স্বরাষ্ট্র মন্ত্রীর বক্তব্যের তীব্র নিন্দা

বৌদ্ধ ভিক্ষু হত্যার প্রতিবাদে বান্দরবান ও চট্টগ্রামে প্রতিবাদ ও মানববন্ধন

বান্দরবান রিপোর্ট –

Monk

বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়িতে বৌদ্ধ ভিক্ষুকে হত্যার প্রতিবাদে বান্দরবানে মানব বন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

রবিবার বিকেলে জেলা প্রেস ক্লাবের সামনে বৌদ্ধ ভিক্ষু পরিষদ এবং বৌদ্ধ ভিক্ষু ইয়ং এসোসিয়েশনের ব্যানারে অনুষ্ঠিত মানব বন্ধন কর্মসূচিতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রীর বক্তব্যের তীব্র নিন্দা জানিয়েছে সংগঠন দু’টির সদস্যরা।

উল্লেখ্য, শনিবার রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র শিক্ষক সমাবেশে যোগ দিয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেছিলেন, ‘বৌদ্ধ ভিক্ষু হত্যায় তার স্বজনরাই জড়িত থাকতে পারে।’

স্বরাষ্ট মন্ত্রীর বক্তব্যের প্রতিবাদে মহাথের উচহ্লা ভান্তে বলেন, ‘স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী কিভাবে বললেন ভিক্ষু হত্যায় স্বজনরা জড়িত? তীব্র জ্ঞানসম্পন্ন ব্যক্তি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রীর মাথা খারাপ হয়ে গেছে।’

তিনি আরো বলেন, ‘স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী মুখ ফসকে বলবেন কেন, তিনি কোনো ছোট লোক নাকি? তিনি দেশের একজন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী। তার প্রতিটি কথা সারা বিশ্ব শুনে। তাই আমরা চাই মুখ ফসকে যেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী কোনো কথা না বলেন। আমরা চাই তার প্রতিটি পদক্ষেপ হবে লোহার মতো শক্ত।’

ভিক্ষু হত্যার সুষ্ঠু তদন্তের দাবি করে মহাথের উচহ্লা ভান্তে বলেন, ‘আমরা চাই, প্রতিটি আইনী ব্যবস্থায় বিশ্ববাসী যেন বুঝতে পারে বাংলাদেশে বৌদ্ধ ধর্মালম্বীরা শান্তিতে আছে।’

সরকার ইচ্ছা করলে ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত করে আসামীদের বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করাতে পারবে বলে বিশ্বাস করেন রাজগুরু কেন্দ্রীয় বৌদ্ধ বিহারের এই অধ্যক্ষ।

উচহ্লা ভান্তে সবশেষে বলেন বলেন, ‘সারা বাংলাদেশে নরহত্যা হচ্ছে। খ্রিষ্টান ফাদারকে হত্যা করেছে, হিন্দু পুরোহিতকে মারছে, নিরীহ সাংবাদিকদের হত্যা করছে। এখন বৌদ্ধ জ্ঞানী ভিক্ষুকে হত্যা করা হলো। এগুলো কারা মারছে, আমরা জানি না। তাই আমরা নিরাপত্তা চাই, শান্তি চাই।’

চট্টগ্রামেও মানববন্ধন প্রতিবাদ সভায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বক্তব্যের তীব্র প্রতিবাদ:

Monk

এদিকে বৌদ্ধ ভিক্ষুকে হত্যার প্রতিবাদে আজ চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সামনেও মানব বন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

চট্টগ্রাম মহানগরীর বিভিন্ন সংগঠন ও বৌদ্ধ বিহারের ভিক্ষুদের অংশগ্রহণে অনুষ্ঠিত মানব বন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তারা বৌদ্ধ ভিক্ষু  উ. গাইন্দ্যার খুনিদের দ্রুত খুজে বের করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী করেন।

এছাড়া বক্তারা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল এর বক্তব্যের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে মন্ত্রীর বক্তব্যকে প্রত্যাহার করে বিবৃতির মাধ্যমে বৌদ্ধ জাতির কাছে ক্ষমা প্রার্থনার দাবী জানান।

বক্তারা মন্ত্রীর বক্তব্যের প্রতিবাদে বলেন, মন্ত্রী ঢাকায় বসে সুদূর বান্দরবানে নৃশংস হত্যাকাণ্ডের কোন প্রকার তদন্তহীন ভাবে নিশ্চিত মন্তব্য কীভাবে করেন। বৌদ্ধ ভিক্ষু হত্যার সাথে স্বজনরা জড়িত এ তথ্য মন্ত্রী ২৪ ঘন্টার কম সময়ের মধ্যে জানতে পারেন তাহলে হত্যাকাণ্ডের পূর্বে জানলেন না কেন।

বক্তারা সংশয় প্রকাশ করে বলেন, মন্ত্রীর এই ধরনের বক্তব্য এই নৃশংস হত্যাকান্ডের খুনিদের সুষ্ঠু বিচার বাধাগ্রস্ত করবে এবং প্রকৃত ঘটনা চাপা দেওয়া হবে।

বক্তারা আগামী বুদ্ধ পূর্ণিমার আগে বান্দরবানের বৌদ্ধ ভিক্ষু হত্যার কোন সুষ্ঠু তদন্তপূর্বক খুনিদের ধরতে না পারলে বুদ্ধ পূর্ণিমা উপলক্ষে ঢাকার বঙ্গ ভবনে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর বুদ্ধ পূর্ণিমার শুভেচ্ছা নিবেদন অনুষ্ঠান বর্জনের ঘোষনা দেন।

বিক্ষোভ, প্রতিবাদ ও মানব বন্ধনে অংশগ্রহণ করে সেইভ দ্যা বুড্ডিজম অব বাংলাদেশ, The Buddhist Community of Bangladesh, ত্রৈমাসিক শান্তিদূত, বাংলাদেশ বৌদ্ধ ফ্রন্ট, আদিবাসী কর্মজীবী ঐক্য পরিষদ, পার্বত্য ভিক্ষু সংঘ, বাংলাদেশ সংঘরাজ ভিক্ষু মহাসভা, বাংলাদেশ মারমা স্টুডেন্টস কাউন্সিল, একমুঠো বৌদ্ধ তরুণ, কালচারাল পার্ক, সিবলী সংঘ চট্টগ্রাম, জেলা বৌদ্ধ আইনজীবী পরিষদ ও ত্রিরত্ন সংঘ।

খবরটি শেয়ার করুন

Post Comment