বুনো হাতীর আক্রমনে কাপ্তাইতে একজনের মৃত্যু

কাপ্তাই রিপোর্ট –

Death

কাপ্তাই উপজেলায় বুনো হাতীর আক্রমণে সনাতন চাকমা (দুখু) নামে এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। তার বয়স আনুমানিক ৪০ বছর হবে বলে জানা গেছে। সনাতন চাকমা কাপ্তাই ইউনিয়নের ব্যাঙছড়ি এলাকার আমতলী পাড়ার তুতুচিং চাকমার ছেলে। তদন্ত কর্মকর্তা কাপ্তাই থানার এস আই মো: আবু বক্কর জানান, ধারণা করা হচ্ছে গত রবিবার (১৯ জুন) রাত আনুমানিক ৯টার সময় সনাতন চাকমা বুনো হাতীর আক্রমণের শিকার হন।

স্থানীয়দের মতে সনাতন চাকমা রাতে পার্বত্য চট্টগ্রামের দক্ষিণ বন বিভাগের কামিলাছড়ি বিট এলাকায় পাহাড়ি পথ ধরে নিজের বাড়ির দিকে যাচ্ছিলেন। ঐ সময় রাস্তায় বুনো হাতীর দল বিচরণ করছিল। অন্ধকারে হাতীর অস্তিত্ব বুঝতে না পেরে সনাতন চাকমা হয়তো একেবাবে হাতীর কাছে গিয়ে পড়েছিল। এতে বুনো হাতী ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে এবং তাৎক্ষনিক সনাতন চাকমার বুকে, মাথায় এবং শরীরের অন্যান্য স্থানে পা দিয়ে আঘাত করে। তার গায়ের জামা কাপড় সুঁড় দিয়ে ছিঁড়ে ফেলে। ঘটনাস্থলেই সনাতনের মৃত্যু হয় বলে ধারণা করা হচ্ছে। তবে রাতে ঘটনাটি প্রকাশ পায়নি। সোমবার (২০ জুন) সকালে বিষয়টি সবার নজরে পড়ে এবং সর্বত্র জানাজানি হয়। সনাতনের লাশ যখন উদ্ধার করা হয় তখন তার শরীরে কোন জামা কাপড় ছিলনা। এ ব্যাপারে কাপ্তাই থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা হয় বলে জানা গেছে।

উল্লেখ্য, কাপ্তাইতে ইদানীং বুনো হাতীর বিচরণ আশঙ্কাজনক হারে বেড়ে গেছে। কাপ্তাই নৌ বাহিনী সড়ক, জীবতলী, নাবিক কলোনী, কাপ্তাই রাঙ্গামাটি নতুন সড়ক, ব্যাঙছড়ি, কাপ্তাই প্রজেক্ট ইত্যাদি এলাকায় বুনো হাতী দিনরাত বিচরণ করছে। হাতীর ভয়ে সন্ধ্যার পর নৌ বাহিনী সড়কে যানবাহন ও মানুষের চলাচল প্রায় বন্ধ হয়ে যায়।

বিএন স্কুলের প্রধান শিক্ষক মো: জাহাঙ্গীর আলম জানান, বুনো হাতী একাধিকবার তাঁর স্কুলে হামলা করেছে। স্কুলের বাউন্ডারি ভেঙ্গে দিয়েছে। এমনকি আবাসিক এলাকায়ও হাতীর আনাগোনা বেড়ে গেছে। এভাবে বুনো হাতীর উৎপাত বেড়ে গেলে এখানে বসবাস করা আরো বিপজ্জক হয়ে উঠবে বলেও তিনি আশঙ্কা প্রকাশ করেন। হাতী তাড়াতে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নিতে তিনি বন বিভাগের প্রতি অনুরোধ জানান।

খবরটি শেয়ার করুন

Post Comment