জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ উপলক্ষে রাঙ্গামাটিতে র‌্যালি ও আলোচনা সভা

রাঙ্গামাটি রিপোর্ট –

Fish

সংসদ সদস্য ফিরোজা বেগম চিনু বলেছেন, বর্তমান সরকারের প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার আন্তরিকতায় পার্বত্য অঞ্চলের জেলে ও মৎস্য চাষীদের ভাগ্য উন্নয়নে ক্রিক প্রকল্প প্রদান করা হয়েছে, কিন্তু এই প্রকল্প বন্ধ করার জন্য কিছু মহল ষড়যন্ত্র চালাচ্ছে। তিনি পার্বত্য অঞ্চলের জেলে ও মৎস্য চাষীদের ভাগ্য উন্নয়নে বাধাগ্রস্ত না করে তাদের সহযোগিতায় সকলকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, রাঙ্গামাটি হ্রদে মৎস্য শিকার বন্ধ থাকাকালীন এ সরকারই জেলেদের ভিজিএফ কার্ড প্রদানের মাধ্যমে খাদ্যশষ্য প্রদান করেছে যা অন্য কোন সরকার করেনি। জেলেদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, রাঙ্গামাটি হ্রদে মাছ শিকার বন্ধ থাকাকালীন কোন ভাবেই যাতে কোন জেলে মাছ শিকার না করে, করলে নিজেদেরই ক্ষতি হবে। বৃহত্তম এই রাঙ্গামাটি হ্রদে সুপরিকল্পিতভাবে মৎস্য উৎপাদন বৃদ্ধি করে জেলার জন সাধারণের আমিষের চাহিদা মিটিয়ে বাইরের জেলায়ও রপ্তানি করে অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী হওয়া যায়। এতে রাজস্ব আয়ও বৃদ্ধি পাবে বলে মত প্রকাশ করেন তিনি।

বুধবার (২০ জুলাই) জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ ২০১৬ উপলক্ষে রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ ও জেলা মৎস্য বিভাগ (বিএফডিসি) এবং বিএফআরআই -এর আয়োজনে জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে ফিরোজা বেগম চিনু একথা বলেন।

রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের সদস্য ও মৎস্য বিভাগের আহ্বায়ক সাধন মনি চাকমা, পরিষদের মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা এসএম জাকির হোসেন, অতিরিক্ত জেলা প্রসাশক (সার্বিক) তানভীর আজম ছিদ্দিকী বক্তব্য দেন। স্বাগত বক্তব্য দেন জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো: আবদুর রহমান।

সভাপতির বক্তব্যে রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমা বলেন, এশিয়ার বৃহত্তম কৃত্রিম হ্রদ এই রাঙ্গামাটি হ্রদ। এই হ্রদকে ঘিরে এখানকার মানুষের অনেক স্বপ্ন রয়েছে। এটিকে সঠিকভাবে সংরক্ষণ করে মৎস্য উৎপাদনের পাশাপাশি পর্যটন খাতেও ব্যবহার করে অর্থনৈতিকভাবে লাভবান হওয়া সম্ভব। তাই এই হ্রদকে দূষণ ও দখলের হাত থেকে রক্ষা করতে তিনি সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।

আলোচনা সভার আগে মৎস্য সপ্তাহ উপলক্ষে “জল আছে যেখানে মাছ চাষ সেখানে” এই স্লোগান নিয়ে রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ প্রাঙ্গণ হতে এক বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের হয়। র‌্যালিটি শহরের বিভিন্ন সড়ক ঘুরে শহরের রাজবাড়ী নৌযান ঘাটে এসে শেষ হয়। পরে হ্রদে বিভিন্ন কার্প জাতীয় মাছের পোনা অবমুক্ত করেন অতিথিরা।

খবরটি শেয়ার করুন

Post Comment