রাঙ্গামাটিতে ম্যালেরিয়া বিষয়ক এ্যাডভোকেসি সভা অনুষ্ঠিত

রাঙ্গামাটি রিপোর্ট –

তৃণমূল পর্যায়ে সাধারণ মানুষকে সচেতন করা গেলে ম্যালেরিয়া নির্মূল করা সম্ভব বলে মন্তব্য করেছেন রাঙ্গামাটি জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমা। তিনি বলেন, সমতলের চাইতে পার্বত্য অঞ্চল ম্যালেরিয়া রোগের জন্য ঝুঁকি বেশী। তাই ম্যালেরিয়া সচেতনতা আরো বেশী বৃদ্ধি করতে হবে। সচেতনতামূলক সভা সেমিনার শহরের তুলনায় তৃণমূল পর্যায়ে স্থানীয় জন প্রতিনিধিদের মাধ্যমে করা গেলে আরো বেশী ফলপ্রসূ হবে।

বৃহস্পতিবার (৩১ জানুয়ারি) সকালে রাঙ্গামাটি ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর সাংস্কৃতিক ইনষ্টিটিউটে জাতীয় ম্যালেরিয়া নির্মূল কর্মসূচীর আওতায় ম্যালেরিয়া কর্মসূচী বিষয়ক রাঙ্গামাটি জেলা পর্যায়ে দিনব্যাপী এ্যাডভোকেসি সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

রাঙ্গামাটি সিভিল সার্জন ডা: শহীদ তালুকদারের সভাপতিত্বে সভায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, ঢাকা স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত পরিচালক দিলরুবা সুলতানা, রাঙ্গামাটি অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মো: নজরুল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রনজিৎ কুমার পাল, ম্যালেরিয়া এলিমিনেশন এন্ড এটিডি কন্ট্রোল প্রোগ্রামের ডিপিএম ডা: এমএম আখতারুজ্জামান ও রাঙ্গামাটি ডেপুটি সিভিল সার্জন ডা. নীহার রঞ্জন নন্দী বক্তব্য রাখেন। অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ পাঠ করেন ডা. এন্ড্রো বিশ্বাস।

সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে রাঙ্গামাটি জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমা আরো বলেন, ম্যালেরিয়া সর্ম্পকে এলাকার মানুষ যতদিন সচেতন হবে না, ততদিন ম্যালেরিয়া রোধ করা সম্ভব হবে না। তাই শহর এলাকাসহ অন্যান্য দুর্গম এলাকায় গিয়ে ম্যালেরিয়াসহ অন্যান্য রোগ প্রতিরোধে সংশ্লিষ্টদের গিয়ে বোঝাতে হবে। আর মানুষের মাঝে সচেতনতা বৃদ্ধি করা গেলে ম্যালেরিয়া রোধ করা সম্ভব।

সভায় বক্তারা বলেন, সমতলের চাইতে পার্বত্য অঞ্চল ম্যালেরিয়া রোগের জন্য ঝুঁকি বেশী। তবে বিগত ও চলমান বছরের ম্যালেরিয়া রোগীর মৃত্যু শূন্যের কোঠায় রয়েছে। আর চলমান ম্যালেরিয়া নির্মূল কর্মসূচী সফল করতে হলে জনগণকে আরো সচেতন করে তুলতে হবে। জনগণ সচেতন হলে পার্বত্য চট্টগ্রাম থেকে ম্যালেরিয়া পুরোপুরি নিমুর্ল করা সম্ভব।

তাই ম্যালেরিয়াসহ বিভিন্ন রোগের জন সচেতনতায় সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করার আহ্বান জানান বক্তারা।

খবরটি শেয়ার করুন

Post Comment