পানছড়িতে পাহাড়ি ছাত্রীকে ধর্ষণের প্রতিবাদে খাগড়াছড়িতে বিক্ষোভ

২৮ মে ২০১৬

প্রেস বিজ্ঞপ্তি –

Rape

পানছড়িতে সেটলার বাঙালি কর্তৃক ৬ষ্ঠ শ্রেণীতে পড়ুয়া পাহাড়ি (মারমা) ছাত্রীকে ধর্ষণের প্রতিবাদে খাগড়াছড়ি শহরে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে হিল উইমেন্স ফেডারেশন, বৃহত্তর পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ (পিসিপি) ও বাংলাদেশ মারমা স্টুডেন্টস্ কাউন্সিল (বিএমএসসি)।

শনিবার (২৮ মে) সকাল সাড়ে ১০টায় খাগড়াছড়ি সরকারি কলেজ ক্যাম্পাস থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়। মিছিলটি চেঙ্গী স্কোয়ার হয়ে শাপলা চত্বর যাবার পথে মহাজন পাড়ায় পুলিশ বাধা দেয়ার চেষ্টা করে। পরে পুলিশের বাধা উপেক্ষা করে মিছিলটি শাপলা চত্বরের মুক্ত মঞ্চে গিয়ে প্রতিবাদ সমাবেশ করে।

সমাবেশে পিসিপি জেলা শাখার অর্থ সম্পাদক অমল ত্রিপুরার সঞ্চালনায় ও বিএমএসসি জেলা সভাপতি চাইলাউ মারমার সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন, হিল উইমেন্স ফেডারেশন জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক মেনাকি চাকমা, পাহাড়ি  ছাত্র পরিষদ জেলা সাংগঠনিক সম্পাদক তপন চাকমা, বিএমএসসি কলেজ শাখার সভাপতি চাথোয়াই মারমা, প্রগতিশীল মারমা ছাত্র সমাজ (প্রমাছাস) এর কলেজ সভাপতি উক্যচিং মারমা প্রমুখ।

Rape

সমাবেশে মেনাকি চাকমা বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামসহ সারা দেশে নারী নির্যাতনের ঘটনা বৃদ্ধি পেয়েছে। কুমিল্লা সেনানিবাসে সোহাগী জাহান তনুকে ধর্ষণ করে হত্যা করা হয়েছে। এখনো উক্ত ঘটনার বিচার হয়নি। পার্বত্য চট্টগ্রামে কল্পনা, তুমাচিং, সবিতাসহ অসংখ্য নারী অপহরণ-ধর্ষণের পর হত্যার শিকার  হয়েছে। এসব ঘটনায় জড়িত দুর্বৃত্তদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি ও বিচার হয়নি। উপরন্তু সরকার প্রশাসন এসব অপরাধীদের প্রত্যক্ষ-পরোক্ষভাবে আশ্রয়-প্রশ্রয় দিয়ে যাচ্ছে। তিনি  অবিলম্বে পানছড়িতে স্কুলছাত্রী ধর্ষণকারীকে গ্রেফতার ও সকল ধর্ষণ ও হত্যার ঘটনার বিচার দাবি করেন।

চাইলাউ মারমা বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামে সেটলার কর্তৃক পাহাড়ি নারী ধর্ষণের শিকার হলে চিকিৎসকদের জিম্মি করে নেগেটিভ রিপোর্ট দেয়া হয়। জুম্ম জাতির অধিকারের জন্য আমরা আঞ্চলিক সংগঠনের সাথে একযোগে আন্দোলন করে যাবো। পানছড়িতে মারমা সম্প্রদায়ের ৬ষ্ঠ শ্রেণীর স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণের তীব্র প্রতিবাদ জানাই। অবিলম্বে ধর্ষণকারী সেটলারকে গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেয়া হোক।

সমাবেশ বক্তারা পানছড়িতে মারমা সম্প্রদায়ের স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণের তীব্র নিন্দা জানিয়ে বলেন, ঘটনার ২৪ ঘন্টা অতিবাহিত হলেও পুলিশ এখনো ধর্ষণকারীকে গ্রেফতার করেনি। তারা অবিলম্বে স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণের সাথে জড়িত সেটলার দুর্বৃত্তকে গ্রেফতারপূর্বক ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান।

উল্লেখ্য, গত ২৭ মে ২০১৬, শুক্রবার খাগড়াছড়ি জেলাধীন পানছড়ি উপজেলার ৩নং পানছড়ি ইউনিয়নের যৌথ খামার পাড়ায় বাড়ির পার্শ্ববর্তী বাঁশ বাগান থেকে বাচ্চুরি (বাঁশ কোড়ল) সংগ্রহ করতে গিয়ে এক সেটলার কর্তৃক পানছড়ি বাজার মুখ উচ্চ বিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ শ্রেণীর ছাত্রী ধর্ষণের শিকার হয়। এ সময ভিকটিম ছাত্রীর সঙ্গী পালিয়ে বেঁচে যায় এবং ঘটনাটি সে গ্রামের লোকজনকে জানালে পরে লোকজন গিয়ে ওই ছাত্রীকে উদ্ধার করে। ধর্ষণের শিকার হওয়া ওই ছাত্রী বর্তমানে খাগড়াছড়ি সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

বার্তা প্রেরক –
রুপেশ চাকমা
দপ্তর সম্পাদক,
পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ
খাগড়াছড়ি জেলা শাখা।

খবরটি শেয়ার করুন

Post Comment