রাঙ্গামাটির বিলাইছড়িতে ভূমিধস ও বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের কাছে ত্রাণ বিতরণ

রাঙ্গামাটি রিপোর্ট –

প্রাকৃতিক ও মানবসৃষ্ট সকল দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের উন্নয়নে সবাইকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন সাবেক পার্বত্য প্রতিমন্ত্রী দীপংকর তালুকদার। তিনি বলেন, গত ১৩ জুন স্মরণকালের ভূমিধস ও বন্যায় এ জেলার বসবাসরত মানুষের যে পরিমান ক্ষতি হয়েছে তা কাটিয়ে উঠতে সময় লাগবে। এখন ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের পাশে দাড়াঁনোর মোক্ষম সময়। তাই সকল ভেদাভেদ ভুলে সমন্বয়ের মাধ্যমে ক্ষতিগ্রস্তদের কল্যাণে আমাদের এগিয়ে আসতে হবে।

শুক্রবার (৩০ জুন)সকালে রাঙ্গামাটির বিলাইছড়ি উপজেলার ফারুয়া ইউনিয়ন পরিষদ প্রাঙ্গণে ভূমিধস ও বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের ত্রাণ বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে সাবেক প্রতিমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমা, জেলা পরিষদ সদস্য রেমলিয়ানা পাংখোয়া, জেলা আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও দুর্যোগ বিষয়ক সম্পাদক মোফাজ্জল হোসেন মোল্লা, জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য জয়সেন তংচঙ্গ্যা, বিলাইছড়ি উপজেলার ৩নং ফারুয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান বিদ্যালাল তংচঙ্গ্যা, বিলাইছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সুরেশ কান্তি তংচঙ্গ্যা, সহ-সভাপতি রাসেল মারমা, সাধারণ সম্পাদক শেখ শহীদুল ইসলাম’সহ বিলাইছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

সাবেক প্রতিমন্ত্রী বলেন, দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের সহযোগিতা না করে একটি মহল সরকারকে বেকায়দায় ফেলতে নানা রকম মন্তব্য ছড়াচ্ছে। তাদের জ্ঞাতার্থে বলছি, বর্তমান সরকারের প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা পার্বত্যবাসীর প্রতি খুবই আন্তরিক। তাই তিনি দুর্যোগের পর পরই আশ্রয় কেন্দ্রে থাকা পরিবারের খাবার, মৃত ব্যক্তির দাফন কাফন ও সৎকাজ সম্পন্ন করার জন্য মৃত ব্যক্তির পরিবারের কাছে নগদ অর্থ জেলা পরিষদের মাধ্যমে প্রদান করেছেন এবং আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ যে যার সাধ্যমতো ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের সহযোগিতায় নিয়োজিত রয়েছেন। বিদ্যুৎ ও যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন সাধন করেছেন। তিনি বলেন, ইতোমধ্যে সরকারের উচ্চ পর্যায়ের মন্ত্রী ও কর্মকর্তা দুর্যোগের পর পরই ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন করেছেন এবং ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের পুনর্বাসনের জন্য পদক্ষেপ গ্রহণ করছেন। যোগাযোগ ব্যবস্থার দ্রুত উন্নয়নে যোগাযোগ মন্ত্রী এবারে ঈদ উদযাপন না করে সড়ক ব্যবস্থার উন্নয়নে রাঙ্গামাটি এসেছেন। এরপরও ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের উন্নয়নে যা যা করা প্রয়োজন বর্তমান সরকার তাই করবে। তিনি বলেন, বর্তমান সরকার আগেও পার্বত্যবাসীর প্রতি আন্তরিক ছিল বর্তমানেও আছে এবং ভবিষ্যতেও থাকবে।

ত্রাণ বিতরণের আগে সকালে বিলাইছড়িতে ভূমিধস ও বন্যায় বিভিন্ন ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন করেন সাবেক প্রতিমন্ত্রী, রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও অন্যান্য অতিথিরা। পরে বিলাইছড়ি উপজেলার সদর বোট ঘাট, কেংড়াছড়ি ইউনিয়ন তথ্য ও সেবা কেন্দ্র, কেংড়াছড়ি বোট ঘাট ও ফারুয়া ইউনিয়ন পরিষদ প্রাঙ্গণে প্রায় ৫শত পরিবারের কাছে খাদ্যশষ্য, ফলদ চারা বিতরণ করা হয়।

খবরটি শেয়ার করুন

Post Comment