‘ইতি চাকমা খুনের ঘটনাকে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে ব্যবহার করা হচ্ছে’

৬ নভেম্বর ২০১৭

(সংবাদ বিজ্ঞপ্তি)

খাগড়াছড়ি সরকারি কলেজের ছাত্রী ইতি চাকমা হত্যার ঘটনাকে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে ব্যবহার করার মাধ্যমে খুনে জড়িত প্রকৃত অপরাধীদের আড়াল করা হচ্ছে এই দাবি করে আজ সোমবার, ৬ নভেম্বর ২০১৭ বৃহত্তর পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ ও হিল উইমেন্স ফেডারেশন খাগড়াছড়ি জেলা শাখা এক বিবৃতি প্রদান করেছে। খাগড়াছড়ি জেলা শাখার ভারপ্রাপ্ত সভাপতি তপন চাকমা ও সাধারণ সম্পাদক অমল ত্রিপুরা এবং হিল উইমেন্স ফেডারেশনের খাগড়াছড়ি জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক চৈতালী চাকমা উক্ত বিবৃতি প্রদান করেন।

বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, খাগড়াছড়িতে আলোচিত ইতি চাকমা খুনের ঘটনায় সাধারণ ছাত্রকে আটক করার পরে তাদেরকে এই ঘটনায় ‘জড়িত’ বা ‘অপরাধী’ হিসেবে সংবাদ মাধ্যমে ব্যাপক প্রচারের মাধ্যমে প্রশাসন প্রকৃত খুনীদের আড়াল করার মাধ্যমে এই মর্মান্তিক হৃদয় বিদারক ঘটনাকে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে ব্যবহার করছে। আটককৃত সাধারণ ছাত্ররা খুনে জড়িত হিসেবে অপরাধী প্রমাণিত না হবার পরেও তাদেরকে পাহাড়ি ছাত্র সংগঠনের কর্মী হিসেবে প্রচার করা এবং তাদেরকে অপরাধী ও খুনী হিসেবে প্রচার করার মাধ্যমে প্রশাসন বিশেষ স্বার্থ হাসিল করতে চাচ্ছে।

উল্লেখ্য, ইতি চাকমার খুনে জড়িত হিসেবে গত শনিবার দিবাপূর্ব গভীর রাতে রিপেল চাকমা নামে এক কলেজ ছাত্রকে আটক করা হয়। তাকে আটক করার মাস খানেক আগে তুষার চাকমাকে আটক করা হয়েছিল। তারা দু’জনই খাগড়াছড়ি সরকারি কলেজের ছাত্র। তুষার চাকমাকে আটক করে তার উপর অমানুষিক নির্যাতন চালিয়ে ১৬৪ ধারার জবানবন্দি নেয়া হয়েছে। রিপেল চাকমাকে আটকের পরও খাগড়াছড়ি প্রশাসন নানাভাবে এই ঘটনাকে রাজনৈতিক নিপীড়নের হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করছে। এর মাধ্যমে প্রশাসনের প্রতি পার্বত্য চট্টগ্রামের পাহাড়ি-অপাহাড়ি জনগণসহ দেশের সাধারণ জনগণের অবিশ্বাস ও সন্দেহ ঘনীভূত হচ্ছে বলে নেতৃবৃন্দ উক্ত বিবৃতিতে জোর অভিযোগ করেন।

নেতৃবৃন্দ আরো বলেন, এই হত্যার পেছনে যে বা যারাই জড়িত থাকুক না কেন তাকে বা তাদের গ্রেপ্তার করে বিচারের আওতায় অবশ্যই আনা দরকার। কিন্তু এই হত্যার ঘটনাকে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে ব্যবহার করা জনগণ কোনোমতেই মেনে নেবে না এবং প্রয়োজন হলে ছাত্র-জনতা এই অন্যায় অবিচার ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে ব্যাপক প্রতিবাদ বিক্ষোভ সংঘটিত করবে। এই ঘটনাকে নিয়ে বা এই ধরনের ষড়যন্ত্র করে পাহাড়ের নিপীড়িত জনগণের প্রতিনিধিত্বকারী সংগঠন ও নেতাকর্মীদের উপর হামলা মামলা বরদাস্ত করা হবে না বলে নেতৃবৃন্দ বিবৃতির মাধ্যমে জোরালো হুশিয়ারি ব্যক্ত করেন।

উল্লেখ্য, গত ফেব্রুয়ারি খাগড়াছড়ির বাঙালি অধ্যুষিত আরাম্বাগ এলাকায় তার ভগ্নিপতির ভাড়া বাসায় ইতি চাকমা নির্মমভাবে খুন হন। ইতি চাকমা খুন হবার পরে এই খুনের প্রতিবাদে ব্যাপক প্রতিবাদ বিক্ষোভ সংঘটিত হয়। খুনের ঘটনায় জড়িত সন্দেহে দুইজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারকৃত রুবেল নামে একজনের কাছ থেকে ইতি চাকমার ব্যবহৃত মোবাইল পাওয়া যায় বলে আটকের সময় প্রশাসন জানিয়েছিল। তারা হত্যাকান্ডে সাথে প্রকৃত জড়িত কী না এ বিষয়ে প্রশাসন কোনো কিছুই জানায়নি।

বার্তা প্রেরক,

(সমর চাকমা)
দপ্তর সম্পাদক
পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ
খাগড়াছড়ি জেলা শাখা।

খবরটি শেয়ার করুন

Post Comment