জুয়েল ও রিপন চাকমার মুক্তির দাবিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বিক্ষোভ

২ মে ২০১৭

প্রেস বিজ্ঞপ্তি –

অবিলম্বে পিসিপি নেতা জুয়েল চাকমা ও রিপন আলো চাকমার গ্রেফতারের প্রতিবাদে ও নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে বৃহত্তর পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ (পিসিপি) ঢাকা শাখা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে আজ (২ মে) সাড়ে ৫ টায় বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ  করেছে। মধুর কেন্টিন থেকে মিছিল বের হয়ে রাজু ভাস্কর্যে গিয়ে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। ঢাকা শাখার সভাপতি রোনাল চাকমার সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক রিয়েল ত্রিপুরার পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল মাহমুদ ও পিসিপির সভাপতি বিনয়ন চাকমা।

বক্তারা বলেন, দেশের নিয়ম অনুসারে গ্রেফতার বা আটকের বৈধতা সেনাদের নেই, সমতলে এ ধরনের নজির নেই। কিন্তু পার্বত্য চট্টগ্রামে তারা একের পর এক লোকজনকে আটক করে চলেছে। গ্রেফতারি পরোয়ানা না থাকা এবং সম্পূর্ণ নির্দোষ পিসিপি নেতা জুয়েল চাকমা ও রিপন আলো চাকমাকে গ্রেফতার করে সেনারা নাগরিক অধিকার  চরমভাবে লঙ্ঘন করেছে বলে বক্তারা মন্তব্য করেন।

বক্তারা আরো বলেন, সেনারা এমন সময় পিসিপি নেতৃদ্বয়কে গ্রেফতার করেছে, যখন রমেল চাকমার হত্যাকারী সেনাদের বিচারের দাবি ব্যাপকভাবে উঠেছে। রমেল চাকমার হত্যাকারী সেনাদের রক্ষা এবং আন্দোলনকে দমন করার জন্য কায়েমী সেনাচক্রের ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে এই দুই নেতাকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে বক্তরা মন্তব্য করেন।

বক্তারা আরো বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামে কায়েমী সেনা প্রশাসন চক্রের  ন্যায়বিরুদ্ধ কার্যকলাপের কোন জবাবদিহিতা নেই, বরং তাদের এ কার্যকলাপে ঊর্ধতন কর্তৃপক্ষ ও সরকারের কাছ থেকে ইন্ধন যোগানো হয়। সে কারণে এ চক্রের হাতে পার্বত্য চট্টগ্রামে নিষ্ঠুর পৈশাচিক হত্যাকাণ্ডের মত ঘটনাও সংঘটিত হচ্ছে।

বক্তার আরো বলেন, আইন-নিয়ম-নীতির কোন ধার ধারে না এ চক্র। সংবিধানে ঘোষিত নাগরিক অধিকারের প্রতি এরা প্রতিনিয়ত বৃদ্ধাঙ্গুলি  প্রদর্শন করে।

বক্তারা বলেন, অপরাধের সাথে জড়িত এ সেনা প্রশাসন বার বার পার পাওয়াতে রমেল চাকমার মত নৃশংস হত্যাকাণ্ড সংঘটিত করতে স্পর্ধা দেখিয়েছে জোন কমান্ডার বাহালুল আলম ও মেজর তানভীররা।

সেনা প্রশাসন পার্বত্য চট্টগ্রামে ভয়ানক পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছে উল্লেখ করে বক্তরা বলেন সেনা প্রশাসন রাতে-বিরাতে টহল-তল্লাশি করে প্রতিনিয়ত জনগণের স্বাভাবিক জীবনযাত্রাকে দূর্বিষহ করে তুলেছে। কায়েমী সেনাচক্র যত্রতত্র হানা দিয়ে পার্বত্য চট্টগ্রামে ত্রাস সৃষ্টি করে রেখেছে। সেনা চৌকিতে পথে-ঘাটে  তল্লাশির নামে হয়রানি করে জনগণের চলাফেরার স্বাধীনতাকেও খর্ব করছে।

সমাবেশে বক্তারা অবিলম্বে জুয়েল চাকমা ও রিপন আলো চাকমার নিঃশর্ত মুক্তির দাবি জানান।

উল্লেখ্য গত ২৯ এপ্রিল গভীর রাতে পিসিপি’র পানছড়ি থানাশাখার সভাপতি জুয়েল চাকমাকে পানছড়ি উপজেলা সদর থেকে এবং গতকাল (১ মে) বিকালে পিসিপি রাংগামাটি জেলা শাখার সহসাধারণ সম্পাদক রিপন আলো চাকমাকে নান্যাচরের পাতাছড়ি থেকে সেনাবাহিনী গ্রেফতার করে।

বার্তা প্রেরক –

মেরিন চাকমা

দপ্তর সম্পাদক, পিসিপি, ঢাকা শাখা।

খবরটি শেয়ার করুন

Post Comment