অপারেশন র‌্যাপল-২৪ : নারী জঙ্গিসহ নিহত ২, চারজনের আত্মসমর্পণ

অনলাইন ডেস্ক –

রাজধানী ঢাকার দক্ষিণখান থানার পূর্ব আশকোনোয় জঙ্গি আস্তানায় অভিযান শেষ হয়েছে। ‘অপারেশন র‌্যাপল-২৪’ অভিযানে নিহতরা হলেন— সুমনের স্ত্রী শারিকা (৩০) ও আজিমপুরে জঙ্গিবিরোধী অভিযানে নিহত তানভীর কাদরির ছেলে আদর (১৪)।

অভিযানে আটক করা হয়েছে নিহত জঙ্গি মেজর জাহিদুল ইসলামের স্ত্রী জেবুননেসাসহ চারজনকে। এটিই প্রথম দেশের প্রথম ‘নারী সুইসাইড স্কোয়াডের’ আত্মঘাতী হামলা।

ঘটনাস্থল থেকে কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের একজন কর্মকর্তা জানান, সুইসাইড ভেস্ট চালানোর সময় ওই নারী জঙ্গি বলেন, ‘‘আমরা জান্নাতে যাচ্ছি। পৃথিবীর এসব মোহ আমাদের কিছুই করতে পারবে না।’’ এর পরপরই প্রচণ্ড শব্দে বিস্ফোরিত হয়ে সেখানে এক নারী লুটিয়ে পড়েন। তার সঙ্গে ১৪ বছরের এক কিশোর ছিল। সেও মাটিতে লুটিয়ে পড়ে।

শনিবার ভোর রাতে অভিযান শুরুর পর বিকাল পৌনে চারটায় ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল সাংবাদিকদের বলেন, অভিযান শেষ হয়েছে। অভিযানে আহত অবস্থায় চারজনকে আটক করা হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, জঙ্গি সুমনের স্ত্রীসহ দুইজনের লাশ ভবনের ভেতরে রয়েছে।

এর আগে বেলা তিনটার দিকে এক ব্রিফিংয়ে পুলিশের কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ইউনিটের (সিটি) প্রধান মনিরুল ইসলাম জানান, বেলা পৌনে তিনটার দিকে ভেতর থেকে আরেক ‘জঙ্গি’ গুলি ছোড়ে এবং গ্রেনেড বিস্ফোরণ করে। তিনি কী অবস্থায় আছেন, তা বোঝা যাচ্ছে না। বাইরে থেকে দেখা যাচ্ছে, ঘরের ভেতর বিস্ফোরক ছড়িয়ে আছে। এর আগে ওই জঙ্গি আজিমপুরে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর অভিযানে নিহত জঙ্গি তানভীর কাদেরির ছেলে বলে জানিয়েছিল পুলিশ।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল ও পুলিশের মহাপরিদর্শক শহীদুল হক ঘটনাস্থলে গেছেন।

শুক্রবার দিবাগত রাত থেকে রাজধানীর আশকোনায় জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে তিনতলা বাড়ি ঘিরে অভিযান চালাচ্ছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। পুলিশ বলছে, বাড়িটির নিচতলায় ‘জঙ্গি আস্তানা’ রয়েছে। দুপুর সাড়ে ১২টার একটু পরে বাড়িটির ভেতর থেকে দরজা খুলে গ্রেনেড বিস্ফোরণ ঘটান এক নারী ‘জঙ্গি’। এ সময় তাঁর সঙ্গে এক শিশুও ছিল। আহত শিশুকে অ্যাম্বুলেন্সে করে হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) পরিদর্শক (ইন্সপেক্টর) শফিক সামান্য আহত হন।

খবরটি শেয়ার করুন

Post Comment