ফুল ভাসানোর মধ্য দিয়ে কাল শুরু হচ্ছে আদিবাসীদের বিজু

রাঙ্গামাটি রিপোর্ট –

Biju

কাপ্তাই হ্রদে ফুল ভাসানোর মধ্যে দিয়ে আগামীকাল মঙ্গলবার (১২ এপ্রিল) থেকে শুরু হচ্ছে পাহাড়ে বিজু উৎসব। এই উৎসবকে ঘিরে পাহাড় সেজেছে বৈচিত্র্যের ঐক্যতানে। প্রতিটি পরিবারের মাঝে যেন আনন্দের বারতা। সকল দুঃখ গ্লানি ও জ্বরা মুছে ফেলে পুরাতন বছরকে বিদায় ও নতুন বছরকে বরণ করতে পাহাড়ের মানুষ তৈরী হয়েছে। পুরাতন বছরকে বিদায় ও নতুন বছরকে বরণ উৎসব তিন দিনের হলেও পাহাড়ে প্রায় পক্ষকাল ব্যাপী চলে বিভিন্ন অনুষ্ঠান মালা। এই উৎসবের আনন্দকে উপভোগ করতে দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে মানুষ ছুটে এসেছে পাহাড়ি পল্লীগুলোতে। রাঙ্গামাটির হোটেল গুলোতে এখন পর্যটকের ভিড় লক্ষ্য করা গেছে।

পাহাড়ে আগামীকাল মঙ্গলবার থেকে শুরু হচ্ছে তিন দিনের বিজু উৎসব। ফুল বিজুর দিন ১২ এপ্রিল নদীতে ফুল ভাসানোর মধ্যে দিয়ে উৎসবের সূচনা হবে, ১৩ এপ্রিল ২য় দিন মূলবিজু এবং ১৪ এপ্রিল ৩য় দিন গোয্যাপোয্যা দিন নামে পালন করবে এখান ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র নৃ-জনগোষ্ঠীরা। চৈত্র সংক্রান্তি উপলক্ষে পাহাড়ের আদিবাসীরা মেতেছে বিজু, সাংগ্রাই বা বিষু উৎসবে। বিজুকে ঘিরে সপ্তাহ জুড়ে পাহাড়ে চলছে নানা আয়োজন।
চৈত্র সংক্রান্তির আগের দিনকে বলা হয় ফুল বিজু। উৎসবের প্রথম দিনে চাকমা, ত্রিপুরা ও মারমা সহ সকল ক্ষুদ্র নৃ গোষ্ঠীর জনগণ বন থেকে ফুল আর পাতা সংগ্রহ করে ঘর সাজায়।

আর চৈত্র সংক্রান্তির দিনকে বলা হয় মুল বিজু। ঘরে ঘরে রান্না হয় পাহাড়ের ঐতিহ্যবাহী খাবার পাজোন। তা দিয়ে দিন ভর চলে অতিথি আপ্যায়ন। এর সাথে থাকবে আদিবাসীদের নিজস্ব তৈরী মদ-সহ নানা পিঠা ও পায়েশ।

অন্যদিকে বাংলা বর্ষবরণকে ঘিরে চলছে নানা প্রস্তুতি। রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে নেয়া হয়েছে দিনব্যাপী বর্ষবরণের নানা আয়োজন। পাহাড়ের বিজু ও বাংলা বর্ষবরণের আয়োজন নিয়ে পার্বত্য জনপদে এখন উৎসবের আমেজ।

পাহাড়ের ক্ষুদ্র নৃ-তাত্তিক জনগোষ্ঠীর প্রধান সামাজিক উৎসব বিজুকে কেন্দ্র করে তিনদিনব্যাপী আনুষ্ঠানিক উৎসব থাকলেও এ উৎসব চলে সপ্তাহব্যাপী। আদিবাসী সংস্কৃতি মেলা, ঐতিহ্যবাহী আদিবাসী খেলাধূলা, নদীতে ফুল ভাসানো, বয়স্কদের স্নান করানো আর পানি খেলার মধ্যে দিয়ে চলবে এ উৎসব।

একদিকে বাংলা বর্ষবরণ অন্যদিকে পার্বত্য চট্টগ্রামে বসবাসরত ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠীর প্রধান ধর্মীয় উৎসব বিজু এ দুটো মিলে পাহাড়ি ও বাঙালিদের মিলন মেলায় পরিণত হয়।

বাংলা বর্ষবরণ ও বিজুর পক্ষকালব্যাপী পাহাড়ের এ দীর্ঘ আনন্দ আয়োজন সফল করতে রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে নেয়া হয়েছে ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা।

উৎসবের শেষ দিনে মারমা সম্প্রদায় উদযাপন করে ঐতিহ্যবাহী পানি খেলা উৎসব। এর মধ্যে দিয়ে শেষ হবে পাহাড়ের ঐতিহ্যবাহী এই বিজু উৎসব।

খবরটি শেয়ার করুন

Post Comment