ইউরো ফুটবল

জার্মানিকে হারিয়ে স্বপ্নের ফাইনালে ফ্রান্স

স্পোর্টস ডেস্ক –

Football

১৯৮৪ সালে নিজেদের মাঠে ইউরো জিতেছিল ফ্রান্স। এরপর আর কোনো স্বাগতিক দেশের নিজেদের মাঠে ইউরো জেতার কীর্তি নেই। তার ওপর ফ্রান্সের প্রতিপক্ষ যখন জার্মানি, সেই কীর্তিটা আবার হবে কি না সেটা নিয়ে ছিল সংশয়। গত কয়েকটি বড় টুর্নামেন্টে স্বাগতিকদের বিদায় করে দেওয়াটা যে অভ্যাসই বানিয়ে ফেলেছে জার্মানি। কিন্তু আজ আর সেটি হলো না, জার্মানিকে ২-০ গোলে হারিয়ে ফ্রান্স উঠে গেল ইউরোর ফাইনালে। সেখানে তাদের প্রতিপক্ষ ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর পর্তুগাল।

এবারের আসরে ফ্রান্স-পর্তুগাল ফাইনাল উপভোগ করবেন ফুটবলপ্রেমীরা। জার্মানদের ২-০ গোলে হারিয়ে শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচে নাম লেখালো স্বাগতিক ফ্রান্স।

ফ্রেঞ্চদের হয়ে দু’টি গোলই আসে অ্যান্তোনি গ্রিজম্যানের পা থেকে। ছয় গোল করে সর্বোচ্চ গোলস্কোরের অ্যাওয়ার্ড গোল্ডেন বুটও নিশ্চিত তার।

রোববার (১০ জুলাই) তৃতীয় ইউরোপ শ্রেষ্ঠত্বের লক্ষ্যে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর পর্তুগালের মুখোমুখি হবেন দিদিয়ের দেশমসের শিষ্যরা। ফ্রান্সের ন্যাশনাল স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ সময় দিবাগত রাত ১টায় শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচটি শুরু হবে।

প্রথমার্ধের যোগ করা সময়ে ফ্রান্সের কর্ণার কিক বাস্তিয়ান শোয়েইনস্টাইগারের হাতে লাগা মাত্রই পেনাল্টির নির্দেশ দেন রেফারি। স্পট কিক থেকে স্বাগতিক দর্শকদের উল্লাসে মাতান গ্রিজম্যান।

চ্যাম্পিয়নস লিগ ফাইনালে পেনাল্টি মিস করেছিলেন গ্রিজমান। এবার আর সেই ভুল করেননি। গোল করেই এগিয়ে দিয়েছেন দলকে।

বিরতির পর ম্যাচে ফিরতে মরিয়া ওজিল-মুলার-ক্রুসদের চোখেমুখে যেন গোলের জন্য হাহাকারই ফুটে ওঠে। উল্টো ৭২ মিনিটে ভিজিটরদের দুঃস্বপ্ন উপহার দেন গ্রিজম্যান। পল পগবার ক্রস নয়্যার ফিরিয়ে দিলেও ফিরতি বলটি জালে পাঠিয়ে টুর্নামেন্টে নিজের ষষ্ঠ গোল আদার করে নেন ২৫ বছর বয়সী এ ফরোয়ার্ড।

দুই গোলে পিছিয়ে থেকে জার্মানদের সমতায় ফেরার সমীকরণটা কঠিনই হয়ে পড়ে। বল দখলের লড়াই সহ আক্রমণাত্মক ফুটবলে এগিয়ে থেকেও নির্ধারিত সময় জুড়ে গোলবঞ্চিত থাকেন জোয়াকিম লোর শিষ্যরা। শেষ পর্যন্ত সেমি থেকে বিদায় নিয়েই বাড়ি ফিরতে হলো তিনবারের ইউরো চ্যাম্পিয়নদের।

রেফারি শেষ বাঁশি বাজানোর পর পরই জয়োৎসবে মাতেন পগবা-মাতুইদি-গ্রিজম্যানরা। শিরোপা থেকে আর মাত্র একটি জয় দূরে ৯৮’র বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা।

খবরটি শেয়ার করুন

Post Comment