রাঙ্গামাটিতে জেলা উন্নয়ন কমিটির সভা অনুষ্ঠিত

প্রেস রিপোর্ট –

রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমা বলেছেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু ও তার সুযোগ্য কন্যা বর্তমান সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের গণমানুষের কল্যাণে ২০৪১ সালের মধ্যে ক্ষুধা ও দারিদ্রমুক্ত উন্নত দেশ রূপান্তরের যে স্বপ্ন দেখছেন তা বাস্তবায়নে আমাদের সকলকে আরো আন্তরিক হতে হবে। তিনি বলেন, যার যার অবস্থান থেকে সকলে সৎ নিষ্ঠা ও আন্তরিকতার সাথে কাজ করলে এ দেশ সোনার বাংলাদেশে রূপান্তর হতে বেশী সময় লাগবে না।

রবিবার (২৭ জানুয়ারি) সকালে রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ সভাকক্ষে অনুষ্ঠিত জেলা উন্নয়ন কমিটির মাসিক সভায় সভাপতির বক্তব্যে চেয়ারম্যান এসব কথা বলেন।

রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা ছাদেক আহমদ এর পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদের সদস্য নুরুল আলম, জাতীয় মহিলা সংস্থার রাঙ্গামাটি জেলার সভানেত্রী ও জেলা পরিষদ সদস্য মনোয়ারা আক্তার জাহান, জেলা পরিষদের নির্বাহী প্রকৌশলী ক্য হ্লা খই, সিভিল সার্জন ডা: শহীদ তালুকদার’সহ জেলার বিভিন্ন বিভাগীয় প্রধানগণ উপস্থিত ছিলেন।

সভায় পরিষদের চেয়ারম্যান বলেন, সরকার আমাদের নিয়োগ দিয়েছেন জনকল্যাণের স্বার্থে কাজ করার লক্ষ্যে। উপকারিতার মনোভাব ও নীতি সঠিক রেখে আমাদের সেভাবে কাজ করে যেতে হবে। তিনি বলেন, সমতলের চাইতে পার্বত্য অঞ্চলের মানুষরা শিক্ষা, স্বাস্থ্য, কৃষি’সহ বিভিন্ন বিষয়ে এখনো পিছিয়ে রয়েছে। এই পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীকে এগিয়ে নিতে আমাদের নিরলসভাবে কাজ করতে হবে।

সভায় আঞ্চলিক পরিষদের সদস্য নুরুল আলম বলেন, রাঙ্গামাটি হ্রদ সৃষ্টির ফলে এ জেলার অনেক মানুষকে ঘর-বাড়ী, জমি ত্যাগ করতে হয়েছে। তাই প্রতিটি এলাকায় বিদ্যুৎ প্রদানের জন্য অনুরোধ জানান তিনি। তিনি বলেন, প্রতি বছর শুষ্ক মৌসুম এলেই নদী পথে চলাচল করা খুব কষ্টসাধ্য হয়ে পড়ে। তাই দ্রুত হ্রদ ড্রেজিংয়ের বিষয়টি মন্ত্রণালয়ে উপস্থাপনের মাধ্যমে বিষয়টি কার্যকর করার জন্য পরিষদ চেয়ারম্যানের প্রতি অনুরোধ করেন তিনি।

রাঙ্গামাটি জেলা পুলিশের প্রতিনিধি ওসি মো: আইয়ুব বলেন, বিগত ৩০ ডিসেম্বর জাতীয় সংসদ নির্বাচন সম্পন্ন করতে আইন শৃংখলা বাহিনী যথাযথ দায়িত্ব পালন করে গেছে। জেলায় কোন রকমের অস্বাভাবিক পরিস্থিতি, মাদক কেনা বেচা, চাঁদাবাজি, সন্ত্রাসী কার্যক্রম পরিলক্ষিত হলে আইন-শৃংখলা বাহিনীকে অবগত করার অনুরোধ জানান তিনি।

সভায় শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের উপ সহকারী প্রকৌশলী সুরজিৎ কুমার শর্মা বলেন, রাঙ্গামাটি সরকারি কলেজের একাডেমিক ভবনের ৫ম তলার ছাদ ঢালাইয়ের কাজ সম্পন্ন হয়েছে এবং অন্যান্য কাজগুলোও যথারীতি চলছে। তিনি বলেন, কলেজের সীমানা প্রাচীর নির্মাণের বিষয়ে অর্থ বরাদ্দ চেয়ে মন্ত্রণালয়ে পত্র প্রেরণ করা হয়েছে।

ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স এর সহকারী পরিচালক মো: দিদারুলর আলম বলেন, রাঙ্গামাটিবাসীর দীর্ঘ দিনের দাবী রিভার ফায়ার স্টেশন স্থাপনে উর্ধতন কর্মকর্তাকে অবগত করা হয়েছে। এ জেলার মানুষের এ দাবী পূরণে আমরা আন্তরিকতার সাথে কাজ করে যাচ্ছি। তিনি বলেন, বর্তমানে রাঙ্গামাটি সদর ও কাউখালী উপজেলার ফায়ার স্টেশনের কাজ চলছে। এছাড়া রাজস্থলী ও লংগদু উপজেলায় ফায়ার স্টেশন স্থাপনে টেন্ডার আহ্বান করা হয়েছে।

জেলা খাদ্য বিভাগের খাদ্য পরিদর্শক জানান, জেলায় বর্তমানে ৪,৪০৪ মেট্রিক টন চাল এবং ৬৪৩ মেট্রিক টন গম মজুদ রয়েছে। অন্যদিকে ওএমএস ও ভিজিডি কার্যক্রম চলছে।

সভায় উপস্থিত অন্যান্য বিভাগীয় কর্মকর্তাগণ স্ব স্ব বিভাগের কার্যক্রম উপস্থাপন করেন।

অরুনেন্দু ত্রিপুরা
জন সংযোগ কর্মকর্তা
রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ
ছবি এবং সংবাদ : লিটন শীল।

খবরটি শেয়ার করুন

Post Comment