রাঙ্গামাটির বাঘাইছড়ি উপজেলায় দীপংকর তালুকদারকে গণসংবর্ধনা

রাঙ্গামাটি রিপোর্ট –
পার্বত্য শান্তিচুক্তির পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়নে প্রধান বাধা অবৈধ অস্ত্র – দীপংকর তালুকদার

dt

সাবেক প্রতিমন্ত্রী ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির কার্যনির্বাহী সদস্য দীপংকর তালুকদার বলেছেন, পার্বত্য শান্তিচুক্তির পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়নে প্রধান বাধা হচ্ছে অবৈধ অস্ত্র। আওয়ামী লীগ সরকার পার্বত্য এলাকায় বসবাসরত মানুষের শান্তি ও কল্যাণের কথা চিন্তা করে শান্তি চুক্তি করেছে। আঞ্চলিক দলগুলোর অবৈধ অস্ত্রের কারণে চুক্তির পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়ন বিলম্ব হতে বাধ্য হচ্ছে। তিনি বলেন, পাহাড়ে উচ্চ শিক্ষার উন্নয়নে জননেত্রী শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় রাঙ্গামাটিতে স্থাপন করেছেন। কিন্তু স্থানীয় দলগুলো চায় না এ অঞ্চলের ছেলে মেয়েরা উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত হউক। এক কথায় তারা চায় না পাহাড়ের মানুষের সার্বিক উন্নয়ন। সর্বক্ষেত্রে অবৈধ অস্ত্রের মাধ্যমে মানুষের কল্যাণ ও উন্নয়নে তারা বাধা সৃষ্টি করে স্বাভাবিক জীবনকে অস্বাভাবিক করে রেখেছে। তিনি আরো বলেন, সন্ত্রাসীদের কোন জাতপাত নেই। সে যে জাতি, যে গোষ্ঠী বা যে দলেরই হোক না কেন সকল সম্প্রদায়কে ঐক্যবদ্ধভাবে এদের বিরুদ্ধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে।

দীপংকর তালুকদারকে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য করায় শুক্রবার (২৫ নভেম্বর) বিকেলে রাঙ্গামাটির বাঘাইছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে আয়োজিত গণ সংবর্ধনা সভায় তিনি এ কথা বলেন।

রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও বাঘাইছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বৃষ কেতু চাকমার সভাপতিত্বে বাঘাইছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয় প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন ফিরোজা বেগম চিনু এমপি, পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি হাজী কামাল উদ্দিন, রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হাজী মো: মুছা মাতব্বর, সাংগঠনিক  সম্পাদক জ্যোতির্ময় চাকমা কেরোল, জেলা শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক শামসুল আলম, জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য জাফর আলী খান, জেলা কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক উদয় শংকর চাকমা, জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক নূর মো: কাজল, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সদস্য মো: শাহজাহান, বাঘাইছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি হাজী আব্দুস শুক্কুর, প্রিয়নন্দ চাকমা, যুগ্ম সম্পাদক অমলেন্দু চাকমা, গিয়াস উদ্দিন, আইন বিষয়ক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন, জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক প্রকাশ চাকমা’সহ বাঘাইছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন বাঘাইছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলী হোসেন।

সভায় দীপংকর তালুকদার আরো বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কমিটিতে আমাকে নির্বাচিত করেন নাই, করেছেন আপনাদেরকে। পার্বত্য এলাকার মানুষের প্রতি তার আন্তরিকতার অভাব নেই। তিনি বলেন, সম্প্রতি ভিডিও কনফারেন্সে পার্বত্যবাসীকে দেওয়া প্রতিশ্রুতি তিনি ২৪ ঘন্টা না পেরোতেই পূরণ করেছেন। পার্বত্য অঞ্চলের সার্বিক উন্নয়নেও তিনি সবসময় আন্তরিক। ২০১৯ সালের জাতীয় নির্বাচনে নৌকা প্রতীকে ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করে রাঙ্গামাটির আসনটি তাকে উপহার দেওয়ার জন্য তিনি সকলকে আহ্বান জানান।

সভায় ফিরোজা বেগম চিনু এমপি বলেন আওয়ামী লীগ রাজনীতির সাথে যারাই যুক্ত তারা সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতিতে বিশ্বাসী এবং তারা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর আদর্শের পথে চলেন। তারা গণ মানুষের কথা বলেন। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের ক্রমবর্ধমান জনপ্রিয়তা এমনি এমনি বাড়েনি, বেড়েছে তাদের সুকর্মের ফলে। এই কর্মগুলোর কথা তৃণমূল পর্যায়ের মানুষের কাছে তুলে ধরতে তিনি নেতাকর্মীদের আহ্বান জানান।

সভায় রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমা বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে মনে ধারণ করে নেতাকর্মীদের আগামী বাঘাইছড়ি পৌরসভা নির্বাচন ও ২০১৯ সালের জাতীয় নির্বাচনে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করতে হবে। নেত্রী ও নেতাকর্মীরা নির্বাচনে যাকেই যোগ্য প্রার্থী হিসেবে নির্বাচিত করবে তার পক্ষে কাজ করারও আহ্বান জানান তিনি।

খবরটি শেয়ার করুন

Post Comment