খাগড়াছড়িতে দুই ছাত্রসহ তিন পাহাড়িকে আটকের নিন্দা ও প্রতিবাদ

৬ জুন ২০১৮
বিবৃতি –


বৃহত্তর পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ (পিসিপি) খাগড়াছড়ি জেলা শাখার সভাপতি তপন চাকমা ও সাধারণ সম্পাদক অমল ত্রিপুরা সংবাদ মাধ্যমে প্রদত্ত এক বিবৃতে খাগড়াছড়ি জেলা সদর উপজেলা ভাইবোনছড়া ইউনিয়নের পাকুজ্যাছড়ি এলাকায় অস্ত্র উদ্ধারের নাটক সাজিয়ে দুই ছাত্রসহ তিন জন পাহাড়িকে আটকের ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন এবং অবিলম্বে আটককৃতদের নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করেছেন।

বিবৃতিতে নেতৃদ্বয় অভিযোগ করে বলেন, গতকাল মঙ্গলবার ৫ জুন ২০১৮ রাত সাড়ে ৯ টায় উপজেলা সদর ভাইবোনছড়া ইউনিয়ন পাকুজ্যাছড়ি এলাকায় প্রবেশ করে তথাকথিত অভিযানের নামে একটি বিশেষ বাহিনী পাহাড়িদের বাড়ী ঘরে তল্লাশি চালায়। এসময় অস্ত্র উদ্ধার নাটক সাজিয়ে  বিশেষ বাহিনীর সদস্যরা পাকুজ্যাছড়ি গ্রামে বাসনা চাকমার ছেলে খাগড়াছড়ি সরকারি কলেজের বিএ ১ম বর্ষের ছাত্র আনতন চাকমা (২০), পরবিন্দু চাকমার ছেলে টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজে দশম শ্রেনী ছাত্র বিবরণ চাকমা (১৫) ও শশী চাকমার ছেলে চিরণ জিৎ চাকমা (৪৫) আটক করে খাগড়াছড়ি জেলা সদর থানায় হস্তান্তর করে। তল্লাশির সময়ে সংস্কারপন্থী যুব সমিতি উপজেলা সভাপতি দীপন আলো চাকমার নেতৃত্বে ১২ জন সংস্কারপন্থী বিশেষ বাহিনীর সাথে দেখা গেছে বলে এলাকাবাসীরা জানিয়েছেন।

নেতৃদ্বয় আরো অভিযোগ করে বলেন, বর্তমান ফ্যাসিস্ট সরকার রাজনৈতিক কর্মীদের ধ্বংস করতে কৌশল হিসেবে পাহাড় ও সমতলে তার পেটুয়া বাহিনীদের ব্যবহার করছে। সেই পেটুয়া বাহিনী সদস্যরা নিরীহ জনগণকে হত্যা-গুম-খুন-অপহরণের মত জঘন্য কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে । এইসব ঘটনায় রাজনৈতিক কর্মীসহ সাধারণ জনগণকে হয়রানির শিকার হতে হচ্ছে। সরকার এসব বাহিনী সদস্যদের অনৈতিক ও অন্যায় বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা না নিয়ে তাদেরকে আশ্রয় দিয়ে যাচ্ছে। পার্বত্য চট্টগ্রামে তথাকথিত যৌথ অভিযানের নামে সেনা-প্রশাসন নিরীহ পাহাড়ি জনগণের বাড়ী-ঘরে তল্লাশি-হয়রানি-নির্যাতন-নিপীড়ন, অস্ত্র গুঁজিয়ে দিয়ে অথবা অস্ত্র উদ্ধারের নাটক সাজিয়ে নিরীহ মানুষদের গ্রেফতার বাণিজ্য শুরু করেছে। তাদের সাথে যুক্ত হয়েছে পাহাড়িদের একটি প্রতিক্রিয়াশীল চক্র। সেই চক্রটি তথাকথিত আঞ্চলিক রাজনৈতিক দলের লেভাসে সেনা-সরকার-প্রশাসনের সাথে আতাত করে জনগণকে অতীষ্ট করে তুলছে এবং জনগণের উপর অত্যাচার চালাচ্ছে। গতকালকে পাকুজ্যাছড়ি, পানছড়ি ও এর আগে চট্টগ্রাম-ঢাকাসহ কয়েকটি স্থানে পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ ও গণতান্ত্রিক যুব ফোরামের কর্মীদের বিনা ওয়ারেন্টে আটকের ঘটনায় তাদের উপস্থিতি থাকা উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত।

নেতৃবৃন্দ, পার্বত্য চট্টগ্রামের জনগণের অধিকার প্রতিষ্ঠা আন্দোলনকামী ও শাসক গোষ্ঠীর সকল ধরনের অন্যায় অত্যাচারের বিরুদ্ধে সোচ্চার পার্বত্য চট্টগ্রামের জনগণের মহান পার্টি ইউপিডিএফ ও তার সহযোগী সংগঠন তথা জনগণের আন্দোলনকে দমন করতে শাসক গোষ্ঠী একের পর এক নানান ষড়যন্ত্র চালিয়ে যাচ্ছে। তাদের এই সকল ধরনের অন্যায়-অত্যাচার ও রাজনৈতিক দমন-পীড়নের বিরুদ্ধে এবং জাতীয় প্রতিক্রিয়াশীল গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে ছাত্র-যুব-সমাজসহ সকল শ্রেণী মানুষকে রুখে দাঁড়িয়ে প্রতিবাদ ও প্রতিরোধ সংগ্রাম গড়ে তুলার জন্য আহ্বান জানান।

বিবৃতি থেকে নেতৃদ্বয়, পার্বত্য চট্টগ্রামে যৌথবাহিনী ও সমতলে মাদক বিরোধী অভিযান নামে সাধারণ জনগণের বাড়ী ঘরে তল্লাশি-হয়রানি-নির্যাতন-লুটপাত ও গ্রেফতার বাণিজ্য বন্ধ এবং পার্বত্য চট্টগ্রামের সেনা ক্যাম্প স্থাপন প্রক্রিয়া বাতিলসহ অবিলম্বে অন্যায়ভাবে আটককৃত দুই ছাত্রসহ নিরীহ তিন জন পাহাড়ির নিঃশর্ত মুক্তির দাবি জানান।

বার্তা প্রেরক

সমর চাকমা
দপ্তর সম্পাদক,
পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ (পিসিপি)
খাগড়াছড়ি জেলা শাখ।

খবরটি শেয়ার করুন

Post Comment