জিনবোধি মহাথের’র ৪৯তম জন্মজয়ন্তী

সুপ্রিয় চাকমা শুভ, রাঙ্গামাটি প্রতিনিধি –


রাঙ্গাামাটির সাপছড়ি ইউনিয়নের অন্যতম বৌদ্ধ ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান বোধিপুর বনবিহারের অধ্যক্ষ মিতভাষী শ্রীমৎ জিনবোধি মহাথের’র ৪৯তম জন্মজয়ন্তী পালিত হয়েছে। বুধবার সকালে বুদ্ধ পতাকা উত্তোলনের মধ্যে দিয়ে শুরু হয়েছে তিনদিন ব্যাপী জমকালো ধর্মীয় অনুষ্ঠান। প্রথম দিনে বনভান্তের স্মৃতিচারণে কণ্ঠশিল্পী লক্ষ্মীদেবী চাকমা ও প্রিয় চাকমার উদ্বোধনী ধর্মীয় সঙ্গীত পরিবেশনায় শুরু হয় প্রথম দিনের বর্ণাঢ্য ধর্মীয় কর্মসূচী।

এছাড়াও ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনায় জিনবোধি মহাথের’র জন্মজয়ন্তীর ধর্মীয় উৎসব ঘিরে বুদ্ধের পবিত্র বুদ্ধধাতু, ত্রিপিটক, ৮৪ হাজার ধর্মস্কন্ধ পূজা, ত্রিপিটক শোভাযাত্রা, বুদ্ধমূর্তি দান, সংঘ দান, অষ্টপরিস্কার দান, মহালাভী সীবলী পূজা, মঙ্গলসূত্র পাঠ, ধর্মীয় দেশনাসহ আয়োজন করা হয় নানান কর্মসূচী। ৮ মার্চে ধর্মীয় গাম্ভীর্য্যে মোড়ক উন্মোচন হবে জিনবোধি মহাস্থবিবের লেখা ‘বন্দুক ভাঙা আমি’ নামক গ্রন্থটির।

সকালে মোমবাতি জ্বালিয়ে কেক কাটার পরে ভিক্ষু সংঘকে ফুলের তোড়া দিয়ে বরণ করে নেওযা হয়। পরে পুণ্যার্থীদের পঞ্চশীল গ্রহণের মধ্য দিয়ে শুরু হয় দানোৎসব। এতে পঞ্চশীল প্রার্থনা করেন চন্দ্রলক্ষ্মী চাকমা। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন মল্লিকা চাকমা। পবিত্র ধর্মীয় অনুষ্ঠানে অংশ নেয় দুই শতাধিক পুণ্যার্থী।

পরে ধর্মদেশনায় জগতের মাঙ্গলিক কামনাসহ দান, শীল, ভাবনার উপর গুরুত্বরোপ করেন বোধিপুর বন বিহারের অধ্যক্ষ শ্রীমৎ জিনবোধি মহাস্থবির, রাঙ্গামাটি রাজবন বিহারের শ্রীমৎ জ্ঞানপ্রিয় মহাস্থবির ও প্রজ্ঞাদর্শী ভিক্ষু প্রমুখ। তারা আরো বলেন, জন্মদিবস উদযাপন করা মানে এ নয় যে আনন্দ-উল্লাস করা। জন্মদিবস পালনে বিভিন্ন উদ্দেশ্য রয়েছে। পূজ্য বনভান্তের জন্মদিবস উদযাপন ও অন্যান্য মহাস্থবির ভিক্ষুদের জন্মদিবসে তাদের জন্মদিনে স্মৃতিচারণ করা, সম্মান জানানো এবং স্মৃতি রাখা হচ্ছে জন্মদিন উদযাপনের একটি অন্যতম দিক। এভাবে গুরুজনদের ও পূজনীয় ভিক্ষু সংঘের জন্মদিবস উদযাপন করে মহা পূণ্যফল লাভ করা যায়।

এছাড়াও সকালে অনুষ্ঠান শেষে বেলা ২ টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হয় ধর্মীয় সঙ্গীত প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়।

খবরটি শেয়ার করুন

Post Comment