তৃতীয় মত

এই ডিসেম্বরে দুটি বিজয় দিবস দেখতে চাই

  আবদুল গাফ্ফার চৌধুরী –

বিজয় দেখেছিলাম ৪৭ বছর আগে ১৯৭১ সালে সেটা ছিল রণক্ষেত্রের বিজয় রাজনৈতিক বিজয় নয় বিদেশি গবেষকরাও তাই বলেছেন, এটা অসমাপ্ত যুদ্ধ কারণ শত্রুপক্ষ রণাঙ্গনে হেরেছে কিন্তু রাজনৈতিক ক্ষেত্রে টিকে আছে সুযোগ পেলেই আবার মাথা তুলবে এই মাথা তুলতে তাদের সময় লেগেছে মাত্র সাড়ে তিন বছর

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট এই বিজয় অপহৃত হয়। তারপর তেতাল্লিশ বছর ধরেই যুদ্ধ চলছে। রাজনৈতিক যুদ্ধ। একাত্তরের বিজয়ীদের কখনও পরাজয়, কখনও জয়

রণাঙ্গনের যুদ্ধের এখন দরকার নেই। কারণ স্বাধীনতার শত্রুপক্ষের হানাদার মিত্ররা রণাঙ্গনের যুদ্ধে পরাজিত এবং বিতাড়িত। কিন্তু দিয়ে গেছে স্বাধীনতার শত্রুপক্ষকে তাদের বিষমন্ত্র। এই বিষমন্ত্রের জোরে এই শত্রুরা শুধু টিকে থাকা নয়, দলভারি করেছে, মানুষকে বিভ্রান্ত করে কখনও কখনও ক্ষমতা দখল করেছে। রূপকথার রাক্ষসীর মতো রূপসী নারীর রূপ ধারণ করে বলেছে, তোমরা স্বাধীনতা পেয়েছ বটে, গণতন্ত্র পাওনি। আমরা তোমাদের গণতন্ত্র দেব

তারপর একে একে তারা স্বাধীনতার প্রতিটি স্তম্ভ ভাঙার চেষ্টা করেছে। স্বাধীনতার স্থপতির নাম ইতিহাস থেকে মুছে ফেলার প্রয়াস চালিয়েছে। স্বাধীনতার ইতিহাস বিকৃত করেছে। এর বহুকাল পর দেশের বহু মানুষের বিভ্রম কেটেছে। তারা বুঝতে পেরেছে, স্বাধীনতা ছাড়া তো গণতন্ত্র অর্থহীন। ব্রিটিশ শাসনেও তো গণতন্ত্র ছিল

তখনকার ইউনিয়ন বোর্ড থেকে জেলা বোর্ড, জেলা বোর্ড থেকে প্রাদেশিক পরিষদ কেন্দ্রীয় আইনসভাসব ক্ষেত্রে অবাধ সুষ্ঠু নির্বাচন হতো। জনপ্রতিনিধিরা ক্ষমতায় গিয়ে বসতেন। সেটা নামের ক্ষমতা। আসন ক্ষমতা থাকত বড় লাট ছোট লাটের হাতে

পাকিস্তান আমলে স্বৈরাচারী আইয়ুবও দেশের মানুষকে গণতন্ত্র দেয়ার কথা বলেছিল। সে গণতন্ত্রের নাম মৌলিক গণতন্ত্র। জাস্টিস কায়ানীর ভাষায়সে গণতন্ত্র না ছিল মৌলিক, না গণতন্ত্র। আইয়ুবের এই গণতন্ত্রেও সদস্যরা অবাধ ভোটে নির্বাচিত হতো। কিন্তু তাদের কোনো ক্ষমতা ছিল না

