রাঙ্গামাটিতে জেলা আইন শৃঙ্খলা কমিটির মাসিক সভা অনুষ্ঠিত

রাঙ্গামাটি রিপোর্ট –

Meeting

পার্বত্য অঞ্চলে অপহরণ, চাঁদাবাজি ও হানাহানি কোন ভাবেই কাম্য নয় বলে মন্তব্য করেছেন রাঙ্গামাটির সংসদ সদস্য ঊষাতন তালুকদার। তিনি বলেন, বান্দরবানে অপহরণ, বাঘাইছড়িতে অপহরণ ও বেশ কয়েকটি স্থানে চাঁদাবাজি আমাদের কারো কাছে কাম্য নয়। যারা এসব করছে তাদের সঠিক পথে ফিরে আসার আহবান জানান। তিনি বলেন, বাঘাইছড়িতে অপহরণ হয়েছে এই ঘটনায় প্রধান আসামী করা হয়েছে বাঘাইছড়ি উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানকে, এটা কোন ধরনের ট্রেডিশন আমি বুঝি না।

বুধবার (১৩ জুলাই) রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসনের আইন শৃঙ্খলা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে ঊষাতন তালুকদার এ কথা বলেন।

রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসক মো: সামসুল আরেফিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আইন শৃঙ্খলা সভায় রাঙ্গামাটি পুলিশ সুপার সাঈদ তারিকুল হাসান, রাঙ্গামাটি পৌরসভার মেয়র আকবর হোসেন চৌধুরী, রাঙ্গামাটি জেলা পরিষদ সদস্য অমিত চাকমা রাজু, রাঙ্গামাটি সিভিল সার্জন ডা: স্নেহ কান্তি চাকমা, রাঙ্গামাটি সদর সার্কেল এ,এস,পি চিত্ত রঞ্জন পাল।

বক্তারা সাম্প্রতিক সময়ে সারাদেশে জঙ্গী হামলার ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন, সারা দেশে যেভাবে জঙ্গী হামলা শুরু হয়েছে তা মোকাবেলায় আমাদের সকলকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। পার্বত্য অঞ্চল হচ্ছে জঙ্গীদের লুকিয়ে থাকার একটি বড়ো আশ্রয়স্থল, তাই আমাদের প্রতিটি উপজেলায় ও প্রতিটি ইউনিয়নে জঙ্গী প্রতিরোধ কমিটি গড়ে তুলতে হবে।

জেলা প্রশাসক মো: সামসুল আরেফিন বলেন, প্রতিটি ইউনিয়ন ও উপজেলায় জঙ্গী প্রতিরোধ কমিটি গড়ে তুলতে হবে। এজন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানদের সমন্বয় করে প্রতিরোধ কমিটি গড়ে তুলতে হবে।

তিনি বলেন, প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কোন ছাত্র ১০ দিনের বেশী অনুপস্থিত থাকলে তার খোঁজ নিতে হবে। এছাড়াও সমাজের প্রতিটি মানুষ এই বিষয়ে একটু সচেতন হতে হবে। পাড়ায় পাড়ায়, মহল্লায় মহল্লায় যদি এ রকম কোন সন্দেহজনক কার্যক্রম চোখে পড়ে সাথে সাথে প্রশাসনকে অবহিত করার জন্য সকলের প্রতি অনুরোধ জানান তিনি।

খবরটি শেয়ার করুন

Post Comment