প্রেস বিজ্ঞপ্তি

ঘিলাছড়িতে সেনা কর্তৃক পাহাড়ি নারীর শ্লীলতাহানির প্রতিবাদে বিক্ষোভ

প্রেস বিজ্ঞপ্তি –

pl

রাঙ্গামাটির নান্যাচর উপজেলার ঘিলাছড়িতে গত ১০ নভেম্বর ২০১৬ কয়েকজন সেনা সদস্য কর্তৃক এক পাহাড়ি নারীকে মারধর ও শ্লীলতাহানির প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে ঘিলাছড়ি নারী নির্যাতন প্রতিরোধ কমিটি।

আজ সোমবার (১৪ নভেম্বর) সকালে ঘিলাছড়ি বাজার মাঠে অনুষ্ঠিত বিক্ষোভ সমাবেশে ঘিলাছড়ি নারী নির্যাতন প্রতিরোধ কমিটির সাবেক সভাপতি শান্তি প্রভা চাকমার সভাপতিত্বে ও রুমিতা চাকমার সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন পার্বত্য চট্টগ্রাম নারী সংঘের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক কাজলী ত্রিপুরা, ঘিলাছড়ি ইউনিয়নের মেম্বার সান্তনা চাকমা, হিল উইমেন্স ফেডারেশনের রাঙ্গামাটি জেলা শাখার সদস্য দয়াসোনা চাকমা, রামহরি পাড়া গ্রামের নারী কার্বারী সান্তনা চাকমা ও ঘিলাছড়ি এলাকার নারী নেত্রী আলোরাণী চাকমা। ভিকটিম শেফালি চাকমা সমাবেশে উপস্থিত থেকে ঘটনার বর্ণনা দেন।

সমাবেশে কাজলী ত্রিপুরা বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামে সেনাবাহিনী নিরাপত্তার নামে ধর্ষণ, শ্লীলতাহানির মতো জঘন্য কাজ করে যাচ্ছে। রক্ষক হয়ে ভক্ষকের ভূমিকা পালন করছে। সেনাবাহিনীর কারণে পাহাড়ি নারীদেরকে চরম নিরাপত্তাহীনতার মধ্যে থাকতে হচ্ছে। যে সেনাবাহিনীর সদস্যরা নারীদের ইজ্জ্বত হরণ করে, নিরাপত্তার বিঘ্ন ঘটায় সে ধরনের সেনাবাহিনী আমাদের প্রয়োজন নেই। তিনি অবিলম্বে পার্বত্য চট্টগ্রাম থেকে সেনাবাহিনী প্রত্যাহারের দাবি জানান।

দয়াসেনা চাকমা তার বক্তব্যে বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামে প্রতিনিয়ত কোথাও না কোথাও নারী ধর্ষণ, নির্যাতনের ঘটনা ঘটছে। কিন্তু আমরা কোন ঘটনারই সঠিক বিচার পাচ্ছি না। যমুনা চাকমা নামে এক নারী ২০০৯ সালেও এই ঘিলাছড়িতে সেনা সদস্য দ্বারা ধর্ষণ চেষ্টার শিকার হয়েছিলেন। সেই ঘটনার যদি দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা হতো তাহলে শেফালি চাকমা সেনা সদস্যদের দ্বারা মারধর ও শ্লীলতাহানির শিকার হতেন না। তিনি অপরাধী সেনা সদস্যদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান।

সমাবেশে ভিকটিম শেফালি চাকমা সেদিনের ঘটনার বর্ণনা দিয়ে বলেন, গত ১০ নভেম্বর ২০১৬ ঘিলাছড়ি ক্যাম্পের মো: আরিফের নেতৃত্বে হুমায়ুন, বাবুলসহ একদল সেনা সদস্য গিয়ে প্রথমে আমার ঘর তল্লাশি করে এবং অস্ত্র খোঁজার নামে আমাকে নানা হয়রানি করে। এক পর্যায়ে হুমায়ূন, বাবুল আমাকে মারধর করে ও তলপেটে হাত দিয়ে জোরে আঘাত করে। এতে আমি প্রচণ্ড আঘাত পাই। এ সময় তিনি তার আঘাতের চিহ্ন দেখান।

তিনি অভিযোগ করে আরো বলেন, সেনা সদস্যরা আমার স্বামীকে চোখ বেঁধে বেদম মারধর করে। তারা আমাকে ও আমার স্বামীকে অস্ত্র বের করে দিতে না পারলে মেরে ফেলারও হুমকি দেয়। তিনি দোষী সেনা সদস্যদের বিচার দাবি করেন।

সমাবেশে অন্যান্য বক্তারা সেনা সদস্যদের দ্বারা শ্লীলতাহানির ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে ঘটনায় জড়িত সেনা সদস্যদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ ও এ ধরনের ঘটনা বন্ধে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপের দাবি জানান।

বার্তা প্রেরক –
রুমিতা চাকমা
ঘিলাছড়ি নারী নির্যাতন প্রতিরোধ কমিটি।

খবরটি শেয়ার করুন

Post Comment