তাদের মাথার ওপর বসিয়ে রাখা হতো এক সিও, ডেভকে (সার্কেল অফিসার, ডেভেলপমেন্ট) তার হাতে থাকত সর্বময় ক্ষমতা, সব আর্থিক ব্যবস্থাপনা। দুর্নীতিতে সারা দেশ ভরে গিয়েছিল। বাংলাদেশ (তখনকার পূর্ব পাকিস্তান) হয়েছিল নিদারুণ বঞ্চনার শিকার

বাংলাদেশের মানুষ তখন হাড়ে হাড়ে বুঝতে পেরেছিল, কেবল নির্বাচন আর ভোটাধিকারই মানুষকে গণতান্ত্রিক অধিকার দেয় না। গণতান্ত্রিক অধিকারের জন্য চাই পূর্ণ স্বাধীনতা। স্বাধীনতা ছাড়া গণতন্ত্র অর্থহীন। তাই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭১ সালের মার্চ রেসকোর্স ময়দানে দাঁড়িয়ে প্রথমে ডাক দিলেন স্বাধীনতা যুদ্ধের। তারপর ২৬ মার্চ ঘোষণা করলেন দেশের স্বাধীনতা

এই স্বাধীনতার জন্য প্রথমে শুরু হল অহিংস অসহযোগ আন্দোলন। তারপর তা পরিণত হল সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধে। পুরনো কাসুন্দি ঘেঁটে লাভ নেই। এই ইতিহাস সবাই জানেন। দেশ স্বাধীন হল, গণতন্ত্রও এলো। কিন্তু গোড়াতেই স্বাধীনতার পক্ষের শক্তি যে ভুলটা করল তা হল, রণাঙ্গনের যুদ্ধে জয়ী হয়ে তারা ভাবলেন, এটা তাদের চূড়ান্ত জয়

রণাঙ্গনের পরাজিত শত্রুরা যে রাজনৈতিকভাবে পরাজিত হয়নি, রাজনৈতিক শক্তি হিসেবে নিশ্চিহ্ন হয়নি এবং জনমানসের একটা বিরাট অংশকে তাদের রাজনৈতিক প্রভাব থেকে মুক্ত করা হয়নি, এটা হিসেবে না রেখে স্বাধীনতার পক্ষের শক্তি দেশ পরিচালনা করতে চেয়েছে। দেশের স্বাধীনতার দুর্গ যে অরক্ষিত এটা তারা চিন্তাভাবনায় আনেনি

এর সুযোগ নিয়ে স্বাধীনতার শত্রুপক্ষ দ্রুত সংগঠিত হয়েছে। তাদের সঙ্গে হাত মিলিয়েছে স্বাধীনতার শিবিরেরই একটা গ্রুপ খোন্দকার মোশতাকের নেতৃত্বে। হাত মিলিয়েছে সেনাবাহিনীর জিয়াউর রহমান প্রমুখ কতিপয় উচ্চাভিলাষী অফিসার। ক্ষমতাসীন সরকার ভারতের দালাল, ইসলামের শত্রু ধুয়া তুলে মসজিদ মাদ্রাসাগুলোকে উত্তেজিত করে তোলা হয়েছে

প্রশাসনিক অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে শুরু হয়েছে পরিকল্পিত সাবোটাজ।ম্যান সেরু মিয়াদেরমতো লুটেরাদের আবির্ভাব ঘটেছে দেশে

এই অবস্থায় সাড়ে তিন বছরও আমরা স্বাধীনতার দুর্গ গড়তে পারিনি।সৈনিকের রণদণ্ড দেখা দিল রাজদণ্ডরূপে পোহালে শর্বরী-’ স্বাধীনতার পক্ষ রাজনৈতিক যুদ্ধে পরাজিত হল, সুতরাং বাস্তবে স্বাধীনতার প্রথমদিকে আমরা ১৬ ডিসেম্বরের বিজয় দিবস পালন করেছি মাত্র তিন বছর। ১৯৭২, ১৯৭৩ এবং ১৯৭৪ সাল

