বান্দরবানের থানছিতে ম্যালেরিয়ায় ৩ শিশুর মৃত্যু, আক্রান্ত শতাধিক

বান্দরবান রিপোর্ট –

Thanchi

বান্দরবানের থানছিতে ম্যালেরিয়ায় আক্রান্ত হয়ে তিন শিশুর মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া আক্রান্ত হয়েছে শতাধিক। ম্যালেরিয়ার পাশাপাশি ঐ এলাকায় নিউমোনিয়ারও প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কোনো চিকিৎসক না থাকায় পরিস্থিতি আরো খারাপ হওয়ার আশংকা করছেন স্থানীয়রা। স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও এলাকার লোকজন জানিয়েছেন সাংগু অববাহিকায় গত কয়েকদিন থেকে বৃষ্টিপাত বেড়ে যাওয়ায় সেখানে ম্যালেরিয়া রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। ম্যালেরিয়ায় আক্রান্ত হয়ে রোববার ছোট মদক ও রেমাক্রি ইউনিয়নের গ্রুপিং পাড়ায় ২ শিশুর মৃত্যু হয়েছে। এরা হলো গ্রুপিং পাড়ার মপুশে মারমা (৭) ও ছোট মদক এলাকার অংথুই মারমা (৬)।

অন্যদিকে বান্দরবান সদর হাসপাতালে থানছি থেকে চিকিৎসা নিতে এসে মারা গেছে অপর এক শিশু। রেমাক্রি, তিন্দু ইউনিয়ন ও থানছিতে ব্যাপকভাবে ম্যালেরিয়া রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। এসব এলাকার পাড়াগুলোতে আক্রান্তের সংখ্যা শতাধিক। বিশেষ করে শিশু ও বয়স্করা বেশি আক্রান্ত হচ্ছে ম্যালেরিয়া রোগে। অন্যদিকে নিউমোনিয়াও দেখা দিয়েছে। দুর্গম এলাকার শিশুরা নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হচ্ছে। রেমাক্রি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মালিম ত্রিপুরা জানান গত কয়েকদিন থেকে ম্যালেরিয়া রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে এলাকায়। আক্রান্ত হয়ে ইতিমধ্যে দুই শিশু মারা গেছে ও আক্রান্ত হয়েছে অনেকে। এলাকায় দুটি কমিউনিটি হাসপাতাল ও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কোনো চিকিৎসক না থাকায় আক্রান্ত রোগীরা চিকিৎসা নিতে পারছে না।

এছাড়া যোগাযোগ ব্যবস্থা ভাল না থাকায় এলাকার বাজারগুলোতে ঔষধের সংকট দেখা দিয়েছে। সরকারি হাসপাতালগুলোতে পর্যাপ্ত ঔষধ নাই। রেমাক্রির নব নির্বাচিত চেয়ারম্যান মুইশৈ থুই মারমা জানান বর্তমান সময়ে নদীতে পানি বেশি থাকায় নৌকা চলাচল বন্ধ রয়েছে। এতে করে অনেকটাই যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে তিন্দু ও রেমাক্রি ইউনিয়নের পাড়াগুলো।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, অংহ্লা খুমি পাড়া, মালি রাম চেয়ারম্যান পাড়া, পেনেদং পাড়া, গ্রুপিং পাড়া, অংসু খুমি পাড়া, রেমাক্রি বাজার এলাকা তিন্দু ও থানছি এলাকার অধিকাংশ পাড়ায় ম্যালেরিয়া রোগ ছড়িয়ে পড়েছে। এসব এলাকায় শতাধিক লোকজন ম্যালেরিয়ায় আক্রান্ত হয়েছে। বৃষ্টি অব্যাহত থাকায় রোগের সংক্রমণ বাড়ছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা।

সিভিল সার্জন ডা: উদয় শংকর চাকমা জানান, বৃষ্টিপাত বেড়ে যাওয়ায় এ সময়ে ম্যালেরিয়া রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়। রোগ নিয়ন্ত্রণে স্বাস্থ্য বিভাগ ও বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ব্র্যাক সর্বাত্মক ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। ম্যালেরিয়ায় আক্রান্ত হয়ে বান্দরবান সদর হাসপাতালে ১ শিশুর মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করলেও থানছির দুই শিশুর মৃত্যুর খবর এখনো পৌছায়নি বলে সিভিল সার্জন জানিয়েছেন। থানছি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসক না থাকার বিষয়টি স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও এলাকার লোকজন অভিযোগ করলেও সিভিল সার্জন জানান সেখানে একজন মেডিকেল অফিসার রয়েছেন। তবে তিন্দু ও রেমাক্রিতে দুটি কমিউনিটি হাসপাতাল দীর্ঘদিন থেকে বন্ধ থাকার কথা তিনি স্বীকার করেছেন।

খবরটি শেয়ার করুন

Post Comment