অপহরণ মামলায় উপজেলা চেয়ারম্যানসহ ৪জন জেল হাজতে

রাঙ্গামাটি রিপোর্ট –

arrest

সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত সার্জেন্ট মুকুল কান্তি চাকমা অপহরণ মামলায় রাঙ্গামাটির বাঘাইছড়ি উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বড় ঋষি চাকমাসহ চার জনকে কারাগারে প্রেরণের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

মঙ্গলবার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ রোকন উদ্দিন কবির-এর আদালতে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানসহ ৪জন হাজির হয়ে জামিন আবেদন জানালে আদালত তাদের আবেদন না মঞ্জুর করে কারাগারে প্রেরণের জন্য এই নির্দেশ প্রদান করেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, গত ৩০ মে রাঙ্গামাটি জেলার বাঘাইছড়ি উপজেলাধীন মারিশ্যা এলাকার বাসিন্দা সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত সার্জেন্ট মুকুল কান্তি চাকমা লাইল্যাঘোনা গ্রামে বেড়াতে গেলে তাকে একদল দুর্বৃত্ত অপহরণ করে নিয়ে যায়। পরবর্তীতে তার কোন সন্ধান না পাওয়ায় অপহৃতের বড় মেয়ে নমিশা চাকমা বাদী হয়ে গত ৭ জুলাই বাঘাইছড়ি থানায় একটি অপহরণ মামলা দায়ের করেন।

এতে মামলায় বাঘাইছড়ি উপজেলা চেয়ারম্যান ও পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির বাঘাইছড়ি উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক বড় ঋষি চাকমা, পার্বত্য চট্টগ্রাম জন সংহতি সমিতির বাঘাইছড়ি উপজেলা শাখার সভাপতি প্রভাত কুমার চাকমা (কাকলী বাবু), সহ-সাধারণ সম্পাদক ত্রিদিব চাকমা (দ্বীপ বাবু) ও বাঘাইছড়ি ইউপি’র ওয়ার্ড মেম্বার অজয় চাকমাসহ ৯জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়।

মামলা দায়ের করার পর বড় ঋষি চাকমাসহ অন্যান্যরা উচ্চ আদালত থেকে চার সপ্তাহের জন্য জামিন নেন। মঙ্গলবার রাঙ্গামাটি জেলা ও দায়রা জজ আদালতে হাজির হয়ে জামিনের আবেদন জানালে আদালত তাদের জামিন না মঞ্জুর করে কারাগারে প্রেরণের নির্দেশ দেন।

পুলিশের রাঙ্গামাটি সদর সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার চিত্তরঞ্জন পাল জানান, সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত সার্জেন্ট মুকুল কান্তি চাকমার অপহরণ মামলায় এক নম্বর আসামী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বড় ঋষি চাকমাসহ অন্যান্যরা মঙ্গলবার রাঙ্গামাটির আদালতে আত্মসমর্পন করে জামিন নিতে আসলে বিজ্ঞ আদালত তাদের জামিন না মঞ্জুর করে কারাগারে প্রেরণের নির্দেশ দেন।

তিনি আরও জানান, উপজেলা পরিষদ বড় ঋষি চাকমার বিরুদ্ধে ২০১২ সালে খাগড়াছড়ির দীঘিনালা থানায় দায়ের করা একটি হত্যা মামলা রয়েছে, এ  মামলায়ও তার বিরুদ্ধে ওয়ারেন্ট রয়েছে।

 

খবরটি শেয়ার করুন

Post Comment