comment