রামগড়ে পাহাড়ি কিশোরী ধর্ষণ : তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ

২০ ফেব্রুয়ারি ২০১৭

বিবৃতি –

হিল উইমেন্স ফেডারেশনের খাগড়াছড়ি জেলা শাখার সভাপতি দ্বিতীয়া চাকমা ও সাধারণ সম্পাদক চৈতালি চাকমা আজ ২০ ফেব্রুয়ারি ২০১৭, সোমবার সংবাদ মাধ্যমে প্রদত্ত এক বিবৃতিতে খাগড়াছড়ির রামগড় উপজেলার রুপাইছড়ি গ্রামে সেটলার মো: হাসান আলী ও তার সহযোগী কর্তৃক ১৫ বছর বয়সী এক পাহাড়ি (ত্রিপুরা) কিশোরীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন।

বিবৃতিতে নেত্রীদ্বয় অভিযোগ করে বলেন, গত বুধবার (১৫ ফেব্রুয়ারি) রাত সাড়ে ১১টার দিকে প্রাকৃতিক কাজ ছাড়ার জন্য ঘরের বাইরে গেলে আগে থেকে ওঁৎ পেতে থাকা মো: হাসান আলী ও তার সহযোগীরা মিলে হায়েনার মত মুখে গামছা পেঁচিয়ে ওই কিশোরীকে জোরপূর্বক তুলে নিয়ে যায় এবং পার্শ্ববর্তী জঙ্গলে দুইরাত এক দিন পর্যন্ত আটকে রেখে পালাক্রমে ধর্ষণ করে।

নেত্রীদ্বয় ভিকটিম কিশোরীর অভিযোগ তুলে ধরে বলেন, এর আগেও মো: হাসান আলী বহুবার ওই কিশোরীকে নানা ধরনের কু-প্রস্তাব দিতো ও উত্যক্ত করতো। কু-প্রস্তাবে কোন ছাড়া না পাওয়ায় এক প্রকার প্রতিশোধ পরায়ন হয়ে সেদিন কিশোরীকে রাতের আঁধারে নিজবাড়ি থেকে তুলে নিয়ে সহযোগীসহ মিলে জোরপূর্বক ধর্ষণ করেছে।

বিবৃতিতে নেত্রীদ্বয় বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামের পাহাড়ি নারীদের উপর সেটলার, রাষ্ট্রীয় বাহিনী কর্তৃক চলছে প্রতিনিয়ত ধর্ষণ, খুন, গুম, নির্যাতন ও অপহরণের মত ঘটনা। কিন্তু সংঘটিত এসব ঘটনার সুষ্ঠু বিচার না হওয়ায় অপরাধীরা বারবার এমন ঘটনা ঘটিয়ে চলেছে। তারা এসব কার্যকলাপকে পাহাড়িদের উপর জাতিগত নিপীড়ন বলে আখ্যায়িত করেন।

নেত্রীদ্বয় পার্বত্য চট্টগ্রামের পাহাড়ি নারীদের উপর সেটলার ও রাষ্ট্রীয় বাহিনী কর্তৃক যৌন সহিংসতা রোধ করার জন্য যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণসহ অবিলম্বে রামগড়ে কিশোরীকে ধর্ষণকারী মো: হাসান আলী ও তার সহযোগীদের গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান।

বার্তা প্রেরক –

জুই চাকমা
দপ্তর সম্পাদক
হিল উইমেন্স ফেডারেশন
খাগড়াছড়ি জেলা শাখা।

খবরটি শেয়ার করুন

Post Comment