কাউখালীতে অপহৃত ২, ইউপিডিএফ জেএসএস পাল্টাপাল্টি অভিযোগ

কাউখালী রিপোর্ট –

Kidnap

কাউখালীর হারাঙ্গী রিফিউজি পাড়া থেকে জন সংহতি সমিতির (জেএসএস) পিতা-পুত্র দুই কর্মীকে অপহরণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। গত বুধবার ও বৃহস্পতিবার (২ ও ৩ জুন) পর্যাক্রমে সুগত চাকমা (৪৫), নলিন্দু কুমার চাকমাকে (৬৫) অপহরণের অভিযোগ করেছে জেএসএস কাউখালী উপজেলা শাখার সভাপতি সুভাষ চাকমা। জেএসএস এঘটনার জন্য ইউপিডিএফকে দায়ী করেছে। ইউপিডিএফ অপহরণের বিষয়টি অস্বীকার করেছে। কাউখালী থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল করিম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানিয়েছেন, এটি অপহরণ নয় অভিযুক্ত দুজন ইউপিডিএফ’র সাবেক কর্মী ছিল।

শুক্রবার (৩ জুন) বিকেল থেকে এ অপহরণের ঘটনা এলাকায় জানাজানি হতে থাকলে দুর্গম এলাকার ভোটারদের মধ্যে উদ্বেগ উৎকন্ঠা দেখা দিয়েছে।

কাউখালীর ঘাগড়া থেকে জেএসএস সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী শান্তিমনি চাকমা অভিযোগ করে বলেন, উপজেলার হারাঙ্গীপাড়া গ্রামের সুগত চাকমা আমার প্রতীক ঘোড়া মার্কার সমর্থনে কাজ করে আসছিলেন। ২ জুন দুপুর ২টায় ইউপিডিএফ’র সশস্ত্র সদস্যরা সুগত চাকমাকে তার বাড়ী থেকে অপহরণ করে নিয়ে যায়। আবার ৩ জুন সকাল ১০টায় তার বৃদ্ধ বাবা নলিন্দু কুমার চাকমাকে একই কায়দায় অপহরণ করে নিয়ে যায়।

জেএসএস কাউখালী উপজেলা শাখার সভাপতি সুভাষ চাকমা জানান, নির্বাচনের পূর্ব মুহূর্তে ইউপিডিএফ সাধারণ ভোটারদের মাঝে ভয়ভীতি সৃষ্টি করতে এমন ঘটনা ঘটিয়েছে।

অপরদিকে ইউপিডিএফ কাউখালী ইউনিটের সমন্বয়কারী রাহেল চাকমা দাবী করেন, তারা দুজন আমাদের কর্মী ছিল। তাদেরকে অপহরণ করা হয়নি। নির্বাচনে আমাদের পক্ষে কাজ করতে তারা দুজন স্বেচ্ছায় আমাদের সাথে যোগ দিয়েছে। জেএসএস নির্বাচনের ফলাফল তাদের নিয়ন্ত্রণে নিতে এ ধরনের অপপ্রচার চালাচ্ছে।

শুক্রবার রাত দশটার দিকে এ রির্পোট লেখার সময় কাউখালী থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল করিম জানিয়েছেন, অপহরণের বিষয়ে এখনো পর্যন্ত থানায় কেউ কোন অভিযোগ দেয়নি।

খবরটি শেয়ার করুন

Post Comment