তারপর স্বাধীনতার পক্ষের মিত্রদের জয়কে ধ্বংস করে বিজয় দিবস নামেমাত্র রইল। মীরজাফরের মতো শিখণ্ডী মোশতাকও শেষ পর্যন্ত ক্ষমতা থেকে অপসারিত হলেন। কালো চশমাধারী এক মেজর থেকে জেনারেল হওয়া সেনাপুরুষ ধীরে ধীরে অবগুণ্ঠনের আড়াল থেকে এলেন ক্ষমতায়

তিনিও স্বাধীনতার মূল ভিত্তিগুলোকে ধ্বংস করে দেশের মানুষকে গণতন্ত্র দিতে চাইলেন। তার গণতন্ত্রে একটি পার্লামেন্ট রাখা হল, তাতে বিরোধী দল রইল। কিন্তু আইয়ুবের পার্লামেন্টের মতোই এই পার্লামেন্টেও বিরোধী দলের কোনো ক্ষমতা অধিকার ছিল না। না আইন পাসের, না সরকারের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব আনার। বাকস্বাধীনতা, ভিন্নমত পোষণের স্বাধীনতা তো ছিলই না

এক দেশদ্রোহী রাজাকারকে তিনি প্রধানমন্ত্রী বানালেন। ব্যাংকের দরজা খুলে দিলেন লুটেরা নব্যধনী তৈরির জন্য। পাকিস্তান থেকে ফিরিয়ে আনলেন একাত্তরের যুদ্ধাপরাধী এবং ঘাতক দালালদের নেতাকে। জিয়াউর রহমানের আজব গণতন্ত্রের ঘোড়ায় চড়ে ভুয়া রাজনীতিকরা রাজনীতির মাঠ ভরে ফেলল

আসল রাজনীতিকরা রাজনীতি ত্যাগে বাধ্য হলেন। সেনাপ্রধান জিয়াউর রহমানের স্ত্রী খালেদা জিয়া অবশ্য নির্বাচনের ঘোড়াতে চড়েই ক্ষমতায় এলেন। কিন্তু তার আমলে স্বাধীনতার মূল আদর্শগুলো আরও ক্ষুণ্ণ হল। তার অনেক মন্ত্রী, যারা বিজয় দিবসে তাদের গাড়িতে স্বাধীনতার পতাকা ওড়ালেন, তারা৭১ সালে এই পতাকা পদদলনকারী রাজাকার এবং ঘাতক

ঘাতকচক্র দ্বারা পরিবৃত একটি আধা স্বৈরাচারী সরকার বা সরকারগুলোকে ক্ষমতা থেকে হটাতে লেগেছে একুশ বছর। তার জন্য জনগণকে আন্দোলন করতে হয়েছে, রক্ত দিতে হয়েছে। আন্দোলনে অনেক নেতাকেও প্রাণ দিতে হয়েছে। আন্দোলনের নেত্রী শেখ হাসিনাকে ভয়াবহ গ্রেনেড হামলায় নিশ্চিত মৃত্যুর কবল থেকে বেঁচে আসতে হয়েছে

স্বাধীনতার পক্ষের শক্তি এখন ক্ষমতায়। কিন্তু বিপদমুক্ত নয়। একাত্তরের পরাজিত শক্তি এখন আরও দলভারি করেছে। রাজনীতির মাঠ থেকে জনগণ কর্তৃক প্রত্যাখ্যাত ছোটবড় ব্যর্থ রাজনীতিকদের তারা দলে টানছে

