খাগড়াছড়িতে নেতাকর্মীদের মুক্তির দাবিতে পিসিপি’র কর্মসূচি পালিত

খাগড়াছড়ি রিপোর্ট –

÷.‰Îe¸—ã×V5g)•áØËÛCC¬kݓµÿñv7ÿU«ý!Ý%ù~“kéõý»¦Ë«{Ã]¥%Û1ò[è׿ôvU²í–ÿ8ƒoHÌÊn]–S‹ö¬Ú™}yRXö5ԟZ¶¾«lþÞ5ßÎ>ÔGôf[ âÓºdag9pBe"x#¨~5¦Ìü]}R˧±Ö0ÒƊnÌƀr]’Ë)õ«»íñlZ= a‹PÆõ®¸ªl]«k©ªÌzÞÁMß÷!ìûMvú{þŸ¥éªø}V®ÕqèÉ>µÕÖÐj½›º–ïÄ>­¿A¿ŸGé?èX‰ÐO]ô1˜/Êû5žö†úMhÈs«ªÿ_m¿gÇwóÌ¿íéhý«ZFR4v–ÞKÀ†H€kQ½Öÿ¼åºÇed²ªó¦ÌŠKí¼Üûn’Ëý¬e{‘ý"–9¿¹úEuö[cñYéºëè¸>êIþfKµölß]~¯óˆ§¤æô¶u.›ÔN;[S"àâ˚úìÚÇTÆýüçóžµjÅ4ôü¼¬1–TӆÖ[P«Ô±ÏkìÈõ*´5¯ô½ÿ ô½ïg󾺝ußOí%$GÓ¡¿œñ/îÅǹû:øÕ9Φ¦úN­¿@¸¯Ù»èQ¿sÿôZu×åÖÜ«=Jߺ6Šß£¶Þ×þkßê©f¾Š.¾ÆVÌk/«ké“['|:ÜV¹£Ø÷3ú3›³ù¿ÑþŽ´ì‡QCÞÂÚ,v¥þÂHwѳoøD,YkûS#ê"Uþ/ø©©éyÞ­xÿ³²(unÊsÚæH¿ôÍoïS_è:þ¶lUHÇ¥ïÜỀÐÝ6ÿQ¿OÛûë[êÓþÈÎö±Ö½ÐA 1”6·[gø7:Ëþƒ7ÿ-euœ›²:…ŽsG% qí»ý¥8Ç;7d/ñXåÆ`b+I_ÓÿB[ÇےXàÿ³ˆžÎ&tþOÐV?Xû1¿hˆq™1 ;%º~æ+UªÅ³çZÀ]k¯u°Ö6°E8ᖻùh¶ÿoæ-~£Òú0èøïmªŠ˜ç‡4êöþfý]¿Õþu0H’@ý-t€}uú<X°q¡*Æ¿§­ôXÐ^÷î-àmd¹¿Ër¥›e¾¶¡c¤æ³ù_I^¤ã».¶–ˆ€Lû‡»kvû}FîO2¦3à$îîÙÔs1°^S¾Ê ØßÒ8ƒù®÷ÕµSgÖ,öØÊò Wn{DdãTóÃè¿Óßß÷–nv]-Á§©2çÝpiÞï¢5ÍO^EN¾ª=€I$-ÝgÑÛüŸÜ@ÈvT`_'ÿÑÇê0sŽPWÔ7äØ^×zF¡ÿ_k2ÚÏôyJx¶m¯!ÍÚ멪˩Þ%…Ìhõ«{e»™e-gý´«Îü¶/õù´L §¨VßøÌ?Óè ƒ]VK†úâ9¬‚,úô¹éÀÔ£:ºÐåýUJ<Qœ,đé—ýýW+ÞÜ'¹µØÂ1Çé™ Ý¶ŸéُþšŸêzþjßOôkO5øu‹œÐð#fCß~ݾÿÒ!tüüZ‰õ÷»vÿ ‹(‘Ÿ›o·{ÿÑé][옷ôßµÜ]dÔç »…No¹¬ß¿ÔþwÝî¯ÙüÚ./Q»¦Ýsr¬v65ߢÅk}†ãO¨çúŸOg¿Ñ¶—«¿S)ÅnV}™¸ŒÊ;ÏlÖÝö¿B^ǹõ~—÷)ÿ·0ðªÇêÙ9©£ E˜í‡1æ× G¥?¥¦ßL2ïÑÿ…²ÏI8c™1ž=(šþêӚã†cg„§éèóXxBÜçÛknS¬¯×Wê6E2r­ßµÿѱñ¨U¾®gu,>£nUL²ÌRéÍhxh50ú¶=Ôîÿ´µoû;™üßÐGÆã'ªŽ )ÊÈú²ì²g¨òmyû;,}nõë­ÙoüßÓú_¤[§¯Ti¾¼~™’Øm©´Rß_/Ôk·ý«}u¹õXû_w¦›–fRˆ½4?GÁ±ŽÂW¨3³§GœÆê¹"ϴՌ2/ꌱŒ%À™kÈÜúìsûì¥õ©eUÔñYö‰h§Úê˜^Æ4ÛGªÙ®»j¶§×ö}ÿCôˆyÝmùyÕÑÒ1ßN=9?¦†ÐýŒ×ÓÓµöî»oø/[ÓRêùùYlaÍp¬bƒ]˜Œ±Ðëší·Y†ÖµìÛgçþ“gøJÿœMõÄȍÊ_áiÿJL’˜Ù‘éþý˞•éâaõ×þ‹&Ë 8®ŠÞvŸæþ“Ý_§³þÛ@{ßÔ)8`Ye­mŽ¡•¹Å„5¾³ØêI~çXÆ{ûèöuŒ®¦Ì:2±jÉeM,ª½7µŽÛ»o¥ìú/ðªvô~£ƒ’Á®úJ¬/‚cm»ë©ÕÛc?™§ü%j0jøë‹Sô]Âd𚌀ý­žŸ^6ÅÃêuՐçTÝÛlmâß[y!ì}¾©þvÒãÿ6«æàd»#&ºßvç¾ÚáÍ8õïÉûÝöæSµ­¨Ú­ÿ ê)ú5ôî¡ö[A̺§0ÓQ.­›žß^Ï]Öífêþ‡º¤Q‘Šqó2ÝA³)¡Â‹Zè ¸0ÕF+,~ÍÌ¡ƒw¡üݕÿ]M(˜Æ2†£!º>_OøëHÊ$QÄ8}CIw©W҃¢õ|:úu]5áÂ̋¬¾% n~Ú!¿¤w;÷6º_­™¸ÕtÚñ‹ÀmÍ,­µûà7O£^í¬cÐÆoH½fÜk®ÖàØAËHumô9ÛZåÐæcUVM8ά²«@Í0æ“d;&msCŸ_ý£Úú?áýE"<G¬µEq˜Žƒ³Êtf7'«¶Ë‰eT2­×]µ`­®ÿ„§Rí:0é4}]¸å?