বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত কাপ্তাই উপজেলার মফিজুল হক

কাপ্তাই রিপোর্ট –

আগামী ১৮ মার্চ তিন পার্বত্য জেলায় উপজেলা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। রাঙ্গামাটি জেলার কাপ্তাই উপজেলা পরিষদ  নির্বাচনে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন দেওয়া হয় চন্দ্রঘোনা ইউনিয়ন পরিষদের প্রাক্তন চেয়ারম্যান এবং রাঙ্গামাটি জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মো: মফিজুল হককে। মফিজুল হক ছাড়া অন্য কোন প্রার্থী উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হননি। বুধবার (২০ ফেব্রুয়ারি) বাছাই প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়। এতে মফিজুল হকের প্রার্থিতা বহাল থাকে। এর ফলে মফিজুল হক বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় কাপ্তাই উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

এ ব্যাপারে কাপ্তাই উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো: সাইফুল ইসলাম বলেন, উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে একমাত্র প্রার্থী ছিলেন মো: মফিজুল হক। ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী ছিলেন ৪ জন এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদেও প্রার্থী হন ৪ জন। বুধবার বাছাইয়ে সবার প্রার্থিতা বহাল থাকে। তবে প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ২৭ ফেব্রুয়ারি পার না হওয়া পর্যন্ত কাউকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত বলার সুযোগ নেই। প্রার্থিতা প্রত্যাহারের সময়ের মধ্যে কোন কারণে মফিজুল হক প্রার্থিতা প্রত্যাহার পারেন। তাই প্রত্যাহারের শেষ দিন অতিবাহিত না হওয়া পর্যন্ত কাউকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত বলা যাবে না।

এ ব্যাপারে মফিজুল হক বলেন, রাঙ্গামাটি ২৯৯ আসনের সাংসদ দীপংকর তালুকদার তাঁকে কাপ্তাই উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন দিয়েছেন। উপজেলা আওয়ামী লীগ, ছাত্রলীগসহ সহযোগী সংগঠনের সকল নেতাকর্মী তাঁকে সমর্থন জানিয়েছেন। তাঁকে সম্মান জানিয়ে অন্য কেউ চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হননি। কাজেই সকলের সম্মানার্থে তিনি কোন অবস্থাতেই প্রার্থিতা প্রাত্যাহার করবেন না বলে দৃঢ়তার সাথে জানান।

রাঙ্গামাটি জেলার ১০ উপজেলার কোথাও বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় কেউ নির্বাচিত হননি বলেও উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো: সাইফুল ইসলাম জানান। তবে কাপ্তাই উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে ২য় প্রার্থী না থাকলেও ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৮ জন প্রার্থী রয়েছেন বলে উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা জানান। ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রার্থীরা হলেন মো: আলম, মো: নাসির উদ্দিন, সুব্র্রত বিকাশ তনচংগ্যা ও অংলাচিন মারমা। মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদেও প্রার্থী হচ্ছেন ৪ জন। তাঁরা হলেন নুর নাহার, ফারহানা আহমেদ পপি, মনোয়ারা বেগম ও উমেচিং মারমা।

খবরটি শেয়ার করুন

Post Comment