বান্দরবানের লামায় মুরুং সম্মেলন অনুষ্ঠিত

বান্দরবান রিপোর্ট –

বান্দরবানের লামা উপজেলার সরই ইউনিয়নে আলীকদম সেনা জোনের সহযোগিতায় শুক্রবার (৫ মে) সকালে এক মুরুং সম্মেলন অনুষ্টিত হয়েছে।

সম্মেলনে প্রধান অতিথি ছিলেন আলীকদম সেনা জোন কমান্ডার জোন কমান্ডার লে: কর্ণেল মো: মাহাবুবুর রহমান পিএসসি। এসময় আরো ছিলেন, মেজর জিয়াউল হক, চম্পাতলী ক্যাম্প ইনচার্জ ল্যাপ্টেনেন্ট মো: রাশেদ, সাবেক লামা মুরুং কমান্ডার মাংরুম মুরুং, ৪নং কুরুকপাতা ইউপি চেয়ারম্যান ক্রাতপুং ম্রো, সরই ইউপি চেয়ারম্যান ফরিদুল আলম, আলীকদম মুরুং কমান্ডার মেনদন মুরুং, গজালিয়া ইউপি মেম্বার মেথেরু মুরুং, সাবেক মেম্বার মেনওয়াই মুরুং প্রমুখ।

সম্মেলনে বক্তাদের কাছে পাহাড়ি সন্ত্রাসীর বিষয়টি অধিক গুরুত্ব পেয়েছে। বক্তারা বলেন, পাহাড়ি সন্ত্রাসী কর্তৃক অপহরণ, গুম, খুন, সন্ত্রাস, চাঁদাবাজি বেড়ে যাওয়ায় পার্বত্য এলাকায় আরো সেনাবাহিনীর প্রয়োজন।

সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে আলীকদম সেনা জোন কমান্ডার জোন কমান্ডার লে: কর্ণেল মো: মাহাবুবুর রহমান পিএসসি বলেন, দেশের জন্য জাতিভেদ না করে সবাইকে মনে করতে হবে আমরা সবাই বাংলাদেশী। সবার অধিকার একই। কাউকে হিংসা না করে ভালবাসা দিয়ে জয় করে নিতে হবে। এজন্য শিক্ষার আলো সবার মাঝে ছড়িয়ে দেয়ার আহবান জানান তিনি।

সম্মেলনে পাহাড়ে শান্তি প্রতিষ্ঠায় সকল সম্প্রদায়কে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার জন্য আহবান জানানো হয়। বক্তারা বলেন চাঁদাবাজির কারণে আজ সকলে অতীষ্ট। এই সন্ত্রাসীরা জুম্মল্যান্ড প্রতিষ্ঠার ঘোষণা দিয়ে পার্বত্য অঞ্চলে শান্তি হরণ করছে। তাদের কারণে আজ আমাদের অনেকের সন্তানদের লেখাপড়া বন্ধ করে দিতে হয়েছে। চাঁদার জন্য স্কুল নির্মাণ, রাস্তার উন্নয়ন, ব্যবসা-বাণিজ্য বন্ধ করে দিয়েছে অনেকে। অবৈধ আস্ত্রের জোরে আমাদের থেকে চাঁদা নিয়ে চাঁদাবাজরা কোটিপতি হচ্ছে। আর উন্নয়ন কাজে বাঁধা দিয়ে ও শিক্ষার আলো থেকে আমাদের সন্তানদের বঞ্চিত করছে। দ্রুত এই সন্ত্রাসী কার্যক্রম বন্ধ করা না গেলে পূর্বের মত পাহাড় অশান্ত উঠবে।

খবরটি শেয়ার করুন

Post Comment