Ùf» µ<Kà—=¾–ýߤnÿg¥_õ×9ƒÓºRÂnW­·Ñ¦’àÙØÜ«Ÿ~×¹žßI”~ßæ(º±cý*ß½öº†îqÛôßû¿œ¡ÏÞl£w¤Ë’æ·ôcþ§r¹…gÛj®Ìw=ÂÆ4VâZòZæŸÑ—2ÍÍSñ.m)ÿÒÂƸQ–ëZÝΦçÓÆç±ßɵ…Õ¿úëWþhY_KQ³ ?3~4û¬v>ïÑ[ûkkÙWó”3þ¹jÀ{ý<Û”÷ÈøÿTºO¬–áýQΦ¶›21‹¤úl˚}g}/ÑãÞç;ÞßNÏVºÂ'DÑ ìuú„ÌŽãOð^'*ücs^dÙSm„‘-ö¶Œ¬¡­ôªÙýµ_*Êòéì5½Ält©öë?šˆ:6uvÜhh}T8´XH‡@Ÿd}-ʵtېæÓC_eÖNÊÚ$“?ë½I8iiŠéïúÖN™uÿ².ªž˜Kªuåí,{àÕSŸgÒõºßYû¾ƒÿF¶ðh¦r0ú…¦ÌW†ÔÆØ×8×ípôÃEúFz?áÿâ½?Qyý˜­ÃÎn54?$äU–µ§ÜkF­ú?¾­_կĸY]&¯²:}$ÇïÜÏJ¦ÛË2üË>³ÕvAnG¤æ7ÖÇa5X͛˜ñS¶»}›ÿO_晴”¸ „‰$_õÿu·Ì ™qdâŒb?F.…öUÔ…½&šñX×8: âÐN®ÖÇú¾Æ»þÚgø5s©cá[“ƒ×ó/ຫ€¯µ×‹}K-e×ceþƒ'u–ýð¤ô_z¡gK¾Û2݇éæú‚Ç )±­º·¤Û1.ِÿOþë6íê=G§3++ÚÍu;ªW]¬½ï¬TÏV«CZç5í°?é5F"w?Ë»_‘÷¤"g)p‰1²Gœ£+—ïðp~—ȵ¹˜´ãUV.-4ýÝm#sÝ#ón~û}=ßGmªvåuž·eÕÒü§ôہàN¬² Œõ|;7­èÝC+£†Yëšë鸴VA®W·Ò¾ÜªjûW«eU7è¾ÏЬ^–Êsò²+{[ˆÿNU»}ÕÛ¶Ú7¿ó™Ce»sÐõDΟn'GM–Û‰~%᯻yö‘ïƺ*ýNÊ}_ðŸ§õ=EƒÖóºŽ>nVVKß>£×Ln-ÚáfæýÑoþB“â֛ÞkåàЋßbé>î´Ì,F[žêqlx ÑY}mª[¼PÍ£k1ÿ1«{։éýfœwônœë(Äs©²Æ²—–5µºËK«ûg£ëý+ÚßWùÚÿšþo–fnUÌwO³ÕÈk@’Ès^×¾˜?áÆ}ßgõœê¾¤·#¥2îŸSñۋŽ×±—‹[E•×¸6×{j¿õ‡W_ým!éå&CÕlY ˜ðñéy‰”ükò]}&ÆèýæÚ«IÎvû}Ÿ˜Ê|Yµ˜-®—Ûœv7-ÄÖ5öý':¯KsŸûïV1]ÔkéÙ´åì» ìh5Ï¥ûêc.ÞïÒ5–zŸg»Óÿ®­‹õL]wQ©ßdv,ÙU/o¸ŠÜÖä]²ßÍe{ö[þ•EÆ©;GÌô_(Š8zõoâ}Péý?¡ÅB»z¥Œ¯Z%­{Às+ÇyöS[+~ßYžû?œÿƒX‰Íw¡…i·ÍfF[]ì±ÍÖÒÚ?ÁVÉÝM•zŸ¢þyw¶å}_s0ú•¾°ÇǪª˜AªÖ²m{Iôß³e¿Íúiÿê~sXŽ8Æþ¬ÇåtìǼc²¶úŽ.öoªÖ·Ñ£Òø7Wÿúh›PLjHï§{ý×ÿÓçóñÜëY`‡±îø's¬tŒ˜7齮Ǿ·h×WoµÍòwì÷ƒþqO«¾·gXãdÚ#šŒº»wÿ&ÏÑ*m…ueŽ±óÝÛ§êßU§oO3$zN´¸7aÜê›^eo÷2æ=žžŸè½U †ãÓSi6máì}gó¿Fözk{êæ~/SèuS‘"ͦŒ°6Å‚³¹¯õßJßSjÆêUu]’ì´ÓU¯eÍ°zV9Àöœmß¡É«!¿ÎzáýOôžo”,zXã#¨–ñ?ƒÌõ‹UÙNÊ5ä5“KF ¸àK~Žå€ìLáÑiì8÷?ù÷4í/q‹«ûÛ¿yhuܺ²ñeꃚl`ìÓ¯æ~fåc¡õœKºeßWsÀ£%®ey-ú-{Žö>Ækô.ú;Á©0dž AØ£ú?Ö 0ŽC`ùxø8}/þ±Ôhé̵´ºÏoªøk˜lÿ_Qtvôn¡OՌÛòNüGTê…GsÜÇú³j·ôµõ¹•8ú_þ fàýTêwåقúۏöR={¸»x>›©cOéë³oè®þgb/SêØ} dtž˜ç9ö}¯!ᯰúÞÍvZ÷ØIg§éþ‹ôHÏ)‘áË`>^Tk÷dºÕ=èâÏ7ê®_MéG«å^Æg¹­5á×&öºÇ±¶[}ìu^–ÚÝÿv6oSé4à?ödäe · +aµý7VlöY‘±Îý?§Tqó²reåÓvÁoªýÎö™kªµþúöÿ!mt¥~¡¶Ëó*°ƒ°°†ú·îfïCÒÛS7…DÀc­ïŹ“.14±ZjáçõÖW_©’}W1̀c`>ë1Àú^›ÿo½EíÊ7Œ|n©¹ý÷L†»k_VÏѹ®ý"캏컺Îu¥¬y{KÒ,­öÑ]zŒÇȺË?KwüõÞ¹VfÝ^Sì±Ó[«³Ii Ùë3g¿ØŸ“ˆa†„Pÿ/™h•ä17TO“_;«gÞì|lËò2ÛCÃoŵÄ9ÛO±®íÖ1»˜ÏQØ¯åçôŸµN>;3«Ç—SVt2Ýրè³"¯I¹xTÛ¾ßð9ðŒ«ÔSêuuL|Lìe¸Ð*õ