এদের মুখেও স্লোগানদেশে গণতন্ত্র নেই, তারা দেশের মানুষকে গণতন্ত্র দেবেন। এই গণতন্ত্রের চেহারা দেশের মানুষ জিয়াউর রহমানের আমল থেকে খালেদা জিয়ার আমল পর্যন্ত দেখেছে। বিএনপির অভিধানে আন্দোলনের অর্থ হচ্ছে হত্যা, সন্ত্রাস, পেট্রলবোমায় মানুষ মারা এবং গণতন্ত্রের অর্থ হচ্ছে অবাধ লুটপাটের রাজত্ব। এইগণতন্ত্রেরকবল থেকে দেশের স্বাধীনতাকে উদ্ধারের কাজে আওয়ামী লীগ স্বাধীনতার পক্ষের শক্তির একুশ বছর লেগেছে। কিন্তু এখনও তারা চূড়ান্ত যুদ্ধে জয়ী হয়নি। একাত্তরের পরাজিত শত্রু এখনও নবনব খোলসে রাজনৈতিক যুদ্ধে লিপ্ত

মুখে সেই পুরনো বুলিজিয়াউর রহমান দেশেবহুদলীয় গণতন্ত্রপ্রতিষ্ঠা করেছিলেন, এখন তাদের নেতা তারেক রহমান বিদেশে আশ্রিত, তারা অস্থায়ী নেতা . কামাল হোসেনের নেতৃত্বে গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠার যুদ্ধে লিপ্ত। এই যুদ্ধ হচ্ছে ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচন

এবারের যুদ্ধটা তাই রাজনৈতিক যুদ্ধ। তবে দুই গণতান্ত্রিক জোটের মধ্যে নয়। এটা স্বাধীনতার পক্ষ বিপক্ষের শক্তির মধ্যে একাত্তরের অসমাপ্ত যুদ্ধ। এই যুদ্ধে আওয়ামী লীগ জোটের জয় হলে বাংলাদেশের স্বাধীনতা গণতন্ত্র দুই রক্ষা পাবে। আর একাত্তরের পরাজিত শক্তি জয়ী হলে বাংলাদেশ স্বাধীনতা গণতন্ত্র দুই হারাবে। প্রতিপক্ষ যে গণতন্ত্রের মুখোশ ধারণ করেছে, তা দেখা যাবে নেকড়ের বিড়ালের চেহারা ধারণ

আমার বিশ্বাস, ৪৭ বছর আগে আমরা যে বিজয় অর্জন করেছি, যে বিজয় দিবস পালন করেছি, সেই বিজয় দিবস সত্যিকার অর্থে বিজয় দিবস হয়ে উঠবে যদি এবার একাত্তরের সেই অসমাপ্ত যুদ্ধের চূড়ান্ত পর্যায়ে বিজয়ী হওয়া যায়

সেই চূড়ান্ত পর্যায়ের (রাজনৈতিক) যুদ্ধ ৩০ ডিসেম্বরের সাধারণ নির্বাচন। দুদিকেই সাজসাজ রব। জয়পরাজয় অনিশ্চিত। এই অনিশ্চয়তার মধ্যেই বছরের ১৬ ডিসেম্বর আমরা বিজয় দিবস পালন করব। তার দুসপ্তাহ পরেঅর্থাৎ ৩০ ডিসেম্বর নির্বাচন বা রাজনৈতিক যুদ্ধের ফলাফল দেখে নিশ্চিত হতে পারব, আগামী বছরের আগেই এই চূড়ান্ত রাজনৈতিক যুদ্ধে জয়ী হয়ে আমরা আগাম আরেকটি বিজয় দিবস পালন করতে পারব কিনা

রাজাকার নব্যরাজাকারদের গাড়িতে আবার বাংলার মানুষ বিজয় দিবসে স্বাধীন বাংলার পতাকা উড়তে দেখবে এটা নিশ্চয়ই তারা আশা করে না, তাতে ত্রিশ লাখ শহীদের আত্মদানকেও অসম্মান করা হবে। এবার ডিসেম্বরের শেষে স্বাধীনতার পক্ষের জোটের আরেকটি বিজয় দিবস দেখতে চাই। – যুগান্তর

লন্ডন, ডিসেম্বর, রোববার, ২০১৮

খবরটি শেয়ার করুন

Post Comment