শিক্ষা সংক্রান্ত ৫ দফা দাবিতে রাঙ্গামাটির কুদুকছড়িতে পিসিপির ছাত্র সমাবেশ

১৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৭

প্রেস বিজ্ঞপ্তি –


“স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অগণতান্ত্রিক দমনমূলক ১১ নিদের্শনা বাতিল কর” এই দাবি সম্বলিত স্লোগানকে সামনে রেখে পাঠ্য পুস্তকে পাহাড়ি জাতিসত্তার অবমাননাকর উগ্র-জাতীয়তাবাদ ও সাম্প্রদায়িক বাক্য মুদ্রণের প্রতিবাদে এবং শিক্ষা সংক্রান্ত ৫দফা দাবি পূর্ণ বাস্তবায়নের দাবিতে বৃহত্তর পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ (পিসিপি) রাঙ্গামাটি জেলা শাখার উদ্যোগে আজ ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৭, বুধবার দুপুর ১২টায় কুদুকছড়ি বড় মহাপুরুম স্কুল গেইট এলাকায় এক ছাত্র সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

বৃহত্তর পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ (পিসিপি)-এর রাঙ্গামাটি জেলা শাখার সভাপতি কুনেন্টুু চাকমার সভাপতিত্বে ও সহ-সভাপতি নিকন চাকমার সঞ্চালনায় সমাবেশে বক্তব্য রাখেন গণতান্ত্রিক যুব ফোরামের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক থুইক্যচিং মারমা ও হিল উইমেন্স ফেডারেশন রাঙ্গামাটি জেলা শাখার সভাপতি এবং কেন্দ্রীয় সদস্য মন্টি চাকমা প্রমুখ।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, বিগত ২০০০ সাল হতে বৃহত্তর পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ (পিসিপি) মাতৃভাষায় প্রাথমিক শিক্ষাসহ শিক্ষা সংক্রান্ত ৫ দফা দাবিতে আন্দোলন করে আসছে। কিন্তু সরকার এখনো এসব দাবি পুরোপুরি বাস্তবায়ন করেনি। উপরন্তু ২০১৭ সালে প্রণীত পাঠ্য বইয়ে পাহাড়ি জাতিসত্তার অবমাননাকর উগ্র-জাতীয়তাবাদ, সাম্প্রদায়িক বাক্য মুদ্রণ করা হয়েছে।

বক্তারা সরকারের সমালোচনা করে বলেন, ২০১৭ সালে ৫টি জাতিসত্তার ভাষায় প্রাক প্রাথমিক বই বিতরণের মাধ্যমে জাতিসত্তার মাতৃভাষায় শিক্ষা চালু করার কথা থাকলেও পার্বত্য চট্টগ্রামের অধিকাংশ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এখনো বই পৌঁছেনি। ফলে সরকারের এই উদ্যোগ কতটুকু সফল হবে তা নিয়ে যথেষ্ট সংশয় রয়েছে। সমাবেশ থেকে বক্তারা পার্বত্য চট্টগ্রামসহ দেশের সকল জাতিসত্তার নিজ নিজ মাতৃভাষায় প্রাথমিক শিক্ষা চালু ও এ লক্ষ্যে পর্যাপ্ত বই প্রণয়নের দাবি জানান।

পিসিপি’র রাঙ্গামাটি জেলা শাখার সভাপতি কুনেন্টু চাকমা অভিযোগ করে বলেন, শিক্ষা সংক্রান্ত ৫দফা বাস্তবায়নের দাবিতে আজকের এই ছাত্র সমাবেশের জন্য রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারকে লিখিতভাবে অবগত করার পরও গতকাল সমাবেশের জন্য মঞ্চ তৈরিতে সেনাবাহিনী বাধা প্রদান করেছে। গণতান্ত্রিক কর্মসূচিতে সেনাবাহিনীর এ ধরনের বাধাদানের ঘটনায় তিনি তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান।

এক ভাষা ও এক জাতির রাষ্ট্র কায়েম করার জন্য বাংলাদেশ সরকার তথা সেনাবাহিনী মরিয়া হয়ে উঠেছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, বাংলাদেশ এক জাতি ও এক ভাষার রাষ্ট্র নয়, এদেশে বাঙালি ছাড়াও আরো ৪৫টির অধিক সংখ্যালঘু জাতি বসবাস করছে। প্রত্যেক জাতিসত্তার নিজ নিজ মাতৃভাষায় শিক্ষা লাভের অধিকার রয়েছে।

তিনি অবিলম্বে মাতৃভাষায় প্রাথমিক শিক্ষাসহ পিসিপি’র শিক্ষা সংক্রান্ত ৫দফা দাবি পূর্ণ বাস্তবায়ন ও পাঠ্য পুস্তক হতে পাহাড়ি জাতিসত্তার অবমাননাকর সাম্প্রদায়িক বাক্য বাতিল করার জন্য সরকারের কাছে জোর দাবি জানান। অন্যথায় ভবিষ্যতে আরো কঠোর কর্মসূচি দেয়া হবে বলে হুঁশিয়ারি দেন।

বার্তা প্রেরক –

বিপ্লব চাকমা
দপ্তর সম্পাদক
পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ
রাঙ্গামাটি জেলা শাখা।

খবরটি শেয়ার করুন

Post Comment