রাঙ্গামাটিতে জেলা আওয়ামী লীগের জন সমাবেশ

রাঙ্গামাটি রিপোর্ট –

kader

বাংলাদেশকে অস্থিতিশীল করে তুলতে পার্বত্য চট্রগ্রামকে আশান্ত করার দেশী বিদেশী ষড়যন্ত্র চলছে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তথা সড়ক পরিবহণ ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

একাত্তরের পরাজয়ের প্রতিশোধ নিতে কোন কোন বিদেশী গোয়েন্দা সংস্থা পাহাড়ে সক্রিয় রয়েছে বলে উল্লেখ করেন তিনি ।

আজ দুপুরে রাঙ্গামাটি পৌরসভা প্রাঙ্গণে জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত বিশাল এক জন সমাবেশে ওবায়দুল কাদের এ সব কথা বলেন। তিনি বলেন পার্বত্য অঞ্চলে স্থায়ী শান্তি প্রতিষ্ঠা করতে হলে অবৈধ অস্ত্রের ব্যবহার থেকে বেরিয়ে আসতে হবে।

সমাবেশে সংসদ সদস্য ফিরোজা বেগম চিনু, কেন্দ্রীয় কমিটির চট্টগ্রাম অঞ্চলের সাংগঠনিক সম্পাদক এনামুল হক শামীম, রাঙ্গামাটি জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য দীপংকর তালুকদারসহ জেলা উপজেলার আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ বক্তব্য দেন।

ওবায়দুল কাদের পাহাড়ে অশান্তি সৃষ্টিকারীদের প্রশ্রয় না দিতে পার্বত্য অঞ্চলিক পরিষদের চেয়ারম্যান ও জন সংহতি সমিতির নেতা সন্তু লারমার প্রতি আহবান জানান ।

তিনি বলেন ১৯৯৭ সালে এ আওয়ামী লীগ সরকার শান্তি চুক্তি করেছিল। আর এ সরকারই তা বাস্তবায়ন করবে। অন্য কোন সরকার এ চুক্তি বাস্তবায়ন করেনি, আর করবেও না।

সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, বিগত সরকারগুলো শান্তির নামে পাহাড়ের মানুষদের সঙ্গে লোক দেখানো বৈঠক করেছিল। কিন্তু পাহাড়ের প্রতি তাদের মনের মধ্যে ভালোবাসা ছিল না। তারা যদি সত্যি শান্তি প্রতিষ্ঠা করতে চাইতো তাহলে অনেক আগেই পাহাড়ের রক্তপাত বন্ধ হয়ে যেত। শান্তি চুক্তি আমরা করেছি, আমরাই বাস্তবায়ন করবো।

এক ব্যানারে ‘গণ সংবর্ধনা’ শব্দ দেখে তিনি বলেন ‘সংবর্ধনা’ শব্দটি আমি ঘৃণা করি। সংবর্ধনা দেয়ার সময় এখন আসেনি, আমার কাজ ভাল হলে পরে সংবর্ধনা হতে পারে, এখন নয়। তিনি বলেন এখন গণ সংবর্ধনা নয়, গণ সংযোগ করুন।

 

খবরটি শেয়ার করুন

Post Comment