বিলাইছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতিকে গুলি করে হত্যা

বিলাইছড়ি রিপোর্ট –

রাঙ্গামাটি বাঘাইছড়ির হত্যাকান্ডের ঘটনার একদিন পরেই বিলাইছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগ  সভাপতি সুরেশ কান্তি তঞ্চঙ্গ্যাকে গুলি করে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। মঙ্গলবার (১৯ মার্চ) সকালে বিলাইছড়ি ফারুয়া এলাকার আলিখ্যংয়ে এই ঘটনা ঘটে। তিনি উপজেলা নির্বাচনী কার্যক্রম শেষ করে ফারুয়া ইউনিয়ন থেকে ইঞ্জিন চালিত নৌকাযোগে বিলাইছড়িতে ফিরছিলেন।

জানা গেছে, উপজেলা নির্বাচনী কাজ শেষে নিজ বাড়িতে ফেরার পথে ফারুয়ার আলিখ্যং এলাকা পৌছালে আগে থেকে ওৎপেতে থাকা সন্ত্রাসীরা তার বোট থামিয়ে তাকে লক্ষ্য করে গুলি করে। এতে ঘটনাস্থলে তার মৃত্যু হয়। এসময় তার স্ত্রী ও সন্তান বোটে উপস্থিত ছিলেন। পরে সন্ত্রাসীরা তার মৃত্যু নিশ্চিত করে ঘটনাস্থল ত্যাগ করে।

হত্যাকান্ডের ঘটনা নিশ্চিত করে বিলাইছড়ি ইউএনও আসিফ ইকবাল বলেন, ঘটনাস্থল থেকে সকালে মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য রাঙ্গামাটি জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। উপজেলার সর্বত্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে বলে জানান তিনি।
এদিকে সকালে লাশ উদ্ধার করে দুপুরে লাশ ময়নাতন্তের জন্য রাঙ্গামাটিতে নিয়ে আসা হলে ময়নাতদন্তে শেষে তার পরিবারের নিকট লাশ হস্তান্তর করা হয়।

অন্যদিকে দুপুরে মরদেহ রাঙ্গামাটি নিয়ে আসা হলে রাঙ্গামাটি জেলা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা তাৎক্ষণিক রাস্তায় ব্যারিকেড দিয়ে বিক্ষোভ সমাবেশ করে। এতে করে সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। তারা দ্রুত এইসব হত্যার ঘটনায় জড়িতের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবী জানান।

বিক্ষোভ সমাবেশে এ হত্যাকান্ডের জন্য সন্তু লারমার নেতৃত্বাধীন পার্বত্য চট্টগ্রাম জন সংহতি সমিতিকে (জেএসএস)কে দায়ী করে রাঙ্গামাটি জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হাজী মোঃ মুছা মাতব্বর বলেন, পাহাড়ে আওয়ামী লীগের নেতাদের পরিকল্পিতভাবে হত্যা করছে জন সংহতি সমিতি। অবিলম্বে হত্যাকারীদের আইনের আওতায় আনা না হলে বৃহত্তর কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে বলে সমাবেশ থেকে হুশিয়ারি উচ্চারণ করেন তিনি। এদিকে এই হত্যাকান্ডের প্রতিবাদে বুধবার বিক্ষোভ সমাবেশ করবে রাঙ্গামাটি জেলা আওয়ামী লীগ।

খবরটি শেয়ার করুন

Post Comment