খাগড়াছড়িতে সেনা-বিজিবি-পুলিশের মারমুখী অবস্থান উপেক্ষা করে বিপুল চাকমাসহ আটক নেতাকর্মীদের মুক্তির দাবিতে আজ বুধবার ৯ নভেম্বর, ২০১৬ সকাল দশটায় আহূত পূর্বঘোষিত সংহতি সমাবেশ সফল করেছে বৃহত্তর পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ (পিসিপি)। ‘ধড়-পাকড় বন্ধ কর, সভা-সমাবেশের গণতান্ত্রিক অধিকার ফিরিয়ে দাও!’ এই স্লোগানকে সামনে রেখে অন্যায়ভাবে আটক পিসিপি নেতা বিনয়ন, বিপুল, অনিলসহ কারাবন্দী ইউপিডিএফ -এর সকল সংগঠনের নেতা কর্মীদের নিঃশর্ত মুক্তি ও ষড়যন্ত্রমূলক মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে উক্ত সংহতি সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশ বানচাল করতে সমাবেশস্থল স্বনির্ভর বাজার ও তার আশেপাশের এলাকায় সেনা-পুলিশ-বিজিবি মারমুখী অবস্থান গ্রহণ করে। শান্তিপূর্ণভাবে সমাবেশ সফল করার স্বার্থে পিসিপি তাৎক্ষণিকভাবে স্বনির্ভর বাজারে সমাবেশ না করে পেরাছড়ায় সমাবেশ করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে। সিদ্ধান্ত অনুযায়ী উক্ত এলাকায় শত শত জনতার স্বতঃস্ফুর্ত উপস্থিতিতে আটক পিসিপি নেতাকর্মীদের মুক্তির দাবিতে সংহতি সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

