খাগড়াছড়ির মাটিরাঙ্গায় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত-৫, আহত-৪০

খাগড়াছড়ি রিপোর্ট –

bus

খাগড়াছড়ি জেলার মাটিরাঙ্গায় সাপমারা এলাকায় মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় এক শিশুসহ নিহত হয়েছে পাঁচজন। এ ঘটনায় আহত হয়েছে নারী-শিশু ও বৃদ্ধসহ ৪০ জন।

বৃহস্পতিবার বেলা ১টার দিকে খাগড়াছড়ি থেকে চট্টগ্রাম অভিমুখী যাত্রীবাহী একটি বাস (চট্টমেট্টো-জ-১১-০০২৪) মাটিরাঙ্গা উপজেলাধীন সাপমারা এলাকায় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে প্রায় একশ’ ৫০ ফুট খাদে পড়ে গেলে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, খাগড়াছড়ি থেকে চট্টগ্রামগামী সপ্তপর্ণী নামক লোকাল পরিবহন একটি বাস সাপমারা নামক স্থানে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে পাহাড়ি খাদে পড়ে গেলে এ দুর্ঘটনা ঘটে। স্থানীয়দের সহযোগিতায় সেনাবাহিনী, পুলিশ ও ফায়ার ব্রিগেড কর্মীরা আহতদের উদ্ধার করে খাগড়াছড়ি জেলা সদর হাসপাতাল ও মাটিরাঙ্গা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান।

নিহতদের মধ্যে দু’জনের পরিচয় পাওয়া গেছে। এদের একজন মাটিরাঙ্গা উপজেলার জালিয়াপাড়ার বাসিন্দা মুসলেহউদ্দীন (৬০)। ব্যাঙমারার অরবিন চাকমার ছেলে হৃদ্ধি চাকমা এবং অপরজন গাড়ির হেলপারসহ তিন জনের নাম জানা যায়নি।

এদিকে স্থানীয়দের সহযোগিতায় সেনাবাহিনী, পুলিশ ও ফায়ার ব্রিগেড কর্মীরা আহতদের উদ্ধার করে খাগড়াছড়ি জেলা সদর হাসপাতাল ও মাটিরাঙ্গা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। এসময় দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে উদ্ধার কাজে অংশ নেন খাগড়াছড়ি জেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য ওয়াদুদ ভুইয়া।

আহতদের মধ্যে খাগড়াছড়ি জেলা সদর হাসপাতালে ১৪জন ও মাটিরাঙ্গা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ১৭জন ভর্তি। বাকী আহতদের স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা প্রদান করা হয়েছে বলে জানা গেছে। সদর হাসপাতালে ভর্তি ১৪ জনের মধ্যে গুরুতর আহত ৪জনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেলে প্রেরণ করা হয়েছে।

শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত সেনাবাহিনী, পুলিশ ও ফায়ার ব্রিগেড কর্মীরা আহতদের উদ্ধারে জোর তৎপরতা চালাচ্ছেন বলে নিশ্চিত করেছেন খাগড়াছড়ির পুলিশ সুপার মো: মজিদ আলী বিপিএম। অপরদিকে এই দুর্ঘটনায় নিহিত ও আহতদের ক্ষতি পূরণ দিতে প্রশাসনের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন উদ্ধার কর্মীরা।

এদিকে ঘটনার পরপরই দুর্ঘটনাস্থলে ছুটে যান স্থানীয় এমপি কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা, ডিসি মোহাম্মদ ওয়াহিদুজ্জামান, খাগড়াছড়ির পুলিশ সুপার মো: মজিদ আলী বিপিএম, মাটিরাঙ্গা জোন অধিনায়ক লে কর্ণেল মো: জিল্লুর রহমান পিএসসি, জি, মাটিরাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিএম মশিউর রহমান ও সহকারী পুলিশ সুপার (রামগড় সার্কেল) কাজী মো: হুমায়ুন রশীদ ঘটনাস্থলে ছুটে যান। এসময় হাসপাতালে এক হৃদয়-বিদারী দৃশ্যের সৃষ্টি হয়। আহতদের চিকিৎসা দিতে হাসপাতালের চিকিৎসকদের হিমশিম খেতে হয়।

খবরটি শেয়ার করুন

Post Comment