দুই মারমা কিশোরীকে ধর্ষণের প্রতিবাদে কুদুকছড়িতে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ

প্রেস বিজ্ঞপ্তি –


রাঙ্গামাটির বিলাইছড়িতে অরাছড়ি গ্রামে সুবেদার মিজানের নেতৃত্বে দুই মারমা কিশোরীকে ধর্ষণের প্রতিবাদে এবং ধর্ষক সেনা সদস্যদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে রাঙ্গামাটির কুদুকছড়িতে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে বৃহত্তর পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ, হিল উইমেন্স ফেডারেশন ও গণতান্ত্রিক যুব ফোরাম রাঙ্গামাটি জেলা শাখা। পূর্ণ স্বায়ত্তশাসনই পার্বত্য চট্টগ্রামের একমাত্র রাজনৈতিক সমাধান এই স্লোগানকে সামনে রেখে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশটি করা হয়।

২৪ জানুয়ারি ২০১৮, দুপুর ১:৩০ ঘটিকার সময় বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশটি বড় মহাপূরম উচ্চবিদ্যালয় গেইট হতে শুরু করে বাজার ঘুরে এসে সমাবেশের মধ্যে দিয়ে ইউপিডিএফের কার্যালয়ের সামনে শেষ হয়।

সমাবেশে হিল উইমেন্স ফেডারেশন রাঙ্গামাটি জেলা সহ-সভাপতি রূপসী চাকমার সভাপতিত্বে ,হিল উইমেন্স ফেডারেশন রাঙ্গামাটি জেলার সাধারণ সম্পাদক দয়াসোনা চাকমার সঞ্চালনায় সামাবেশে বক্তব্য রাখেন, পার্বত্য চট্টগ্রাম নারী সংঘ কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক কাজলী ত্রিপুরা, গণতান্ত্রিক যুব ফোরাম রাঙ্গামাটি জেলা আহ্বায়ক ধর্মশিং চাকমা, পিসিপি রাঙ্গামাটির জেলা শাখার সভাপতি কুনেন্টু চাকমা।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, গত ২২ জানুয়ারি দিবাগত রাতে সেনাবাহিনী বিলাইছড়ি অরাছড়ি গ্রামে দুই মারমা কিশোরীকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। সেনাবাহিনীরা নিরাপত্তা নামে পার্বত্য চট্টগ্রামে সামরিক দমন-পীড়ন চালিয়ে পাহাড়ি নারীদের উপর শ্লীলতাহানি, ধর্ষণ, হত্যাসহ নানা মানবতা বিরোধী অপকর্মের তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে। পার্বত্য চট্টগ্রামে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অগণতান্ত্রিক ১১ নির্দেশনা জারির পরপরই আন্দোলনরত ইউপিডিএফ নেতাকর্মীদের অন্যায়ভাবে গ্রেফতার এবং হয়রানি করছে। সেই ধারাবাহিকতায় নব্বই দশকের মত আবারও নব্য মুখোশ বাহিনী সৃষ্টি করে পাহাড়িদের ন্যায্য অধিকারের জন্য অন্দোলনরত সংগঠন ইউপিডিএফকে ধ্বংস করার পায়তারা চলছে।

বক্তারা,অবিলম্বে ধর্ষণকারী সেনা সদস্যদের গ্রেফতার করে শাস্তির দাবি জানান।

বার্তা প্রেরক,
সুমন চাকমা
তথ্য ও প্রচার সম্পাদক, পিসিপি
রাঙ্গামাটি জেলা শাখা।

খবরটি শেয়ার করুন

Post Comment