রোয়ানুর আঘাতে কাপ্তাইতে বিদ্যুতের টাওয়ার বিধ্বস্ত, ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি

কাপ্তাই রিপোর্ট –

Tower

ঘুর্ণিঝড় রোয়ানুর আঘাতে শনিবার (২১ মে) সকালে কাপ্তাইতে ৩৩ হাজার কেভি ভোল্টের একটি টাওয়ার বিধ্বস্ত হয়। ঐ টাওয়ার বিধ্বস্ত হবার সাথে সাথে কাপ্তাই উপজেলাসহ সমগ্র রাঙ্গামাটি জেলায় বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। ঘূর্ণিঝড়ের সাথে প্রবল বৃষ্টি এবং দমকা হাওয়া বয়ে যায়। পাহাড়ি ঢলের তোড়ে ঘাগড়া সড়কে একটি বিকল্প সেতু বিধ্বস্ত হওয়ায় রাঙ্গামাটির সাথে তিন পার্বত্য জেলার সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় বলে জানা গেছে।

কাপ্তাই বিদ্যুৎ অফিসের আবাসিক প্রকৌশলী আশফাকুর রহমান মুজিব ঝূর্ণিঝড়ের কবলে পড়ে ৩৩ হাজার কেভি লাইনের টাওয়ার বিধ্বস্ত হবার কথা স্বীকার করেন। তিনি বলেন সকাল প্রায় ১১টার সময় টাওয়ারটি ধসে পড়ে। শুধু টাওয়ার নয় ঘূর্ণিঝড়ে অনেক গাছপালা এবং বৈদ্যুতিক খুঁটিও ধসে পড়ে। কাপ্তাই নৌবাহিনী এলাকায় একটি বৈদ্যুতিক খুঁটি ধসে পড়ায় সারাদিন নৌবাহিনী এলাকা বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন ছিল। এদিকে ধসে পড়া টাওয়ারটি দ্রুততম সময়ের মধ্যে মেরামত করার জন্য বিদ্যুৎ কর্মীরা সর্বোচ্চ প্রচেষ্টা চালায় বলে সংশ্লিষ্ট সুত্রে জানা গেছে।

ঘূর্ণি ঝড়ের প্রভাবে কাপ্তাই উপজেলার বরইছড়ি, শীলছড়ি, রাইখালী এবং রাজস্থলী উপজেলায়ও বিদ্যুৎ বিপর্যয় হয়। কাপ্তাই বিদ্যুৎ অফিসের আবাসিক প্রকৌশলী আশফাকুর রহমান মুজিব শনিবার রাত ১০টার সময় এই প্রতিনিধিকে বলেন, প্রচন্ড ঝড় বৃষ্টি ও দমকা হাওয়া উপেক্ষা করে বিদ্যুৎ কর্মীরা বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক করতে আপ্রাণ প্রচেষ্টা চালায়। বিদ্যুৎ কর্মীদের সহযোগিতায় কর্ণফুলী পেপার মিলসহ উপজেলার কয়েকটি এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ দেওয়া সম্ভব হয়। তবে শনিবার রাত সোয়া ১০টা পর্যন্ত বিদ্যুৎ বিভাগের কর্মীদের বৃষ্টিতে ভিজে কাজ করতে দেখা গেছে। এতে মধ্যরাতে আংশিকভাবে বিদ্যুৎ সরবরাহ করা সম্ভব হয়।

এদিকে প্রচন্ড বৃষ্টির কারণে সৃষ্ট পাহাড়ি ঢলের তোড়ে ঘাঘড়ায় ওয়াগ্গা ছড়ার উপর নির্মিত বিকল্প সেতু ভেসে গেছে। বিকল্প সেতু ভেঙ্গে যাওয়ায় বর্তমানে রাঙ্গামাটি-বান্দরবান এবং খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলার সাথে সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে। সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন থাকায় মানুষের দুর্ভোগ চরম পর্যায়ে পৌঁছেছে।

খবরটি শেয়ার করুন

Post Comment