সমাবেশের বক্তব্য রাখেন, খাগড়াছড়ি সদর উপজেলায় সমন্বয়ক অনি চাকমা ও গণতান্ত্রিক যুব ফোরাম কেন্দ্রীয় কমিটি সাধারণ সম্পাদক জিকো ত্রিপুরা  প্রমুখ।

সংহতি সমাবেশ থেকে বক্তাগণ পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের কেন্দ্রীয় সহসভাপতি বিনয়ন চাকমা, সাধারণ সম্পাদক বিপুল চাকমা, সাংগঠনিক সম্পাদক অনিল চাকমাসহ ডজনের অধিক নেতাকর্মীকে অন্যায়ভাবে গ্রেপ্তারের তীব্র নিন্দা ও সমালোচনা করেন এবং অবিলম্বে সকল নেতাকর্মীকে নিঃশর্তভাবে মুক্তি প্রদানের দাবি জানান।

সমাবেশ থেকে বক্তাগণ বলেন, বর্তমান সরকার ও শাসকগোষ্ঠী উগ্র সাম্প্রদায়িক ও ধর্মীয় মৌলবাদী চেতনা লালন করে জাতিগত-ধর্মীয়সহ সংখ্যালঘুদের উপর নিপীড়ন-নির্যাতন করছে। পার্বত্য চট্টগ্রামের নিপীড়িত জুম্ম জনতার ন্যায্য অধিকার আদায়ের আন্দোলনকে  ধ্বংস করতে নিপীড়ন নির্যাতন ও মিথ্যা মামলা দায়ের করে ধরপাকড় অব্যাহত রেখেছে। সভা সমাবেশ মিছিল মিটিং করার মত গণতান্ত্রিক অধিকার প্রয়োগ করে দাবি আদায়ের সংগ্রামকে পর্যন্ত দমন করা হচ্ছে।

