মমতার অভিষেক অনুষ্ঠানে প্রতিনিধি পাঠাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী

অনলাইন ডেস্ক –

Hasina

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগামী ২৭ মে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মূখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দ্বিতীয় মেয়াদের অভিষেক অনুষ্ঠানে যেতে পারবেন না। জি-৭ শীর্ষ সম্মেলনের ‘আউটরিচ কর্মসূচি’তে অংশ নিতে ২৬ থেকে ২৯ মে তিনি জাপান সফরের কর্মসূচি রয়েছে। তবে মমতার অভিষেক অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ থেকে মন্ত্রী পর্যায়ের একজন প্রতিনিধি পাঠানোর কথা বিবেচনা করা হচ্ছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, মন্ত্রীসভার জ্যেষ্ঠ সদস্য হিসেবে শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু মমতার অভিষেক অনুষ্ঠানে যোগ দিতে পারেন। এ ছাড়া ভারতে বাংলাদেশের হাইকমিশনার সৈয়দ মোয়াজ্জেম আলীর ওই অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে।

গত ১৯ মে পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভা নির্বাচনে তৃণমূল কংগ্রেসের জয় নিশ্চিত হওয়ার পরপরই মমতাকে বাংলাদেশের জনগণ ও সরকারের পক্ষে অভিনন্দন জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী। মমতার নতুন মেয়াদে বাংলাদেশের সঙ্গে পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের সম্পর্ক আরো জোরদার হবে বলেও তিনি আশা প্রকাশ করেন।

মমতাও প্রতিবেশী দেশগুলোর সঙ্গে সম্পর্ক জোরদারে তাঁর রাজ্যের প্রতিবেশী দুই দেশ বাংলাদেশ ও ভুটানের প্রধানমন্ত্রীকে তাঁর অভিষেকে উপস্থিত থাকার আমন্ত্রণ জানান। ভুটানের প্রধানমন্ত্রী সে অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকার আশ্বাস দিলেও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পূর্বনির্ধারিত জাপান সফরের কারণে কলকাতায় যেতে পারছেন না।

এর আগে গত ২০১৪ সালের মে মাসে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির অভিষেক অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকার আমন্ত্রণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সাড়া দিতে পারেননি তাঁর পূর্বনির্ধারিত জাপান সফরসূচির কারণে। সে সময় তিনি জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীকে মোদির অভিষেক অনুষ্ঠানে পাঠিয়েছিলেন।

কূটনৈতিক সূত্রে জানা যায়, প্রধানমন্ত্রীর এবারের জাপান সফরটিও অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে এবার জি-৭ ‘আউটরিচ কর্মসূচি’তে বাংলাদেশসহ কয়েকটি দেশের সরকার প্রধানকে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন।

এ সফরে জাপান ও বাংলাদেশের মধ্যে দ্বি-পক্ষীয় বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে। এ ছাড়া বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের তৃতীয় টার্মিনাল নির্মাণের বিষয়ে জাপান ও বাংলাদেশের মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা হতে পারে।

জাপানের পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সৌদি বাদশাহর আমন্ত্রণে আগামী ৩ থেকে ৬ জুন সৌদি আরবে দ্বি-পক্ষীয় সফর করবেন। ওই সফরে কয়েকটি চুক্তি স্বাক্ষরের লক্ষ্যে দুই দেশ কাজ করছে।

আগামী ৫ জুন সেখানে সৌদি বাদশাহর সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর দ্বি-পক্ষীয় বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে। বৈঠকে সৌদিতে বাংলাদেশের শ্রমবাজার, বাংলাদেশে বিনিয়োগ বিশেষ গুরুত্ব পাবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

 

খবরটি শেয়ার করুন

Post Comment