ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে বেরিয়ে যাচ্ছে ব্রিটেন

অনলাইন ডেস্ক –

EU

যুক্তরাজ্য আর ইউরোপীয় ইউনিয়নের সঙ্গে থাকছে না। ঐতিহাসিক গণভোটে দেশটির বেশিরভাগ জনগণ ‘বেক্সিটে’র পক্ষে রায় দিয়েছেন।

গেলো বৃহস্পতিবারে অনুষ্ঠিত গণভোটে ইউরোপীয় ইউনিয়ন ছাড়ার পক্ষে ভোট পড়েছে ৫২ শতাংশ। আর থাকার পক্ষে পড়েছে ৪৮ ভাগ ভোট।

এর ফলে ২৮ জাতির জোট ইউরোপীয় ইউনিয়নের সঙ্গে ৪৩ বছরের বন্ধন ছিন্ন হচ্ছে ব্রিটেনের। খবর বিবিসি, আলজাজিরা, ডেইলি মেইলের।

এই গণভোটকে ব্রিটেনের রাজনৈতিক ইতিহাসের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ও জটিল এক সিদ্ধান্ত বলে মনে করা হচ্ছে।

১৯৯২ সালের নির্বাচনের পর দেশটির ইতিহাসে যে কোনো সময়ের চেয়ে বেশিসংখ্যক মানুষ এই গণভোটে অংশ নিয়েছেন। ভোট পড়েছে প্রায় ৭২ দশমিক ২ শতাংশ।

প্রায় সাড়ে ৩ কোটি ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন। সর্বশেষ দেখা গেছে, ইইউ ত্যাগের (Leave) পক্ষে ১ কোটি ৭৪ লাখ ১০ হাজার ৭৪২ ভোট পড়েছে। অন্যদিকে ইইউতে থাকার (Remain) পক্ষে পড়েছে ১ কোটি ৬১ লাখ ৪১ হাজার ২৪১ ভোট।

নির্বাচনের দিন আন্তর্জাতিক লেনদেনে ইউরো এবং স্টার্লিংয়ের দর এ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ পর্যায়ে উঠেছে।

এর আগে গতকাল বৃহস্পতিবার স্থানীয় সময় সকাল ৭টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত দেশটিতে এই গণভোট অনুষ্ঠিত হয়। ভোট গণনা শেষে শুক্রবার ফলাফল আসতে থাকে।

ভোটে দেখা গেছে, লন্ডন এবং স্কটল্যান্ডবাসী ইইউতে থাকার পক্ষে কঠিন অবস্থান নিয়েছে। কিন্তু উত্তর ইংল্যান্ডের ভোটারদের কাছে এই পরিকল্পনা মার খেয়েছে।

ওয়েলস, ইংলিশ শায়ার এবং ইংল্যান্ডের বাইরের অংশের বড় সংখ্যক ভোটার বেক্সিটের পক্ষে রায় দিয়েছেন।

গণভোটে রায় পাওয়ার পর যুক্তরাজ্যের ইন্ডিপেন্ডেন্ট পার্টির নেতা নাইজেল ফ্যারেজ এটিকে যুক্তরাজ্যের ‘স্বাধীনতা দিবস’ হিসেবে উল্লেখ করেছেন।

যুক্তরাজ্যকে ৩৮২টি এলাকায় ভাগ করে ফলাফল গণনা চলছে। প্রধান ভোট গণনা কর্মকর্তা জেনি ওয়াটসন বলেছেন, ম্যানচেস্টার টাউন হলে চূড়ান্ত ফলাফল ঘোষণা করা হবে।

এই গণভোট গোটা যুক্তরাজ্যকে দু’ভাগে বিভক্ত করে দিয়েছে। ইইউতে থাকার পক্ষে ভোট দিতে প্রচারণায় নেতৃত্ব দেন প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরুন ও লেবার পার্টির নেতা জেরেমি করবিন। তাদের যুক্তি, এতে করে দেশটি আরও সমৃদ্ধ ও নিরাপদ থাকবে।

অন্যদিকে ইইউ থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পক্ষে প্রচারণায় নেতৃত্ব দেন সাবেক লন্ডন মেয়র ও বর্তমান এমপি বরিস জনসন। এই পক্ষের মত, নিজ দেশের নিয়ন্ত্রণ নিজেদের হাতে ফিরিয়ে আনার এটাই মোক্ষম সময়।

শুধু ব্রিটেন নয়, এই গণভোটের দিকে চেয়ে গোটা বিশ্ব। ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে ব্রিটেন বেরিয়ে এলে ইউরোর দাম অনেকটাই পড়ে যাবে, বাড়বে ডলারের দাম। ব্রিটেনের নিজস্ব মুদ্রা পাউন্ডের উপরেও এর প্রভাব পড়বে। এতে আন্তর্জাতিক বাণিজ্যের খোলনচে পাল্টে যাবে। ব্রিটেনের স্টক মার্কেট শুক্রবার সকাল থেকেই টালমাটাল। প্রভাব পড়েছে ইউরোপের বিভিন্ন দেশের স্টক মার্কেটসহ বিশ্ব বাজারেও।

খবরটি শেয়ার করুন

Post Comment