রাঙ্গামাটি রাঙাতে আসছে দেশের জনপ্রিয় ব্যান্ড সোলস্

রাঙ্গামাটি রিপোর্ট –


কালের পরিক্রমায় নতুন বছরকে স্বাগত জানানোর মাধ্যমে বিগত ২৪ বছরের ন্যায় এ বছরও রাঙ্গামাটির মাঝেরবস্তী বাংলা নববর্ষ উদযাপন পরিষদের ২৫ বছর পূর্তি (রজত জয়ন্তী) উদযাপনের লক্ষ্যে সংগঠনটি বর্ণাঢ্য এবং জমকালো আয়োজনের প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে। এরই মধ্যে চলছে মাঠ সংস্কার ও মঞ্চ নির্মাণের কাজ।

বুধবার (১১ এপ্রিল) সকালে শহরের শাহ বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে অনুষ্ঠান স্থলের মঞ্চ তৈরির কাজ পরিদর্শনে যান নববর্ষ উদযাপন পরিষদের উপদেষ্টা ও রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ সদস্য স্মৃতি বিকাশ ত্রিপুরা, অমিত চাকমা রাজু, বরুন বিকাশ দেওয়ান’সহ গণ্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ। এ সময় মাঝেরবস্তী বাংলা নববর্ষ উদযাপন পরিষদের আহ্বায়ক নিরুপম ত্রিপুরা, অর্থ সম্পাদক সুমন বিকাশ ত্রিপুরা, সদস্য সচিব অপু শ্রীং লেপচা’সহ কমিটির অন্যান্য সদসরা উপস্থিত ছিলেন।

পরিদর্শন শেষে নববর্ষ উদযাপন পরিষদের উপদেষ্টা স্মৃতি বিকাশ ত্রিপুরা জানান, গত ২৪ বছর আগে যে চেতনা নিয়ে আমরা এ অনুষ্ঠান শুরু করেছিলাম সেটা হচ্ছে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে সামনে রেখে একটি অসাম্প্রদায়িক সমাজ বিনির্মাণ করা। তিনি বলেন, পার্বত্য অঞ্চলে যেহেতু ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর বসবাস সেহেতু ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী ও বাংলাদেশের অপরাপর সংষ্কৃতির একটা সম্মিলন ঘটিয়ে সম্প্রীতির মধ্য দিয়ে শান্তিপূর্ণ সমাজ নিশ্চিত করাটাই ছিল আমাদের লক্ষ্য। তিনি আরো বলেন, এ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে সকল জাতি গোষ্ঠীর সম্মিলন ঘটিয়ে পার্বত্য চট্টগ্রামের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি যাতে অটুট থাকে এবং এটার পাশপাশি সারা বাংলাদেশের সংস্কৃতির সম্মিলন ঘটিয়ে আমরা যাতে একটি আলোকিত বাংলাদেশ বিনির্মাণ করতে পারি এটাই এ সংগঠনটি কামনা করে। আমরা মনে করি আমাদের উদ্দ্যেশ্য অনেকটা সফল হয়েছে।

নববর্ষ উদযাপন পরিষদের উপদেষ্টা অমিত চাকমা রাজু বলেন, পার্বত্য অঞ্চলে বিজু ও নববর্ষ উপলক্ষে এ সংগঠনটি বিগত ২৪ বছর ধরে এ অনুষ্ঠানটি করে আসছে। এটাকে অনুস্মরণ করে পার্বত্য অঞ্চলে বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠন বিভিন্ন ধরনের আচার অনুষ্ঠানের আয়োজন করছে। সেজন্য আমি মনে করি আমরা সফল হয়েছি।

নববর্ষ উদযাপন পরিষদের আহ্বায়ক নিরুপম ত্রিপুরা বলেন, এবারের অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের ব্যান্ড দলকে জয়প্রিয় করার ক্ষেত্রে যে ব্যান্ড দলগুলোর অবদান রয়েছে তাদের মধ্যে সোলস এর অন্যতম। এ অনুষ্ঠানকে সফল করার জন্য আমরা এবারে সোলসকেই আনছি। আশা রাখছি এ ব্যান্ড দলটি আগত দর্শকদের মনের প্রত্যাশা অনুযায়ী সঙ্গীত পরিবেশন করবে।

নববর্ষ উদযাপন পরিষদের অর্থ সম্পাদক সুমন বিকাশ ত্রিপুরা বলেন, বিগত ২৪ বছর ধরে এ অনুষ্ঠানটি সফলতার সাথে করে করে আসছি। এটি এখন আমাদের ঐতিহ্যে পরিণত হয়েছে। এটি সকল ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে মিলন মেলাতে রূপ নেয়। এই ঐতিহ্যকে ধরে রাখতে তিনি সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।

নববর্ষ উদযাপন পরিষদের সদস্য সচিব অপু শ্রীং লেপচা বলেন, ইতোমধ্যে মাঠ সংস্কার ও মঞ্চ নির্মাণের কাজ সুষ্ঠুভাবে চলছে। তিনি বলেন, রাঙ্গামাটিবাসী আমাদের এই অনুষ্ঠানটিকে ঘিরে অনেক কিছুই প্রত্যাশা রাখে। কারণ রাঙ্গামাটিতে নববর্ষে ব্যান্ড দলের আগমন এই সংগঠনটিই শুরু করেছিল। আমরাও তাদের প্রত্যাশা পূরণের চেষ্ঠা করছি। অনুষ্ঠানটি সফল করতে তিনি জেলা ও পুলিশ প্রশাসন এবং সামাজিক সাংস্কৃতিক, সাংবাদিক’সহ সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।

উল্লেখ্য, বাংলা নববর্ষ ১৪২৫ উপলক্ষে সংগঠনটি ২রা বৈশাখ সকালে রাঙ্গামাটি পৌরসভা চত্বর থেকে শুরু হয়ে মাঝেরবস্তী শাহ বহুমূখী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠ পর্যন্ত বর্ণাঢ্য র‌্যালি ও যেমন খুশী তেমন সাজো, পান্তা ভাত বিতরণ, বিকেলে আলোচনা সভা ও সন্ধ্যায় সাংষ্কৃতিক অনুষ্ঠানে পাহাড়ি শিল্পীদের ঐতিহ্যবাহী নৃত্য এবং শেষে সঙ্গীত পরিবেশন করবে দেশের জনপ্রিয় ব্যান্ড দল সোলস্।

খবরটি শেয়ার করুন

Post Comment