বক্তারা আরো বলেন, এই সরকার মুখে গণতন্ত্রের কথা বললেও পার্বত্য চট্টগ্রামে তারা একইসাথে অগণতান্ত্রিক ও অসাংবিধানিক শাসন ব্যবস্থা চালু রেখেছে। গণতান্ত্রিক সিভিল প্রশাসনের মাধ্যমে সারাদেশে শাসন ব্যবস্থা পরিচালিত হলেও পার্বত্য চট্টগ্রামের জন্য ১১ দফা নির্দেশনা জারি করে সেনা কর্তৃত্বের অগণতান্ত্রিক ও অসাংবিধানিক শাসনব্যবস্থা চালু রাখা হয়েছে।

বক্তারা গ্রেপ্তার ধরপাকড়ের বিরুদ্ধে জোরদার আন্দোলন গড়ে তোলার জন্য ছাত্র-যুব-নারী সমাজসহ সকল শ্রেণীপেশার জনগণের প্রতি উদাত্ত আহ্বান জানান।

এছাড়া সমাবেশ থেকে বক্তারা অভিযোগ করে বলেন, পিসিপি’র পূর্বের নির্ধারিত কর্মসূচি বানচাল করার জন্য সেনা-বিজিবি-পুলিশ প্রশাসন স্বনির্ভর বাজার, দশবল, খবং পড়িয়া, উপালী পাড়াসহ বিভিন্ন জায়গায় মারমুখী অবস্থান গ্রহণ করে। একপর্যায়ে সেনাবহিনী স্বনির্ভর বাজারে দোকানে দোকানে তল্লাশি করে দশবলসহ কয়েকটি জায়গায় পাহাড়িদের বাড়ি ঘর তল্লাশি চালায় ও সাধারণ ছাত্রদের ধরপাকড় করে মারধর এবং অশ্লীল ভাষায় গালি গালাজ করে। সেনাবাহিনী পানছড়ি কলেজের দ্বাদশ শ্রেণীর ছাত্র যশোবীর চাকমা (১৭) ও খাগড়াছড়ি সরকারি কলেজের একাদশ শ্রেণীর ছাত্র বিপন চাকমা (১৬) নামে দুই ছাত্রকে মারধর করে।

বক্তারা বলেন, মারমুখী অবস্থান নিয়ে এবং সন্ত্রাসী কায়দায় প্রতিবাদ বিক্ষোভ ও গণতান্ত্রিক আন্দোলন দমন করে পার্বত্য জনগণের ন্যায্য অধিকার আদায়ের সংগ্রাম ধ্বংস করা যাবে না। জুম্ম জনগণের অস্তিত্বকে ধ্বংস করার জন্য সেনাবাহিনী ও পুলিশ প্রশাসনকে দিয়ে যতই দমন-পীড়ন, নির্যাতন পরিচালনা করবে ততই জনগণ সংগঠিত হয়ে লড়াই সংগ্রাম ও প্রতিরোধ আন্দোলনে সামিল হবে।

উল্লেখ্য, পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক বিপুল চাকমাকে পানছড়ি থানার সামনে গত ২৩ অক্টোবর ২০১৬ মিথ্যা মামলায় আটক করা হয়। তার অসুস্থ মা’কে হাসপাতালে নেয়ার সময় অমানবিকভাবে তাকে পুলিশ গ্রেপ্তার করে এবং অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে। এছাড়া গত ২ নভেম্বর খাগড়াছড়ি সদরের স্বনির্ভর বাজারে অবস্থিত সংগঠনের কার্যালয়ে বিপুল চাকমাকে আটকের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করতে গেলে সেনাবাহিনী ও পুলিশ সম্মেলন শেষ না হতেই পিসিপি’র কেন্দ্রীয় সহসভাপতি বিনয়ন চাকমা ও সাংগঠনিক সম্পাদক অনিল চাকমাকে আটক করে। তাদেরও মিথ্যা মামলা দায়ের করে গ্রেপ্তার করা হয়। এছাড়া গত  অক্টোবর পানছড়ি থেকে পিসিপি’র নয় নেতাকর্মীকে মিথ্যা মামলায় আটক করা হয়। উক্ত গ্রেপ্তারের প্রতিবাদে ধারাবাহিক কর্মসূচির অংশ হিসেবে আজ বুধবার সংহতি সমাবেশের আয়োজন করা হয়।

বার্তা প্রেরক –
সুনয়ন চাকমা
দপ্তর সম্পাদক
বৃহত্তর পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ (পিসিপি)
কেন্দ্রীয় কমিটি।

খবরটি শেয়ার করুন

Post Comment